Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, সোমবার, ১৯ আগস্ট, ২০১৯ , ৪ ভাদ্র ১৪২৬

গড় রেটিং: 2.9/5 (22 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৮-২০-২০১২

‘সবার ঈদ আনন্দের হোক, সেটাই চাই’-শেখ হাসিনা

‘সবার ঈদ আনন্দের হোক, সেটাই চাই’-শেখ হাসিনা
ঢাকা, অগাস্ট ২০- দেশবাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, সবার ঈদ আনন্দের হোক- সেই চেষ্টাই তার সরকার করে যাচ্ছে। প্রতিবারের মতো এবারো গণভবনে সর্বস্তরের মানুষ ও বিশিষ্টজনদের সঙ্গে ঈদ উল ফিতরের শুভেচ্ছা বিনিময় করেন প্রধানমন্ত্রী।

পরে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, “এইবার ঈদে আমি এতোটুকু দাবি করতে পারি যে, সকলে উৎসাহের সাথে ঈদ উদযাপন করছে। আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি ভাল ছিল। সকলে অনেক রাত পর্যন্ত কেনাকাটা করেছে। আমরা জিনিসপত্রের দাম কমাতে সক্ষম হয়েছি। দাম বাড়েনি। সকল জিনিসপত্র সাধারণ মানুষের ক্রয়সীমার মধ্যে ছিল। আমরা জানতে পেরেছি, এবার প্রচুর ব্যবসা বাণিজ্য হয়েছে।”

এবার রোজায় বিদ্যুৎ, গ্যাস ও পানির সমস্যা হয়নি; রাস্তাঘাটের পরিস্থিতিও ভাল ছিল দাবি করে শেখ হাসিনা বলেন, “এগুলো যদি আমরা করতে না পারতাম, তাহলে তো কেউ ছেড়ে কথা বলত না।”

“আনন্দ উৎসবের মধ্যে যাতে সবাই ঈদ পালন করতে পারে সেটাই চাই”, বলেন তিনি।

অগাস্টকে শোকের মাস হিসাবে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “এ মাসে আমরা জাতির জনককে হারিয়েছি। জাতির পিতা না থাকলে দেশ স্বাধীন হতো কি না জানি না। ২১ অগাস্ট গ্রেনেড হামলা হয়েছিল। আইভী রহমানসহ অনেক নেতাকর্মীকে আমরা হারিয়েছি।”

শেখ হাসিনা বলেন, দেশের সব মানুষের ঘরে যাতে খাবার থাকে, সেজন্য এক কোটি মানুষকে ১০ কেজি করে চাল দেওয়া হয়েছে। ৫ কোটি মানুষ নিম্নবিত্ত থেকে মধ্যবিত্ত হয়েছে।

“আমি সকলের দোয়া ও সহযোগিতা চাই। জনগণ যে দায়িত্ব পালনের জন্য আমাদের ভোট দিয়েছিল, সেই দায়িত্ব যাতে ঠিকমতো পালন করে যেতে পারি, সেই চেষ্টাই করছি।”

শুভেচ্ছা বিনিময়

সোমবার সকাল সাড়ে ৯টায় প্রধানমন্ত্রী প্রথমে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের সঙ্গে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। দলের সাধারণ সম্পাদক ও স্থানীয় সরকার মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের নেতৃত্বে নেতাকর্মীরা দলীয় সভানেত্রীকে ঈদের শুভেচ্ছা জানাতে এসেছিলেন গণভবনে।

তারপর গণভবনের ব্যাঙ্কোয়েট হলে সর্বস্তরের জনগণের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, “সকলকে আমি জানাই ঈদ মোবারক।”

মেয়ে সায়মা হোসেন পুতুল, ছোট বোন শেখ রেহানা, পররাষ্ট্রমন্ত্রী দীপু মনি, মহিলা বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী শিরীন শারমিন চৌধুরী এবং নাতি-নাতনিরা এ সময় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ছিলেন।

বিভিন্ন শ্রেণী পেশার বিপুল সংখ্যক মানুষ প্রধানমন্ত্রীকে শুভেচ্ছা জানাতে আসায় নিরাপত্তারক্ষীদের হিমশিম খেতে হয়। প্রধানমন্ত্রী তাদের সঙ্গে কুশল বিনিময় করেন এবং তাদের বিভিন্ন সমস্যার কথা শোনেন।

পরে বেলা সাড়ে ১১টায় গণভবনের ভেতরে কূটনীতিক, বিচারপতি ও বিশিষ্টজনদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন প্রধানমন্ত্রী। অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম এবং তিন বাহিনীর প্রধানরাও এ সময় ছিলেন।

ঈদ উপলক্ষে গণভবনে অতিথিদের জন্য আপ্যায়নের ব্যবস্থা ছাড়াও শামিয়ানা টাঙিয়ে দুস্থদের মধ্যে খাবার বিতরণ করা হয়।

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে