Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, মঙ্গলবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ , ১২ ফাল্গুন ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.2/5 (41 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)


আপডেট : ১০-১৬-২০১২

‘জাতীয় নির্বাচনে স্বল্প পরিসরে ইভিএম’


	‘জাতীয় নির্বাচনে স্বল্প পরিসরে ইভিএম’

রাজনৈতিক দলগুলোর আস্থা পাওয়া সম্ভব হলে আগামী জাতীয় নির্বাচনে ‘স্বল্প পরিসরে’ ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ব্যবহার করা হতে পারে বলে জানিয়েছেন নির্বাচন কমিশনার জাবেদ আলী।
তিনি বলেছেন, ‘সম্ভব হলে’ নির্বাচনের ছয় মাস আগে ইভিএম ব্যবহারের প্রয়োজনীয় আইনি উদ্যোগ নেওয়া হবে।
জাবেদ আলী মঙ্গলবার শেরে বাংলা নগরের ইসি কার্যালয়ে সাংবাদিকদের বলেন, “জাতীয় নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহারে কারো দ্বিমত ছিল না। তবে এর আগে আস্থা সৃষ্টির তাগিদ ছিল। এখনো সময় আছে।”
“দরকার হলে আগামী নির্বাচনে পুরোপুরি না হলে আংশিক ইভিএমে হবে। এ জন্য ছয় মাস আগে আইন করব”, বলেন তিনি।
এটিএম শামসুল হুদা নেতৃত্বাধীন কমিশন সাফল্যের সঙ্গে কয়েকটি স্থানীয় নির্বাচনে এ প্রযুক্তি ব্যবহার করে। এরপর চলতি বছরের শুরুতে বিদায়ের আগে জাতীয় নির্বাচনেও ইভিএম ব্যবহারের পরিকল্পনার কথা জানায়।
কিন্তু কাজী রকিবউদ্দিন আহমেদ নেতৃত্বাধীন বর্তমান কমিশন দায়িত্ব নেয়ার পর থেকেই জাতীয় নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহারের বিষয়টি ঝুলে যেতে থাকে। গত ৩১ সেপ্টেম্বর গাজিপুরে অনুষ্ঠিত উপ নির্বাচনেও এ প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়নি।
এরপর গত ৫ অগাস্ট সিইসি কাজী রকিব এক আলোচনায় বলেন, আগামী সংসদ নির্বাচন ইভিএমে হচ্ছে না। তার এ বক্তব্যের পর বিভিন্ন মহলে সমালোচনার ঝড় ওঠে। সম্প্রতি আয়োজিত সংলাপেও কমিশন এ বিষয়ে প্রশ্নের মুখে পড়ে।
এ অবস্থায় নির্বাচন কমিশনার জাবেদ আলী বলেন, জাতীয় নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার নিয়ে ‘বোঝাবুঝির গ্যাপ’ রয়েছে।
“গত ইসি ইভিএম নিয়ে যে সূচনা করেছিল, তাদের লক্ষ্য ও আমাদের লক্ষ্য এক। জাতীয় নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহারের কথা বিগত কমিশনও বলেনি, সংসদ নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহারের আইন-বিধিও নেই। বলা হয়েছিল, স্থানীয় সব পর্যায়ে ইভিএম চালু করে মানুষ অভ্যস্ত হলে (এ প্রযুক্তি) সংসদ নির্বাচনে যাবে।”
এরই ধারাবাহিকতায় বর্তমান ইসি আসন্ন রংপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহারের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে জানান তিনি।
বিগত ইসি চট্টগ্রাম, নারায়ণগঞ্জ, কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন ও নরসিংদী পৌর নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার করে।
জাবেদ আলী জানান, সিটি কর্পোরেশন ও পৌর নির্বাচনের পর এবার উপজেলা পরিষদেও ইভিএম ব্যবহারের জন্য নির্বাচনী বিধিতে সংশোধন আনা হচ্ছে।
“আগামী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে নতুন কিছু উপজেলা কিংবা শূন্য স্থানে ইভিএমে ভোট নেয়ার লক্ষ্যে উপজেলা পরিষদ ইভিএম বিধিমালা সংশোধন করা হচ্ছে।”
দশম সংসদ নির্বাচনের আর মাত্র বছরখানেক বাকি থাকলেও তাতে ‘স্বল্প পরিসরে’ ইভিএম ব্যবহার করা যেতে পারে বলে মনে করেন এই নির্বাচন কমিশনার।
তিনি বলেন, জাতীয় নির্বাচনে বড় পরিসরে ইভিএম ব্যবহার করতে গেলে প্রায় চার লাখ ইভিএম দরকার হবে। নির্বাচনের ছয় মাস আগে কারিগরি দল দিনরাত পরিশ্রম করলেও ‘বড় জোর কয়েক হাজার’ ইভিএম বানাতে পারবে। তা দিয়ে হবে আংশিক নির্বাচন সম্ভব।
আর ইভিএম তৈরি ও ব্যবস্থাপনার বিষয়ে বুয়েটের উপর পুরোপুরি নির্ভরশীল না থেকে কমিশন নিজস্ব জনবল দিয়ে একটি দল গঠন করছে বলেও জাবেদ আলী জানান।

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে