Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ , ৬ আশ্বিন ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.0/5 (10 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ১০-১৯-২০১১

পাঁচ বছরে ধূমপানে আসক্ত ৮৭ লাখ লোক

পাঁচ বছরে ধূমপানে আসক্ত ৮৭ লাখ লোক
বাংলাদেশে গত পাঁচ বছরে নতুন করে ধূমপানে আসক্ত হয়েছে ৮৭ লাখ লোক। এদের মধ্যে ৪৮ লাখ পুরুষ ও ৩৯ লাখ নারী। তামাক নিয়ন্ত্রণ আইনের যথাযথ বাস্তবায়ন না হওয়া এবং বিদ্যমান আইনে দুর্বলতা থাকার কারণে তামাক নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে না। আজ মঙ্গলবার মাদকদ্রব্য ও নেশানিরোধ সংস্থা ?মানস? এই তথ্য দিয়েছে।
জাতীয় প্রেসক্লাবে আয়োজিত ?তামাক ও ধূমপানের কারণে ৫০ লক্ষ মৃত্যু ও এফসিটিসি বাস্তবায়ন? শীর্ষক সেমিনারে এ তথ্য দেওয়া হয়।
জাতীয় সংসদের সরকারি দলের চিফ হুইপ উপাধ্যক্ষ আবদুস শহীদ বলেন, ?শুধু সচেতনতা দিয়ে তামাক নিয়ন্ত্রণ করা যাবে না। জাতীয় সংসদের লবিগুলো ধূমপানমুক্ত। তবুও প্রায়ই লুকিয়ে লুকিয়ে অনেকেই ধূমপান করে। তামাকের ব্যবহার নিয়ন্ত্রণে কঠোর ব্যবস্থা থাকা দরকার।?
আবদুস শহীদ বলেন, জাতীয় সংসদে বিদ্যমান আইনটি সংশোধনের উদ্যোগ নেওয়া হবে। তবে এখন পর্যন্ত স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রণালয় থেকে এ ধরনের কোনো প্রস্তাব এসে পৌঁছায়নি।
মানসের সভাপতি অরূপ রতন চৌধুরী বলেন, সারা বিশ্বে তামাক নিয়ন্ত্রণে একটি ফ্রেমওয়ার্ক কনভেনশন আছে। বাংলাদেশ এই কনভেনশনে প্রথম স্বাক্ষরদাতা দেশ। কিন্তু বিশ্বের উন্নত দেশগুলোয় শক্তিশালী আইন প্রণয়ন ও প্রয়োগে ধূমপায়ীর সংখ্যা কমে এসেছে। বাংলাদেশে এ সংখ্যা বাড়ছে।
এক উপস্থাপনায় অরূপ রতন চৌধুরী দেখান বিগত পাঁচ বছরে ধূমপানের প্রবণতা বৃদ্ধি পেয়েছে ২০ দশমিক নয় শতাংশ থেকে ২২ শতাংশ পর্যন্ত। বাংলাদেশে সিগারেট ও বিড়ি উভয় সেবনকারীদের হার ২০০৪-০৫ সালে যেখানে মাত্র দশমিক সাত শতাংশ ছিল, ২০০৯ সালে এসে সেই হার নয় দশমিক চার শতাংশে পৌঁছেছে। বাংলাদেশের চার কোটি ১১ লাখ লোক তামাক ও তামাকজাত পণ্য সেবন করছেন।
মানস সভাপতি আরও বলেন, সমাজের প্রতি দায়বদ্ধতার নামে তামাকজাত পণ্য উত্পাদনকারী প্রতিষ্ঠানগুলো সবাইকে ধোঁকা দিচ্ছে। তারা ঘটা করে বৃক্ষরোপণ করছে। সরকার তামাকজাত পণ্যের ওপর শুল্ক বাড়ালেই বছরে দুই হাজার ৪০০ কোটি টাকা কর দেওয়ার কথা বলছে। কিন্তু আসল সত্য হলো তামাক শুকানোর জন্য এ প্রতিষ্ঠানগুলো নির্বিচারে বন উজাড় করছে। আর দেশে তামাক সেবনের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের ২৫ শতাংশের জন্য স্বাস্থ্য খাতে সরকারের ব্যয় হচ্ছে দুই হাজার ৬০০ কোটি টাকা।
মানসের সাধারণ সম্পাদক চলচ্চিত্র অভিনেতা ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, মাদক নিয়ন্ত্রণে পপি চাষ নিষিদ্ধ করা হয়েছে। কিন্তু তামাক চাষ নিষিদ্ধ করা হচ্ছে না। কোনো ব্যক্তি ধূমপানের কারণে রোগাক্রান্ত হয়ে মারা গেলেও সে বিষয়টি সেভাবে প্রচার করা হচ্ছে না। যেমন বলা হচ্ছে, অমুক ব্যক্তি ফুসফুসের ক্যানসারে মারা গেছে, কিন্তু বলা হচ্ছে না যে সে সিগারেট খাওয়ার কারণে মারা গেছে।
আজ মানস আয়োজিত সেমিনারে ধোঁয়াবিহীন তামাক পণ্য, যেমন?জর্দা, সাদাপাতা, গুল ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞা, সিগারেটের মোড়কে সচিত্র স্বাস্থ্যবাণী দেওয়া, অপ্রাপ্ত বয়স্কদের কাছে সিগারেট বিক্রি বন্ধ করা, তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন লঙ্ঘনে জরিমানার পরিমাণ বাড়ানো ও তামাক চাষ নিরুত্সাহিত করা ও তামাকের ওপর কর বাড়ানোর দাবি জানানো হয়েছে।

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে