Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, সোমবার, ১৯ আগস্ট, ২০১৯ , ৪ ভাদ্র ১৪২৬

গড় রেটিং: 5.0/5 (1 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৮-০৬-২০১২

৩০ বছরে নির্মাণ ব্যয় তুলবে ১০ বছর নেবে মুনাফা

৩০ বছরে নির্মাণ ব্যয় তুলবে ১০ বছর নেবে মুনাফা
মালয়েশিয়া আগামী ৩ সপ্তাহের মধ্যে পদ্মা সেতুর চূড়ান্ত নির্মাণ প্রস্তাব দেবে। গতকাল সচিবালয়ে মালয়েশিয়া সরকারের সাবেক মন্ত্রী ও বিশেষ দূত স্যামি ভেলু যোগাযোগ মন্ত্রী ও অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করে সংশোধিত আর্থিক প্রস্তাব দেন   
। এ সময় মালয়েশিয়া সরকারের বিশেষ দূতকে তিন মাসের মধ্যে চূড়ান্ত নির্মাণ প্রস্তাব দিতে বলা হয়।
যোগাযোগমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের পরে সাংবাদিকদের বলেন, সরকার এখনও সিদ্ধান্ত নেয়নি কোন সংস্থার অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণ করা হবে। মালয়েশিয়ার অর্থায়ন, বিকল্প অর্থায়ন, নিজস্ব অর্থায়নে- এ প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হতে পারে। বিদেশী অর্থায়ন ও স্থানীয় বিনিয়োগে প্রকল্প বাস্তবায়নের সম্ভাবনার কথাও বলেন তিনি। যোগাযোগমন্ত্রী বলেন, মালয়েশিয়ার চূড়ান্ত প্রস্তাব মন্ত্রিসভার বৈঠকে উপস্থাপন করা হবে। মন্ত্রিসভাই সিদ্ধান্ত নেবে।
স্যামি ভেলুর নেতৃত্বাধীন মালয়েশিয়ার প্রতিনিধি দল অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের সঙ্গেও বৈঠক করেন। অর্থমন্ত্রী মালয়েশিয়ার প্রস্তাব নিয়ে মুখ খোলেননি অর্থমন্ত্রী। শুধু বলেন, তাদের প্রস্তাব ভাল করে বুঝতে হবে।
মালয়েশিয়ার প্রতিনিধি দলের সঙ্গে ইতিবাচক কথা হলেও পদ্মা সেতু নির্মাণে অর্থায়ন প্রশ্নে সরকার দ্বিধায় রয়েছে। এখন পর্যন্ত তাদের প্রথম অগ্রাধিকার বিশ্বব্যাংক, বিশেষ করে অর্থমন্ত্রী বিশ্বব্যাংকের সঙ্গে নতুন করে ঋণচুক্তি করতে অধিকতর আগ্রহী। বিশ্বব্যাংকের কাছ থেকে দ্রুত সিদ্ধান্ত পাওয়ার অপেক্ষায় রয়েছে অর্থমন্ত্রণালয়। এ ব্যাপারে তাদেরকে প্রভাবিত করা ও ঢাকা অফিসের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রাখা হচ্ছে। বিশ্বব্যাংক আগামী সেপ্টেম্বর-অক্টোবরের মধ্যেও ইতিবাচক সাড়া দিলে সরকার বিকল্প পথে যাবে না। তবে তারা দীর্ঘায়িত করলে মালয়েশিয়ার ব্যাপারেই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। নির্বাচন সামনে রেখে সরকার দীর্ঘ সময়ক্ষেপণের ঝুঁকিতে থাকতে চাইছে না। বিশ্বব্যাংকের অর্থায়ন ঝুঁকিমুক্ত নয়। তাদের শর্তের বেড়াজাল ভবিষ্যতে প্রসারিত হওয়ার সম্ভাবনাই বেশি। তারপরও চলমান প্রকল্পগুলো যাতে ক্ষতিগ্রস্ত না হয় সেদিক এবং সামগ্রিক অবস্থা বিবেচনায় অর্থ মন্ত্রণালয় বিশ্বব্যাংকেই সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দিচ্ছে। বিশ্বব্যাংক বাড়তি সময় নিলেও সরকারের শেষ সময়ে হলে পদ্মার দু’ প্রাপ্ত থেকে পিলার নির্মাণ কাজ শুরু করে সরকার জনমন প্রভাবিত করতে চাইছে। অন্তত বিরূপ প্রভাব যাতে না হয় সে বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে দেখছে। মালয়েশিয়ার সঙ্গে আলোচনা এই প্রেক্ষাপটেই চালানো হচ্ছে মর্মে বিশ্বব্যাংককে আশ্বস্ত রাখা হচ্ছে।
অপরদিকে মালয়েশিয়ার আর্থিক প্রস্তাবে এখনও সন্তুষ্ট নয় সরকার। আগেকার প্রস্তাবে তারা ৩০ বছরে নির্মাণ ব্যয় তুলে নেয়ার পর ১৫ বছরে টোল বাবদ প্রায় ১০ হাজার কোটি টাকা মুনাফা তুলে নেয়ার কথা বলেছে। এখন তারা ১০ বছর মুনাফা নেয়ার প্রস্তাব নিয়েছে। নির্মিত হওয়ার ৩০ বছর সেতুর মালিকানা, পরিচালনা ও রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্বে থাকবে মালয়েশিয়া। এর পরবর্তী দশ বছর তারা মালিকানা, পরিচালনায় থেকে মুনাফা নেবে। অর্থ ও সেতু বিভাগ তাদের এই সর্বশেষ প্রস্তাব পুঙ্খানুপুঙ্খ খতিয়ে দেখছে টেকনিক্যাল কমিটি।

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে