Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই, ২০১৯ , ২ শ্রাবণ ১৪২৬

গড় রেটিং: 2.7/5 (6 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ১০-১৮-২০১১

আরও ৪২৮ কোটি টাকা পরিশোধের চিঠি

আরও ৪২৮ কোটি টাকা পরিশোধের চিঠি
বিটিআরসির দ্বিতীয় প্রজন্মের (টু-জি) লাইসেন্স নবায়নে তরঙ্গ বা স্পেকট্রাম ফি হিসেবে নতুন করে ৪২৭ কোটি ৯৮ লাখ টাকা দাবি করেছে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)। ২০০৮ সালে কেনা তরঙ্গের ওপর ?মার্কেট কম্পিটিশন ফ্যাক্টর? যোগ করে এ অর্থ চেয়েছে বিটিআরসি। আর অর্থ জমা দিতে হবে ১৫ দিনের মধ্যেই। গতকাল সোমবার বিকেলে চার অপারেটরকে এ চিঠি পাঠানো হয়েছে বলে প্রথম আলোকে জানিয়েছেন বিটিআরসি আইন ও লাইসেন্স বিভাগের মহাপরিচালক এ কে এম শহিদুজ্জামান। চার অপারেটর হচ্ছে: গ্রামীণফোন, বাংলালিংক, রবি ও সিটিসেল। চিঠি অনুযায়ী, গ্রামীণফোনকে এখন অতিরিক্ত ৩৮২ কোটি ৮৩ লাখ টাকাসহ মোট জমা দিতে হবে তিন হাজার ৬২৪ কোটি তিন লাখ টাকা। বাংলালিংককে অতিরিক্ত ৪৭ কোটি ১৫ লাখ টাকাসহ জমা দিতে হবে দুই হাজার ১৮ কোটি ৭৫ লাখ টাকা। তবে রবির ?মার্কেট কম্পিটিশন ফ্যাক্টর? ১-এর নিচে (০.৯৯) বলে তাদের কোনো অতিরিক্ত টাকা দিতে হবে না। ২০০৮ সালে কেনা অতিরিক্ত তরঙ্গ ফি অবশ্য ওই সময়ই অপারেটররা পরিশোধ করেছে বলে জানা গেছে। সে সময়ে বিটিআরসির এক লিখিত আদেশে বলা হয়েছিল, বাংলালিংক, গ্রামীণফোন ও রবির কেনা ওই তরঙ্গের মেয়াদ হবে ১৮ বছর। যেহেতু তারা বিটিআরসির নির্ধারিত অর্থ পরিশোধ করে তরঙ্গ কিনেছে, তাই ভবিষ্যতে কখনোই ওই তরঙ্গের ওপর কোনো ধরনের ফি বা চার্জ প্রযোজ্য হবে না। ২০০৯ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর আদেশটি সই করা হয়। গ্রামীণফোন অর্থ পরিশোধে বিটিআরসির এ নতুন দাবিতে বিস্ময় প্রকাশ করে এর সুস্পষ্ট ব্যাখ্যা চেয়েছে। গতকাল রাতে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে গ্রামীণফোন এ কথা বলেছে। বিটিআরসির গতকালের চিঠিতে বলা হয়েছে, সোমবার (চিঠি দেওয়ার দিন) থেকে ১৫ দিনের মধ্যে অপারেটরদের লাইসেন্স নবায়নের জন্য ফির ৪৯ শতাংশ জমা দিতে হবে। অপারেটরের তরঙ্গ ফি হিসাবে কখন, কত টাকা পরিশোধ করতে হবে, তা উল্লেখ করা হয়েছে। এ ছাড়া লাইসেন্স নবায়নের আবেদনে যেসব কাগজপত্রের ঘাটতি রয়েছে, তা ১০ দিনের মধ্যে বিটিআরসিতে পাঠানোর নির্দেশও দেওয়া হয়েছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিটিআরসির শীর্ষ একজন কর্মকর্তা জানান, সব অপারেটরকে তাদের বকেয়া বা দেনা পরিশোধ করতে বললেও গ্রামীণফোনের অডিট আপত্তির তিন হাজার ৩৪ কোটি টাকা লাইসেন্স নবায়নের সঙ্গে এখনই মেলাবে না বিটিআরসি। তাই এ বিষয়টি চিঠিতে উল্লেখ করা হয়নি। ৯ বা ১০ নভেম্বর আনুষ্ঠানিকভাবে বিটিআরসির পক্ষ থেকে অপারেটরদের লাইসেন্স দেওয়া হবে। গত ১১ সেপ্টেম্বর লাইসেন্স নবায়নের চূড়ান্ত নীতিমালা প্রকাশ করে বিটিআরসি। নীতিমালায় লাইসেন্স নবায়নের জন্য আবেদন ফি এক লাখ টাকা, নবায়ন ফি ১০ কোটি টাকা ও বার্ষিক ফি পাঁচ কোটি টাকা নির্ধারিত রয়েছে। আর মোট টাকার ৪৯ শতাংশ আবেদনের ১৫ দিনের মধ্যে, ১৭ শতাংশ ১৮০ দিনের মধ্যে, আরও ১৭ শতাংশ ৩৬০ দিনের মধ্যে এবং শেষ কিস্তি হিসেবে বাকি ১৭ শতাংশ ৫৪০ দিনের মধ্যে পরিশোধ করতে হবে। গ্রামীণফোনের বক্তব্য: গ্রামীণফোন বলেছে, নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসির চিঠি পেয়ে তারা বিস্মিত ও মর্মাহত। গতকাল সন্ধ্যায় পাঠানো এ চিঠিতে ?মার্কেট কম্পিটিটিভ ফ্যাক্টর? যোগ করে অতিরিক্ত ৩৮৪ কোটি টাকা দিতে বলা হয়েছে। এ অর্থ লাইসেন্স নবায়ন করতে প্রদেয় তিন হাজার ২৪০ কোটি টাকার অতিরিক্ত। গ্রামীণফোন জানায়, ২০০৮ সালে প্রতি মেগাহার্টজ ৮০ কোটি করে মোট ৭ দশমিক ৪ মেগাহার্টস তরঙ্গ (১৮০০ ব্যান্ড) কেনে। বিটিআরসির সঙ্গে গ্রামীণফোনের সঙ্গে লিখিত চুক্তি হয়, ১৮ বছরের জন্য এ তরঙ্গ কেনার পর ভবিষ্যতে নতুন করে লাইসেন্স নবায়নে কোনো ফি নেওয়া হবে না। সবশেষে গ্রামীণফোন জানায়, ১০ দিনের মধ্যে কোনো ধরনের বিয়োজন ছাড়াই অর্থ পরিশোধ করতে বলা হয়েছে। যদিও মূল্য সংযোজন কর (ভ্যাট) বিয়োজনের বিষয়ে এখনো জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) ব্যাখ্যা পাওয়া যায়নি।

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে