Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, বৃহস্পতিবার, ২৩ জানুয়ারি, ২০২০ , ১০ মাঘ ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.2/5 (14 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৭-৩১-২০১২

চার্জ গঠন- খোকা, আমান ও আলমের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা

চার্জ গঠন- খোকা, আমান ও আলমের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা
ঢাকা, ৩১ জুলাই- বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ বিরোধী জোটের শীর্ষ পর্যায়ের ৪৬ নেতা এখন অভিযুক্ত। প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের সামনে গাড়ি পোড়ানোর মামলায় তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেছে আদালত। এর মাধ্যমে তাদের বিচার শুরু হলো। আসামি পক্ষের তুমুল হইচই ও বাকবিতণ্ডার মধ্যে ঢাকার মহানগর দ্রুত বিচার হাকিম মো. হারুন-অর-রশিদ গতকাল অভিযোগ গঠনের এ আদেশ দেন। মামলায় সাক্ষ্য গ্রহণের জন্য ৭ই আগস্ট তারিখ ধার্য রাখা হয়েছে। অভিযোগ গঠনের শুনানির সময়ে আদালতে হাজির না থাকায় বিএনপি নেতা সাদেক হোসেন খোকা, আমানউল্লাহ আমান ও নাজিমউদ্দিন আলমের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারিরও আদেশ দেয়া হয়েছে। এ তিনজনের পক্ষে তাদের আইনজীবীদের করা সময়ের আবেদন বিচারক নাকচ করে দেন। আদালতের আদেশকে নজিরবিহীন অভিহিত করেছেন বিরোধী জোটের নেতাদের আইনজীবীরা। আইনজীবী সানাউল্লাহ মিঞা ও মাসুদ আহমেদ তালুকদার বলেছেন, কোন ধরনের আইন অনুসরণ না করে একতরফাভাবে অভিযোগ গঠন করা হয়েছে। এ ধরনের ঘটনা আদালতে অতীতে কোন দিন ঘটেনি। অন্যদিকে, সরকার পক্ষের আইনজীবী আবদুল্লাহ আবু বলেন, আইন অনুযায়ী অভিযোগ গঠন করা হয়েছে। কারণ, দ্রুত বিচার আইনে মামলা নিষ্পত্তিতে সময় নির্ধারণ করে দেয়া আছে। বিএনপির নিখোঁজ সাংগঠনিক সম্পাদক এম ইলিয়াস আলীর সন্ধানের দাবিতে হরতালের সময় গত ২৯শে এপ্রিল প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সামনে গাড়ি পোড়ানোর অভিযোগে বিরোধী জোটের ৪৪  নেতা-কর্মীকে আসামি করে একটি মামলা করে পুলিশ। এরপর গত ১০ই মে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ ৪৫ জনের বিরুদ্ধে মামলাটিতে আদালতে চার্জশিট দাখিল করে পুলিশ। এরপর ২৭শে মে ছাত্রশিবির সাধারণ সম্পাদক আবদুল জব্বারকে আসামি করে সম্পূরক চার্জশিট দেয়া হয়। এ মামলার শুনানিতে গতকাল সকালে ৩৬ নেতা আদালতে হাজির হন। তাদের আইনজীবী খন্দকার মাহবুব  হোসেন আবেদনে বলেন, গেজেট নোটিফিকেশন না করেই এ আদালত গঠিত হওয়ায় এ আদালত মামলা শোনার উপযুক্ত নয়। এ বিষয়ে হাইকোর্টে রিট আবেদন দায়ের করা হয়েছে। রিটের নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত অভিযোগ গঠন মুলতবি রাখার আবেদন জানান তিনি। মহানগর দ্রুত বিচার হাকিম মোহাম্মদ এরফান উল্লাহ আবেদনটি শুনে তা খারিজ করে দিলে নতুন করে সময়ের আবেদন করেন খন্দকার মাহবুব। এবার তিনি বলেন, দ্রুত বিচার হাকিম তাদের আবেদন নাকচ করে  যে আদেশ দিয়েছেন, তার বিরুদ্ধে হাইকোর্র্টে যাবেন তারা। এ কারণে অভিযোগ গঠন মুলতবি রাখা প্রয়োজন। এ পর্যায়ে হাকিম মোহাম্মদ এরফান উল্লাহ নিজে এ সময়ের আবেদনটি না শুনে তা মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে পাঠিয়ে দেন। সেখান  থেকে শুনানির জন্য আবেদনটি ওঠে মহানগর দ্রুত বিচার হাকিম মো. হারুন-অর-রশিদের আদালতে। তিনিই আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে সাক্ষ্য গ্রহণের তারিখ ঠিক করে দেন। দ্রুত বিচার আইনে দায়ের করা মামলায় চার্জশিট গ্রহণের পর ৬০ কার্যদিবসের মধ্যে মামলা নিষ্পত্তির বিধান রয়েছে। এ মামলায় গত ১৬ই চার্জশিট গ্রহণ করেছিল আদালত। গতকাল একবেলা শুনানিতে অভিযোগ গঠন করা হলো। একতরফাভাবে অভিযোগ গঠন করা হয়েছে- এমন অভিযোগ তুলে আদালত প্রাঙ্গণে মিছিল করেন আসামি পক্ষের আইনজীবীরা। এ সময় আদালতের ফটকে পুলিশের সঙ্গে তাদের কথাকাটাকাটিও হয়।
বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ মামলার উল্লেখযোগ্য আসামিরা হলেন- এলডিপি চেয়ারম্যান কর্নেল (অব.) অলি আহমেদ বীরবিক্রম, বিজেপির চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার আন্দালিব রহমান পার্থ এমপি, বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, এমকে আনোয়ার, বিগ্রেডিয়ার (অব.) হান্নান শাহ, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ভাইস চেয়ারম্যান ও সাবেক মেয়র সাদেক হোসেন খোকা, জাগপা সভাপতি শফিউল আলম প্রধান, এনপিপি চেয়ারম্যান শেখ শওকত হোসেন নিলু, বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব আমানউল্লাহ আমান, রিজভী আহমেদ, বিএনপি নেতা কামরুজ্জামান রতন, সাংগঠনিক সম্পাদক একেএম ফজলুল হক মিলন, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক নাজিম উদ্দিন আলম, স্বনির্ভর সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু, ছাত্রবিষয়ক সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী এমপি, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি হাবিবুন-উন-নবী খান সোহেল, সাধারণ সম্পাদক মীর সরাফত আলী সপু, ছাত্রদলের সভাপতি সুলতান সালাউদ্দিন টুকু, সাধারণ সম্পাদক আমীরুল ইসলাম খান আলীম, সাংগঠনিক সম্পাদক আনিসুর রহমান খোকন, যুবদলের সাধারণ সম্পাদক সাইফুল আলম নীরব,  ঢাকা মহানগর উত্তর যুবদলের সভাপতি এসএম জাহাঙ্গীর হোসেন, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবদলের সম্পাদক রফিকুল ইসলাম মজনু, ঢাকা মহানগর উত্তর স্বেচ্ছাসেবক দল আহ্বায়ক ইয়াসিন আলী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের আহ্বায়ক আবদুল মতিন, যুগ্ম-সম্পাদক ওবায়দুল হক নাসির, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ ছাত্রদল সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রশীদ হাবিব, ঢাকা মহানগর উত্তর ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক কামাল আনোয়ার আহমেদ, বিএনপি নেতা ও ৩৮ নম্বর ওয়ার্ডের সাবেক কমিশনার আবুল বাসার, বিএনপি নেতা ও ৪০ নং ওয়ার্ড কমিশনার আনোয়ারুজ্জামান আনোয়ার, লক্ষীপুর জেলার রামগঞ্জ উপজেলা বিএনপি নেতা লুৎফর রহমান ওরফে এল রহমান, বিএনপির সাবেক ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক নবী সোলায়মান, খিলগাঁও থানা বিএনপির সভাপতি সাবেক কমিশনার ইউনুস মৃধা, তিতুমীর কলেজ ছাত্রদলের সভাপতি ইসমাইল খান শাহীন, স্বেচ্ছাসেবক দল মোহাম্মদপুর থানা শাখার সভাপতি মান্নান হোসেন শাহীন প্রমুখ। জামায়াতের ভারপ্রাপ্ত আমীর মকবুল হোসেন, ঢাকা মহানগর জামায়াতের সেক্রেটারি নুরুল ইসলাম বুলবুল, ছাত্রশিবিরের সভাপতি দেলোয়ার হোসেন সাঈদী ও সেক্রেটারি আবদুল জব্বার ওরফে জসিম মামলার শুরু থেকেই পলাতক।

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে