ব্যবসা

ধনীদের ওপর করের হার বাড়ানোর পরামর্শ

ঢাকা, ১২ এপ্রিল – আগামী বাজেটে ধনীদের ওপর কর হার বাড়ানোর পরামর্শ দিয়েছে বেসরকারি গবেষণা সংস্থা সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ-সিপিডি। সেই সঙ্গে গরিবের নানা ধরনের ভাতা বাড়িয়ে কমপক্ষে এক হাজার টাকা করার প্রস্তাব দিয়েছে তারা।

আগামী অর্থবছরের বাজেট সামনে রেখে মঙ্গলবার এক সংবাদ সম্মেলনে এ পরামর্শ দেয় সিপিডি।

সংবাদ সম্মেলনে সিপিডির সম্মানীয় ফেলো মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, বর্তমান সময়টি অত্যন্ত কঠিন। আন্তর্জাতিক বাজারে পণ্যমূল্য বেড়ে যাওয়ার কারণে দেশের মধ্যে নিত্যপণ্যের দাম বাড়ছে। ফলে সাধারণ মানুষের দুর্ভোগ ক্রমেই বাড়ছে। এ অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে, নিম্ন আয়ের মানুষকে কীভাবে স্বস্তি দেয়া যায় সেটাই হওয়া উচিত আগামী বাজেটের মূল উদ্দেশ্য।

বর্তমানে ধনী করদাতাদের জন্য সর্বোচ্চ কর হার ২৫ নির্ধারিত আছে। সিপিডি মনে করে, করোনা-পরবর্তী দেশের পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে বড় করদাতাদের জন্য কর হার আগের মতো অর্থাৎ ৩০ নির্ধারণ করা উচিত।

ঋণখেলাপি ও কর খেলাপির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স বাস্তবায়নে নতুন বাজেটে একটি পথ নকশাও দেখতে চায় সংস্থাটি। সংস্থাটি মনে করে, বণ্টন ব্যবস্থা নিশ্চিত করা গেলে সমাজে বিদ্যমান ধনী দরিদ্রের বৈষম্য কমে আসবে। এবার বাজেটে বয়স্ক, বিধবাসহ সব ধরনের ভাতার পরিমাণ ৫০০ টাকা থেকে বাড়িয়ে দ্বিগুণ করার প্রস্তাব দিয়েছে সংস্থাটি।

প্রণোদনার কাঠামোতে পরিবর্তনের কথাও বলেছে সিপিডি। সংস্থাটি মনে করে, করোনাকালীন যেসব খাতে কর ছাড় বা অব্যাহতি দেয়া হয়েছে তা এখন তুলে নেয়া উচিত।

আয় বাড়াতে রপ্তানি পণ্যের বহুমুখীকরণের কথা বলেছে সিপিডি। প্রবাসী-আয়ে প্রণোদনা অব্যাহত রাখতে বলেছে তারা। সিপিডি মনে করে, ৬ মূল্যস্ফীতির হার সঠিক নয়। বাস্তবতার পরিপ্রেক্ষিতে মূল্যস্ফীতি হিসাব নির্ধারণের তাগিদও দিয়েছে তারা। বাজার নিয়ন্ত্রণে প্রতিযোগিতা কমিশনকে আরও শক্তিশালী করার পরামর্শও দিয়েছে সিপিডি।

ব্যক্তি শ্রেণির করমুক্ত আয়সীমা তিন লাখ থেকে বাড়িয়ে সাড়ে তিন লাখ টাকা নির্ধারণের প্রস্তাবও করা হয়েছে। অন্যদিকে অলাভজনক ও মৃতপ্রায় সরকারি প্রতিষ্ঠান ক্রমান্বয়ে বন্ধ করে বেসরকারি খাতে ছেড়ে দেয়ার পরামর্শ দেয়া হয়েছে। কালো টাকা সাদা করার সুযোগ দেয়াকে কোনোভাবেই সমর্থন করা যায় না বলেও মন্তব্য করে সিপিডি।

সিপিডির নির্বাহী পরিচালক ফাহমিদা খাতুন বলেন, আগামী বাজেট হতে হবে কল্যাণমুখী। নতুন বাজেটে মানুষের ক্রয়ক্ষমতা নিশ্চিত করার ব্যবস্থা থাকতে হবে।

পুঁজিবাজার উন্নয়নে সুশাসন ও নজরদারি বাড়ানোর প্রস্তাব করেন সিপিডির ঊর্ধ্বতন গবেষণা পরিচালক খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম।

রাজস্ব সংগ্রহ লক্ষ্যভিত্তিক না হয়ে ন্যায্যতার ভিত্তিতে করা উচিত বলে মনে করেন সিপিডির সিনিয়র রিসার্চ ফেলো তৌফিকুল ইসলাম।

সূত্র: বাংলাদেশ জার্নাল
এম ইউ/১২ এপ্রিল ২০২২

Back to top button