Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, বুধবার, ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০২০ , ১৫ আশ্বিন ১৪২৭

গড় রেটিং: 2.9/5 (36 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ১০-২৪-২০১৬

প্রেমের বলি জাহিদ: নাজমুলের স্বীকারোক্তি

প্রেমের বলি জাহিদ: নাজমুলের স্বীকারোক্তি

ঢাকা, ২৪ অক্টোবর- দূর সম্পর্কের বোন তামান্না সুলতানার (১৫) সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠার মাত্র ২৫ দিনের মাথায় খুন হন মো. জাহিদুল ইসলাম (১৯)। প্রেমিকার পিতা ও ভাইসহ ৭ স্বজন জাহিদকে সারারাত নির্যাতন করে নির্মমভাবে খুন করেছে। গত ১০ই অক্টোবর ডেমরার সারুলিয়ায় প্রেমিকার বাসার কাছে তার সঙ্গে কথা বলার দৃশ্য দেখে ফেলায় ধাওয়া দিয়ে ধরে তাকে খুন করা হয়। এই নৃশংসতার বর্ণনা দিয়ে গত ১৬ই অক্টোবর আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে এক আসামি। তিনি স্থানীয়ভাবে ‘ডাক্তার’ নামে পরিচিত প্যারামেডিক চিকিৎসক নাজমুল আহসান। তিনি ওই বাসার মালিক লিংকনের ভায়রা ও ভাড়াটিয়া। এদিকে ঘটনার প্রায় অর্ধমাসেও গ্রেপ্তার হয়নি মূল হোতারা।

আদালতে নাজমুলের জবানবন্দি ও মামলার এজাহারে জানা যায়, জাহিদ ও সুলতানা প্রেমে জড়িয়ে পড়ার বিষয়টি মানতে পারেনি তাদের পরিবার। গত ঈদুল আজহার দু’দিন পর ভোলায় গ্রামের বাড়ি যাওয়ার সময় নৌকায় কাকতালীয়ভাবে উভয় পরিবারের দেখা। প্রথম দেখাতেই দুজনের পরস্পরের প্রতি ভালো লাগা। সপ্তাহখানেক গ্রামে থাকাকালে তা প্রেমের সম্পর্কে গড়ায়। ঢাকায় ফেরার পরও উভয়ের লুকিয়ে দেখা-সাক্ষাৎ চলে। গত ১০ই অক্টোবর সুলতানার অনুরোধে জাহিদ তাদের বাড়ির কাছে গেলে রাতে কথা বলার সময় দেখে ফেলে প্রেমিকার স্বজনরা।–মানবজমিন।

তখন তাকে প্রেমিকার ভাই মোসলেম ও নাজমুলসহ সহযোগীরা ধাওয়া দিয়ে ধরে ফেলে। ধরে রাস্তার উপর বেধড়ক পেটানো হয় জাহিদকে। এরপর তাকে একটি কক্ষে ঢুকিয়ে সারারাত যে যেভাবে পেরেছে ইচ্ছেমতো কিল, ঘুষি, লাথি মেরেছে। পাইপ ও লাঠি দিয়ে পিটিয়েছে। করেছে রক্তাক্ত। জীবন্মৃত। জাহিদের শত অনুরোধ মন গলাতে পারে নি তাদের। মিলেনি পরিত্রাণ। নির্যাতনে বার বার সে মুমূর্ষু হয়ে পড়ছিল। একপর্যায়ে কেবল বুকটা নড়ছিল। মিলছিল না কোন সাড়া। সে অবস্থায়ও তাকে হাসপাতালে নেয়া হয়নি। রাখা হয় তালাবদ্ধ করে। শেষে অবস্থা শোচনীয় দেখে জাহিদের পরিবারে ফোন দেয়। তাদের আসতে বলে। তারা আসার পরও প্রথমে হাসপাতালে নিতে দেয়া হয়নি।

সুলতানাকে আর হয়রানি করবে না মর্মে অঙ্গীকার নেয়ার নামে নানা নাটকীয়তা ও তালবাহানা করে মেয়ের পিতা ছিদ্দিকুর রহমান, ছেলে মোসলেম ও নাজমুল আহসানসহ সহযোগীরা। এরপর শেষ রাতে তাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। ওই রাতে তার উপর নির্যাতন চালায় প্রেমিকার বাবা ও জাহিদের চাচা ছিদ্দিক হাওলাদার, তার বড় ছেলে মোসলেম, দ্বিতীয় ছেলে জুবায়ের গাজী, তৃতীয় ছেলে নিশান, প্রেমিকার দু’মামা এবং তাদের ভাড়া বাসার ভাড়াটিয়া নামজুল আহসান ও তার ছেলে কামরুল। এই ৭ জন দীর্ঘ সময় ধরে নির্দয়ভাবে তার উপর নির্যাতন চালিয়ে যায়। মামলায় ওই ৭ জনকে আসামি করেছেন নিহত জাহিদের পিতা আবদুল বারেক। ঘটনার তৃতীয় দিন নাজমুল আহসান ও তার ছেলে কামরুল গ্রেপ্তার হলেও মূল হোতা ছিদ্দিক ও ছেলেসহ বাকি ৫ জন এখনও অধরা রয়ে গেছে।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ডেমরা থানার উপ পরিদর্শক হুমায়ুন কবির বলেন, ৭ দিনের রিমান্ড আবেদনের পর আদালতের আদেশের পর গত ১৪ থেকে ১৬ই অক্টোবর পর্যন্ত দু’আসামিকে দু’দিনের রিমান্ডে আনা হয়েছিল। তাতে নাজমুল আহসান ও কামরুল ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছে। তাদের নির্মম নির্যাতনে জাহিদকে খুনের বিষয়টিও তারা আদালতে দেয়া জবানবন্দিতে বলেছে।

তিনি আরো বলেন, বাকি আসামিদের গ্রেপ্তারের জন্য রাজধানীর কয়েকটি স্থানে অভিযান চালানো হয়েছে। ভোলার লালমোহন থানায় হত্যা মামলার নথিপত্র পাঠিয়ে আসামি গ্রেপ্তারের জন্য অনুরোধ করা হয়েছে।

জানা যায়, নিহত জাহিদের বাড়ি ভোলা জেলার লালমোহন থানার কালমা গ্রামে। সুলতানাদের বাড়িও একই এলাকায়। জাহিদের পিতা আবদুল বারেক ২০০১ সাল থেকে ১৫ বছর ধরে ঢাকায় থাকেন। শাহজাদপুরেই তাদের বাসা। তিন ছেলের মধ্যে দ্বিতীয় জাহিদ সেখানে একটি হার্ডওয়ার দোকানে কাজ করতো। আর তার চাচাতো ভাই ছিদ্দিক হাওলাদার ডেমরার সারুলিয়ার রানীমোহন সিনেমা হলের কাছে গলাকাটা পুল এলাকায় লিংকনের বাসায় তিনি ভাড়ায় থাকেন। গ্রেপ্তার হওয়া লিংকন বাসা মালিক লিংকনের ভায়রা।

মামলার বাদী ছিদ্দিক বলেন, গ্রেপ্তার হওয়া আসামিরা জাহিদ খুনের বিষয় আদালতে স্বীকার করলেও মূল হোতারা এখনও গ্রেপ্তার হয়নি। তারা ভোলায় এসে আত্মগোপন করেছে জেনে আমিও খোঁজ নিতে ভোলায় অবস্থান করছি।

নিহত জাহিদের ভাই রিয়াজ উদ্দিন বলেন, তারা আমাদের আত্মীয়। তবে আমাদের চেয়ে অবস্থাসম্পন্ন। আমার ভাই অপরাধ করলে চাচা হিসেবে বিচার করতে বলেছিলাম। কিন্তু তা না করে একজনকে ৭ জন মিলে মেরে ফেলবে তা তো মেনে নেয়া যায় না। আমরা এর বিচার চাই।

এফ/১৬:১০/২৪ অক্টোবর

অপরাধ

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে