ফ্যাশন

অ্যানগেজমেন্টে জামদানি কনে

আসছে বিয়ের মৌসুম। বিয়ে মানেই কমপক্ষে ৪-৫ টা প্রোগ্রাম অ্যানগেজমেন্ট, আকদ,হলুদ, বিয়ে এবং ওলিমা বা বৌভাত।

আজকাল আবার সব আয়োজনেই থিম বেজড পোশাক রাখা হয়। এসব অনুষ্ঠানে যেকোনো একটাতেও যদি থিম এ জামদানি রাখা হয়, তাহলে কেমন হবে?

লিখেছেন জনপ্রিয় অনলাইন শপ Kakoly’s Attire – স্বত্বাধিকারী কাকলী তালুকদার। কাকলী তালুকদার
বাঙালি বিয়ের প্রথম আনুষ্ঠানিকতা হলো পান চিনি বা অ্যানগেজমেন্ট। ছোটবেলা থেকে দেখে আসছি এই পান চিনি বা অ্যানগেজমেন্টকে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিতেন আমাদের মুরুব্বিরা। বিশেষ করে বিকালের কনে দেখা আলোতে পান চিনির আনুষ্ঠানিকতা হতো এবং সূর্য্যের আলো কোন শাড়িতে পড়লে তার ইফেক্ট কনের মুখ আরো উজ্জ্বল লাগবে এটা চিন্তা করে শাড়ি সিলেকশন করা হতো!

আজও এই অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে রীতিনীতি এবং আবেগ অনেকটাই রয়েছে সেই আগের মতোই। বিশেষ দিনটিকে স্মরণীয় করে রাখতে বিশেষ শাড়ি হিসেবে মাথায় রাখতে পারেন জামদানি। এটাতে যেমন অ্যানগেজমেন্টের সিম্পলিসিটি ফুটবে,তেমনি আপনার রুচির প্রকাশও হবে। কথায় আছে ফার্স্ট ইম্প্রেশন ইজ দ্যা বেস্ট ইমপ্রেশন!

অ্যানগেজমেন্ট অনুষ্ঠানে হবু বর পক্ষের অনেকেই হয়ত এদিনই কনেকে প্রথম দেখেন। জামদানি যেহেতু আমাদের দেশীয় ঐতিহ্যবাহী শাড়ি তারা আপনার রুচির প্রশংসা করবেনই। প্রথমেই সবাই জেনে যাবে তাদের বউ রুচিশীল এবং সৌখিন কন্যা।

অ্যানগেজমেন্টে কোন রঙের, কেমন জামদানি পরা যেতে পারে তা নিয়ে অনেকেরই প্রশ্ন থাকে। এই দিনে সাধারণত কনে বাড়িতেই সাজেন তাই শাড়িটি খুব জমকালো কাজের না হলেই ভালো। আর রং হিসেবে হালকা বেগুনি, অফহোয়াইট, লেমন, পিচ বা লাইট ওরেঞ্জ জামদানি হতে পারে বেস্ট চয়েস।

অ্যানগেজমেন্টের শাড়িটি বাজেটে রাখতে পারেন ৫০০০ থেকে শুরু করে ৫০ হাজার,শাড়ির বাজেট যাই হোক না কেন, সৌন্দর্যের কমতি হবে না।

জামদানির সঙ্গে কানে ঝুমকা, হাতে বালা গলায় মালা পরতেও পারেন। না পরলেও খারাপ লাগবে না। হালকা সাজে চোখে কাজল আর খোঁপায় বেলী, গাজরা বা গোলাপ ফুলে আপনি হয়ে উঠবেন অনন্যা।

আর এ উপলক্ষে কনের পরিবারের বাকি সদস্যারা পরতে পারেন হাল্কা রঙের জামদানি শাড়ি ও পাঞ্জাবি।

আডি/ ১৭ নভেম্বর

Back to top button