Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 2.9/5 (89 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০৯-২৫-২০১২

সাবেক এমপি জালালের ‘রহস্যজনক’ মৃত্যু


	সাবেক এমপি জালালের ‘রহস্যজনক’ মৃত্যু

নেত্রকোনা, সেপ্টেম্বর ২৫ - নিজের পিস্তলের গুলিতে মারা গেছেন নেত্রকোনা-১ (দুর্গাপুর-কলমাকান্দা) আসনের সাবেক সংসদ সদস্য জালাল উদ্দিন তালুকদার, যে ঘটনাকে ‘রহস্যজনক’ বলছে তার দল আওয়ামী লীগ।

 
নিজের বাড়িতে মাথায় আঘাতপ্রাপ্ত জালালকে (৬৩) মঙ্গলবার সকালে দুর্গাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নেয়া হয়। এরপর তাকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হলে সেখানে তার মৃত্যু হয়। 
 
জালাল উদ্দিনের মাথা থেকে একটি গুলি বের করা হয়েছে, যা তার নিজের পিস্তলের বলে জানিয়েছে পুলিশ। তবে কীভাবে তিনি গুলিবিদ্ধ হলেন, সেই প্রশ্নের উত্তর নেই পুলিশের কাছে। 
 
জালালের প্রথম স্ত্রীর ছেলে কুতুব উদ্দিন রোয়েল দাবি করেছে, তার সৎমাই তার বাবাকে হত্যা করেছে। 
 
জালালের মৃত্যুতে আওয়ামী লীগের শোকবার্তায় বলা হয়েছে, জালাল উদ্দিন নিজের বাড়িতে ‘রহস্যজনকভাবে’ আহত হন। পরে তাকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। 
 
তিনবারের সংসদ সদস্য জালাল দুর্গাপুরে থাকতেন। তার দ্বিতীয় স্ত্রী আয়েশা বেগম ওই বাড়িতেই থাকেন। 
 
আয়েশা বেগমের বরাত দিয়ে দুর্গাপুর থানার ওসি মো. আলমগীর হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, মাথায় আঘাতপ্রাপ্ত অবস্থায় মঙ্গলবার সকাল ৭টায় বিছানায় পড়ে থাকতে দেখে স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নেয়া হয় সাবেক সংসদ সদস্যকে। 
 
অবস্থার অবনতি হলে তাকে সকাল ১০টার দিকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। 
 
জালালের ময়নাতদন্তের পর ময়মনসিংহ মেডিকেলের ফরেনসিক বিভাগের চিকিৎসক এ কে এম মঞ্জুরুল কাদের বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “সাবেক সাংসদের মাথা থেকে একটি গুলি বের করা হয়েছে।” 
 
ময়নাতদন্তের পর সন্ধ্যায় দুর্গাপুর থানার ওসি আলমগীর হোসেন বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, জালাল তালুকদার নিজের পিস্তলের গুলিতেই মারা গেছেন। 
 
“তার বাসা থেকে লাইসেন্স করা পিস্তলটি জব্দ করা হয়েছে। এর ভেতরে একটি গুলির খোসা ও পাঁচ রাউন্ড গুলি পাওয়া গেছে। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, নিজের পিস্তলের গুলিতেই তিনি মারা গেছেন।” 
 
জালাল আত্মহত্যা করেছেন, না দুর্ঘটনার শিকার হয়েছেন, না কি কেউ তাকে গুলি করেছে- তা এখনো স্পষ্ট নয় পুলিশের কাছে। 
 
ওসি বলেন, পিস্তলটি জব্দ করা হয়েছে। এটি সিআইডির ফিঙ্গারপ্রিন্ট বিশেষজ্ঞদের কাছে পাঠানো হবে। তারপর এ ব্যাপারে নিশ্চিত হওয়া যাবে। 
 
জালালের প্রথম স্ত্রী জহুরা বেগমের ছেলে রয়েল মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৮টায় বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, তার বাবাকে গুলি চালিয়ে হত্যা করা হয়েছে। 
 
“আমার বাবাকে হত্যার পেছনে সৎমা আয়েশা বেগম, সৎভাই মাসুদ (আয়েশার আগের স্বামীর সন্তান) ও স্থানীয় সংসদ সদস্য মোস্তাক আহম্মেদ রুহির হাত রয়েছে।” 
 
রয়েল বলেন, “সোমবার রাত দেড়টার দিকে বাবা আমাকে ফোন করে বলেছিলেন, রাজনীতি থেকে আমি সরে না গেলে তাকে রুহী মেরে ফেলবেন। সৎমা ও মাসুদ সম্পত্তির লোভে রুহীর সঙ্গে হাত মিলিয়ে বাবাকে মেরেছে। 
 
“আজ বিকাল পর্যন্ত (গুলির বিষয়টি নিশ্চিতের আগ পর্যন্ত) আয়েশা বেগম বলেছেন, বাবা বাথরুমে পড়ে গিয়ে মাথায় আঘাত পেয়ে মারা গেছেন। এতে স্পষ্ট বোঝা যায়, তিনি বাবাকে হত্যার সঙ্গে জড়িত আছেন।” 
 
এই বিষয়ে প্রতিক্রিয়া জানতে দুর্গাপুরের বর্তমান সংসদ সদস্য মোস্তাকের সঙ্গে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের পক্ষ থেকে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, “আমি এই বিষয়ে কোনো মন্তব্য করব না।” 
 
জালাল তালুকদারের মরদেহ রাতে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের হিমঘরে থাকবে। বুধবার জোহরের নামাজের পর দুর্গাপুর সুসং ডিগ্রি কলেজ মাঠে জানাজা হবে বলে রয়েল জানান। 
 
তিনি বলেন, পরে পারিবারিক কবরস্থানে মা জহুরা বেগমের কবরের পাশে বাবাকে সমাহিত করা হবে। 
 
মুক্তিযোদ্ধা জালাল উদ্দিনকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় সমাহিত করার প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে বলে দুর্গাপুর থানার ওসি জানান। 
 
১৯৬৭ সালে ছাত্রলীগের মাধ্যমে জালাল তালুকদারের রাজনৈতিক জীবনের শুরু। ১৯৭৯ সালে প্রথম আওয়ামী লীগ থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ার রাতেই তিনি দুর্বৃত্তদের গ্রেনেড হামলায় দুটি পা হারান। পরে জার্মানিতে তার কৃত্রিম পা সংযোজন করা হয়। 
 
জালাল তালুকদার ১৯৮৬ ও ১৯৯৬ সালেও সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। দীর্ঘদিন তিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। 
 
জালাল উদ্দিন তালুকদারের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। 
 
প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী মাহাবুবুল হক শাকিল বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, প্রধানমন্ত্রী প্রয়াত এই আইন প্রণেতার বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা এবং শোক সন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা প্রকাশ করেছেন। 
 
উপ-দপ্তর সম্পাদক মৃণাল কান্তি দাস স্বাক্ষরিত আওয়ামী লীগের শোকবার্তায় বলা হয়, “জালাল উদ্দিন তালুকদার মঙ্গলবার ময়মনসিংহ জেলার দুর্গাপুরে নিজ বাসভবনে রহস্যজনকভাবে আহত হন। পরে তাকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা মৃত ঘোষণা করেন।” 
 
জালাল তালুকদারের মৃত্যুতে জাতীয় সংসদের উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলামও শোক জানিয়েছেন। 

নেত্রকোনা

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে