Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, শনিবার, ১৮ জানুয়ারি, ২০২০ , ৫ মাঘ ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.0/5 (132 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ১০-১৩-২০১৬

বাল্য বিবাহের কুফল

মওদুদ আহম্মেদ


বাল্য বিবাহের কুফল

জয়পুরহাট, ১৩ অক্টোবর- জয়পুরহাটের আক্কেলপুরে বাল্য বিবাহের কুফলে স্বামী ও পরিবারের অমানুষিক নির্যাতনে হাসপাতালে কাতরাচ্ছে বালিকা বধু। রান্নার সময় পিতৃবাড়ির জ্যাঠার সাথে কথা বলার অপরাধে স্বামীও তার বাড়ির লোকজন দফায় দফায় শরীরে পেরেক ফোটানো সহ অমানুষিক ভাবে মারপিট করে নির্যাতন চালিয়েছে বালিকা বধু বৃষ্টি (১৩) কে। অসহ্য যন্ত্রনায় ছটফট করছে হাসপাতালে। চিকিৎসা খরচ সহ সর্বক্ষণিক খোজ রাখছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার গোলাম মোঃ শাহনেওয়াজ।

হাসপাতাল ও পারিবারিক সুত্রে জানা গেছে, আক্কেলপুর উপজেলার সোনামুখী ইউনিয়নের চকরঘুনাথ পুর গ্রামের আশরাফুল ইসলামের মেয়ে আক্কেলপুর এফইউ পাইলট স্কুলের ৬ষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী বৃষ্টি (১৩)। একই বিদ্যালয়ের ৯ম শ্রেণির ছাত্র একই ইউনিয়নের গণিপুর গ্রামের হামিদুল ইসলামের পুত্র নুরুজ্জামান (১৫) সাথে গত ৬ মাস পুর্বে বিয়ে হয়। বিয়েটি ছিল উভয়ের মধ্যে প্রেমের সম্পর্কের জের ধরে।

বিয়ের পর বৃষ্টির আশ্রয় হয় শশুড় বাড়ি। শশুড়, শাশুড়ী, স্বামী সহ বাড়ির সকলের কাপড় ধোয়া, রান্নাবাড়া সহ সকল কাজ করার দায়িত্ব পড়ে তার উপর। একটু এদিক সেদিক হলেই পিঠে পড়ত কিল সাথে বকাঝকা। এ ভাবেই শুরু হয় বৃষ্টির সংসার।বৃষ্টি হাসপাতালের বেডে শুয়ে কান্না জড়িত কন্ঠে জানান, গত ১১ অক্টোবর মঙ্গলবার বৃষ্টি দুপুরের রান্না করছিল চুলাতে। এ সময় বাড়ির পাশের রাস্তা দিয়ে যাচ্ছিলেন জ্যাঠা আবুহেনা। তার ডাক শুনে চুলাতে চাপানো ভাত রেখে জ্যাঠার সাথে কথা বলার সময় চুলার আগুন নিভে যায়। রান্নাতে দেরী হওয়াই ক্ষিপ্ত হন স্বামী নুরুজ্জামান। অকথ্য ভাষায় গালি গালাজ করতে থাকেন স্ত্রী বৃষ্টিকে।

গালমন্দ করতে স্বামীকে নিষেধ করায় শাশুড়ী নুর বানু ক্ষিপ্ত হয়ে বলেন- স্বামীর মুখে মুখে কথা বলার সাহস কোথা থেকে হয় ? ব্যবস্থা করছি- বলে স্বামী, শশুড়,শাশুড়ী, চাচা শশুড়, চাচী শাশুড়ী সহ অন্যান্যরা মিলে কাঠের বাটাম ও লোহার পেরেক ফুটিয়ে দু’দিন ধরে দফায় দফায় নির্যাতন চারায়। মেয়েটির যন্ত্রনার চিৎকার শুনে জনৈক ব্যক্তি মেয়েটিকে উদ্ধার করার জন্য তার বাবার বাড়িতে সংবাদ পাঠান। বুধবার দুপুরে খবর পেয়ে তারা ছেলের বাড়ি থেকে বৃষ্টিকে উদ্ধার করে আক্কেলপুর হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করান।

কর্তব্যরত চিকিৎসক ডাঃ সোহেল আকতার বলেন, বৃষ্টির শরীরের বিভিন্ন জায়গায় ক্ষতের চিহ্ন ও ভোতা শক্ত কিছু দিয়ে আঘাত করার চিহ্ন পাওয়া দেখো গেছে। সে সর্বক্ষনিক ব্যথায় কাতরাচ্ছেন। অন্যান্য ঔষধের সাথে ব্যথার ঔষধ দেয়া হয়েছে। মেয়েটি সম্পুর্ন সুস্থ্যহতে সময় লাগবে।খবর পেয়ে আক্কেলপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার গোলাম মোঃ শাহনেওয়াজ ওই বালিকা বধু বৃষ্টির চিকিৎসা ব্যপারে খোজ খবর ও আর্থিক সহায়তা করছেন।

স্থানীয়দের ধারণা ছেলেটিকে ওই মেয়ের সাথে সংসার করতে না দেয়ার জন্য এমনটি করছেন ছেলে পরিবারে লোকজন। তা ছাড়া মেয়েটির অন্য কোন দোষ তারা খুজে পাননি। মেয়েটির উপর বেশিবেশি কাজ চাপালে সে নিজ ইচ্ছাই স্বামীকে ত্যাগ করে চলে যাবেন।

এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত কোন মামলা হয়নি। মামলা করার প্রস্তুতি চলছে বলে হাসপাতালে জানিয়েছেন বৃষ্টির মা ।

আর/১৭:১৪/১৩ অক্টোবর

জয়পুরহাট

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে