সচেতনতা

করোনাকালে পেটে গ্যাস ও অ্যাসিডিটি, কী করবেন?

করোনা মহামারির দ্বিতীয় ঢেউ চলছে। এবারের সংক্রমণে অনেকেরই নতুন উপসর্গ দেখা দিচ্ছে। পেটে গ্যাস, অ্যাসিডিটি ও পেট ফুলে থাকার মতো প্রকট সমস্যাগুলোর কথা শোনা যাচ্ছে। এর বাইরেও বমি, বুক ধড়ফড়, মাথা ঘোরানোসহ সেখান থেকে প্যানিক অ্যাটাক পর্যন্ত হচ্ছে অনেকেরই।

করোনা হলে প্রথমে এত সমস্যা প্রকাশ পায় না। কিন্তু পরবর্তীতে এটি অনেক ভয়ঙ্কর আকার ধারণ করে নিয়ে যাচ্ছে মৃত্যুর দারপ্রান্তে। তাই এ থেকে আগাম সতর্ক থাকতে হবে সবার।

পেটের সমস্যার দুটি কারণকেই দায়ী করছেন বিশেষজ্ঞরা।

স্বাস্থ্যকরভাবে হজমক্রিয়া ঠিক রাখতে মূল স্তম্ভ হিসেবে কাজ করে চারটি বিষয়। সেগুলো হচ্ছে— স্বাস্থ্যকর ডায়েট, নিয়মিত শরীরচর্চা, ভালোমতো ঘুমানো এবং মনের দিক থেকে শক্তিশালী থাকা।

করোনা মহামারি শুরু হওয়ার পর থেকে এখন পর্যন্ত দেশে কমবেশি লকডাউন চলছেই। বাড়িতেই ঘরবন্দি থাকছেন অনেকেই। ঘরমুখো হবার কারনে সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্যবহার বেড়েছে আগের চেয়ে বেশি। সেগুলোতে খাবার এবং রান্না সম্পর্কিত পোস্ট ছড়িয়ে পড়ার প্রবণতার কারণে রান্নার প্রতি আগ্রহও বাড়িয়ে তুলেছে অনেকেরই।

আর এর কারণে ঘন ঘন ভিন্ন রকমের স্বাদ গ্রহণের প্রবণতা অনেকের মাঝেই দেখা যায় অনেক বেশি। বাইরের খাবারের ব্যবহারও বেড়েছে অনেকগুণ। বাইরের অনেক রেস্তোঁরা বন্ধ থাকলেও রয়েছে তাদের হোম ডেলিভারি সর্ভিস।

এরকম নানান কারনে শরীরে খাবারের পরিমাণ বেড়ে যাচ্ছে অথচ সে অনুযায়ী নড়চড় হচ্ছেনা শরীরের। এছাড়াও অনেক যায়গাতেই ওয়ার্ক ফর্ম হোম চালু থাকায় বসে থেকে কাজ করেও মুখ চলে সারাক্ষন।

এ সময়টায় মানসিক চাপও বৃদ্ধি পাচ্ছে মানুষের। বাধাগ্রস্থ হচ্ছে শারীরিক ক্রিয়াকলাপও।

ডাক্তাররা বলছেন, ‘এখন কোভিড ১৯ সংক্রমণে বমি বমি ভাব, ডায়রিয়া এবং পেটে ব্যথা হচ্ছে। এর পাশাপাশি, কোভিড মুক্ত হওয়ার পর অনেক রোগীর হজম সমস্যা দেখা দিচ্ছে। পেট ফুলে যাওয়া থেকে শুরু করে অ্যাসিডিটি, কোষ্ঠকাঠিন্য এবং খিটখিটে মুডও দেখা যাচ্ছে মানুষের মঝে। কোভিড ১৯-এর চিকিৎসার সময় একাধিক ওষুধের সংমিশ্রণ ফলাফলও বলা যেতে পারে একে। অ্যান্টিবায়োটিকস, অ্যান্টিভাইরালস, অ্যান্টিফাঙ্গালস, অ্যান্টিম্যালারিয়ালস এবং স্টেরয়েডগুলো রোগীর শরীরে প্রয়োগ করা হয়। আর এরই ফল হিসেবে পেটের সমস্যা দেখা দিচ্ছে অনেকের’।

পেটের সমস্যা সমাধানের উপায়-

ডাক্তারদের মতে, ‘এই গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল বিষয়গুলোর যত্ন নেওয়া এখন সবচেয়ে বেশি প্রয়োজনীয়। নিয়মিত রুটিনের মধ্যে বেঁধে ফেলতে হবে জীবনযাত্রাকে। ডায়েট এখন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ দিক’।

১. তেল, বেশি মসলাযুক্ত খাবার এবং চিনি এড়িয়ে চলতে হবে।
২. এ সময় খুব ঘন ঘন বাইরে থেকে খাবার অর্ডার না করাই ভালো।
৩. সময় মতো খাবেন এবং রাতে হালকা খাবার খান।
৪. নিয়মিত খাবারে সালাদ, ফল ও দই রাখুন।
৫. নিয়মিত চা ও কফি খাওয়া এড়িয়ে চলুন।
৬. ধূমপান ও অ্যালকোহল পান করা পরিহার করুন।
৭. মনকে শক্ত, চাঙ্গা ও পজিটিভ রাখুন।
৮. পর্যাপ্ত পরিমাণে পানি পান করুন এবং নিজেকে হাইড্রেটেড রাখুন।
৯. হজমক্রিয়া ভালো রাখতে নিয়মিত শরীরচর্চা করুন। বাইরে যেতে না পারলেও ঘরেই অনুশীলন করুন।

এম ইউ/২০ জুন ২০২১

Back to top button