Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, মঙ্গলবার, ২১ জানুয়ারি, ২০২০ , ৭ মাঘ ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.5/5 (2 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৯-২১-২০১২

মেয়াদ শেষের আগেই ভেঙে দেয়া হবে সংসদ


	মেয়াদ শেষের আগেই ভেঙে দেয়া হবে সংসদ

মেয়াদপূর্তির আগেই ভেঙে দেয়া হবে নবম সংসদ। সাংবিধানিক জটিলতা এড়াতেই তা করা হবে। প্রধানমন্ত্রী প্রেসিডেন্টের কাছে সংসদ ভেঙে দেয়ার অনুরোধ করবেন। অনুরোধ অনুযায়ী সিদ্ধান্ত নেবেন প্রেসিডেন্ট। বর্তমান সাংবিধানিক কাঠামোতে দু’টি বিকল্প রয়েছে। মেয়াদ অবসানের কারণে সংসদ ভেঙে যাওয়ার ক্ষেত্রে মেয়াদ শেষের পূর্ববর্তী ৯০ দিনের মধ্যে নির্বাচন করতে হবে। মেয়াদ অবসান ব্যতীত অন্য কোন কারণে সংসদ ভেঙে যাওয়ার ক্ষেত্রে পরবর্তী ৯০ দিনের মধ্যে নির্বাচন হবে। এখন একই সঙ্গে মেয়াদপূর্ণ এবং সংসদ না রেখে নির্বাচন করতে হলে সরকারকে সংবিধান সংশোধন করতে হবে। এ পথে এগোচ্ছে না সরকার। দ্বিতীয় বিকল্পটিই বেছে নেয়া হচ্ছে। এ ব্যাপারে আইনমন্ত্রী ব্যারিস্টার শফিক আহমেদ হতকাল মানবজমিনকে বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বলেছেন সংসদ রেখে নির্বাচন হবে না। প্রধানমন্ত্রীর এখতিয়ার রয়েছে তিনি যে কোন সময় প্রেসিডেন্টকে সংসদ ভেঙে দেয়ার অনুরোধ করতে পারেন। তখন প্রেসিডেন্ট সংসদ ভেঙে দেবেন। নির্বাচনের আগে সংসদ ভেঙে দেয়ার জন্য সংবিধান সংশোধনের প্রয়োজন হবে না। নবম সংসদের মেয়াদ শেষ হবে ২০১৪ সালের ২৪শে জানুয়ারি। পঞ্চদশ সংশোধনীতে যুক্ত সংবিধানের ১২৩(৩) অনুচ্ছেদে বলা আছে, “সংসদ সদস্যদের সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হইবে ক. মেয়াদ-অবসানের কারণে, সংসদ ভাঙিয়া যাইবার ক্ষেত্রে ভাঙিয়া যাইবার পূর্ববর্তী নব্বই দিনের মধ্যে; এবং খ. মেয়াদ-অবসান ব্যতীত অন্য কোনো কারণে সংসদ ভাঙিয়া যাইবার ক্ষেত্রে ভাঙিয়া যাইবার পরবর্তী নব্বই দিনের মধ্যে: তবে শর্ত থাকে যে, এই দফার (ক) উপদফা অনুযায়ী অনুষ্ঠিত সাধারণ নির্বাচনে নির্বাচিত ব্যক্তিগণ, উক্ত উপদফায় উল্লেখিত মেয়াদ সমাপ্ত না হওয়া পর্যন্ত, সংসদ সদস্যরূপে কার্যভার গ্রহণ করিবেন না।” সংবিধানের ৭২(১) অনুচ্ছেদে প্রধানমন্ত্রীর লিখিত পরামর্শ অনুযায়ী প্রেসিডেন্টকে সংসদ ভেঙে দেয়ার এখতিয়ার দেয়া হয়েছে। ৭২(১) অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, “সরকারি বিজ্ঞপ্তি দ্বারা রাষ্ট্রপতি সংসদ আহ্বান, স্থগিত বা ভঙ্গ করিবেন এবং সংসদ আহ্বানকালে রাষ্ট্রপতি প্রথম বৈঠকের সময় ও স্থান নির্ধারণ করিবেন।” তবে সংসদ নির্বাচন কখন হবে তা নির্ধারণের এখতিয়ার সংবিধান নির্বাচন কমিশনকে দিয়েছে। সংবিধানের ১১৯ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী প্রেসিডেন্ট পদের ও সংসদের নির্বাচনের জন্য ভোটার তালিকা প্রস্তুতকরণের তত্ত্বাবধান, নির্দেশ ও নিয়ন্ত্রণ এবং অনুরূপ নির্বাচন পরিচালনার দায়িত্ব নির্বাচন কমিশনের উপর ন্যস্ত থাকবে। সংসদ রেখে সংসদ নির্বাচনের অদ্ভুত বিধান ১৯৭২ সালের আদি সংবিধানেও ছিল। তবে ওই বিধান কখনও কার্যকর হয়নি। ত্রয়োদশ সংশোধনীতে এ বিধান সংবিধান থেকে বাদ দেয়া হয়। পরবর্তী সব ক’টি নির্বাচনই সংসদ ভেঙে যাওয়ার পরে হয়েছে। সংসদ রেখে সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠানের বিধানের বিরুদ্ধে গত কয়েক মাস থেকেই সমালোচনা হচ্ছিল। বিশেষজ্ঞরা এটিকে নজিরবিহীন হিসেবে আখ্যায়িত করেছিলেন। এ নিয়ে খোদ মহাজোটেই প্রশ্ন ওঠে। গত ২৫শে জুন সংসদে বাজেট আলোচনায় এ নিয়ে প্রশ্ন তোলেন ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন। সেদিন তিনি বলেছিলেন, অন্তর্বর্তী সরকার পঙ্গু হাঁস হতে পারে। কিন্তু সংসদ পঙ্গু হাঁস হতে পারে না। সংসদের বৈঠক না-ই ডাকা হতে পারে, কিন্তু সংসদ সদস্যদের বিশেষ অধিকার তো খর্ব হবে না। নির্বাচন কমিশন কোন আইন দিয়ে তা অকার্যকর করতে পারবে না।

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে