Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, রবিবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০১৯ , ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

গড় রেটিং: 1.0/5 (1 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ১০-২১-২০১১

সার্ত : জন্ম ও মৃত্যুশহর

সার্ত : জন্ম ও মৃত্যুশহর
লিবিয়ার নেতা কর্নেল মুয়াম্মার গাদ্দাফির জন্মশহর সার্ত। রাজধানী ত্রিপোলিতে গাদ্দাফি দুর্গের পতনের পর এ শহরেই ঘাঁটি গেড়েছিলেন তিনি। এখান থেকেই যুদ্ধ চালিয়ে যাওয়া এবং বিদ্রোহীদের দমনে হুংকার দিয়েছিলেন। তবে তা আর বাস্তবায়িত হলো না। তার আগেই গতকাল বৃহস্পতিবার এনটিসির বিদ্রোহীর হাতে পতন হয় গাদ্দাফির শেষ ঘাঁটির। গাদ্দাফিকে গুরুতর আহত অবস্থায় আটকের পর তাঁর মৃত্যুর ঘোষণা দেন লিবিয়ার ক্ষমতাসীন এনটিসির সরকারের কর্মকর্তারা।
৪২ বছর ধরে লিবিয়ার ক্ষমতায় ছিলেন গাদ্দাফি। ত্রিপোলির বাব আল-আজিজিয়া চত্বর গাদ্দাফির ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত ছিল। গত ২৩ আগস্ট বাব আল-আজিজিয়া দখল করে বিদ্রোহী বাহিনী। তার পরও গাদ্দাফির পতন হয়েছে_এটা ঘোষণা করতে পারেনি এনটিসি। তারা জানায়, সার্তের পতন হলেই গাদ্দাফির পতনের ঘোষণা দেওয়া যাবে।
সার্ত দখল করে থাকা গাদ্দাফির সমর্থিতদের অস্ত্র সমর্পণের জন্য এনটিসি ছয় দিনের সময় বেঁধে দেয়। গত ১৫ সেপ্টেম্বর তা শেষ হয়। এর পর থেকে গাদ্দাফি যেসব স্থানে লুকিয়ে থাকতে পারে, তা লক্ষ্য করে এনটিসি, বিদ্রোহী ও ন্যাটো বাহিনী বিমান ও স্থল হামলা শুরু করে। এরই পরিপ্রেক্ষিতে গতকাল পতন হলো গাদ্দাফির।
রাজধানী থেকে ৩৬০ কিলোমিটার পূর্বে সার্তের অবস্থান। ১৯৪২ সালের জুনে এই শহরে জন্ম নেন গাদ্দাফি। রাজকার্যের জন্য ত্রিপোলিতে থাকলেও জন্মশহরকে ভুলতে পারেননি তিনি। বিদেশি নেতারা লিবিয়া সফরে এলে তাঁদের সার্তে নিয়ে আপ্যায়ন করতেন তিনি। ত্রিপোলি থেকে পালিয়ে তিনি এখানেই অবস্থান নিয়েছিলেন। তবে শেষ রক্ষা হয়নি।

এশিয়া

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে