Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, সোমবার, ২০ মে, ২০১৯ , ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬

গড় রেটিং: 2.2/5 (11 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৪-২৮-২০১৬

কমিশনের একটি সিদ্ধান্ত নিয়ে সতর্ক তৃণমূল। সর্বত্র ত্রাহি ত্রাহি রব

কমিশনের একটি সিদ্ধান্ত নিয়ে সতর্ক তৃণমূল। সর্বত্র ত্রাহি ত্রাহি রব

কলকাতা, ২৮ এপ্রিল- পুলিশ শাসকদলের অঙ্গুলিহেলনে চলছে না। তার উপরে কমিশনের এই নতুন সিদ্ধান্ত। আর তাতেই চিন্তার ভাঁজ শাসকদলের কপালে। আজ সকাল থেকে কেন্দ্রে কেন্দ্রে বসল জরুরি বৈঠক।

শুধু ভোট কেন্দ্রের আশপাশে নয়, গোটা জেলাতেই ১৪৪ ধারা জারি! এই প্রশ্নে সতর্ক তৃণমূল। শুধু ভোটের দিনই নয়, আগের দিন থেকেই সংশ্লিষ্ট জেলায় কেন্দ্রীয় বাহিনীর নাকা তল্লাশি। সত্যিই এমনটা আগে হয়নি। এমন প্রশাসনিক তৎপরতা আগে দেখেনি বাংলা।

হাওড়া ও উত্তর ২৪ পরগনার ভোটে কমিশনের এই নির্দেশ শুধু কেন্দ্রীয় বাহিনী নয়, মানতে বাধ্য হয়েছে রাজ্য পুলিশও। কমিশনের কোপে পড়ার ভয়ে কিছুদিন আগেও যে পুলিশ অফিসার শাসককে সমীহ করতেন তিনিও এখন ‘নিরপেক্ষ’। স্বাভাবিকভাবেই ‘অখুশি’ শাসকদল।

আগামী দু’দফার ভোটেও কি একই ভাবে ১৪৪ ধারা জারি থাকবে! আশঙ্কা থেকেই সতর্ক তৃণমূল। বুধবার নির্বাচন কমিশনকে এ নিয়ে চিঠিও দিয়েছেন দলের সহ সভাপতি মুকুল রায়। তৃণমূলের বক্তব্য, সাধারণত ভোটকেন্দ্র থেকে ৬০০ মিটার দূরত্ব পর্যন্ত ১৪৪ ধারা জারি থাকে। তবে উপদ্রুত এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি হয় সর্বত্র। কিন্তু এটা কী হচ্ছে?

শুধু মুকুল রায় নন, দল-প্রধান মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও তোপ দেগেছেন নির্বাচন কমিশনের বিরুদ্ধে। বুধবারই এক জনসভায় তিনি বলেছেন, ‘‘দিল্লি যেভাবে যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামোয় হস্তক্ষেপ করছে এবং বাইরের পুলিশ পাঠিয়ে ভোটারদের চমকানো, ধমকানো হচ্ছে, তা আমি আগে দেখিনি।’’

পুলিশের এমন বদলও আগে দেখেনি তৃণমূল কংগ্রেস। আগে ভাবেওনি। তাই দল ক্ষোভ বিক্ষোভ চালানোর মধ্যেই সতর্ক। হুগলি, দক্ষিণ ২৪ পরগনা ও কলকাতার একটি অংশে ভোটগ্রহণ শনিবার। আজই শেষ হচ্ছে প্রচার পর্ব। তার আগেই জরুরি বৈঠকে কর্মীদের সতর্ক করা হয়েছে। ১৪৪ ধারা নিয়ে ভীত তৃণমূলের স্পষ্ট বার্তা—‘কেউ অন্যায় করলে, বিধি ভাঙলে এবং তার জন্য প্রশাসন ব্যবস্থা নিলে দল দায়িত্ব নেবে না।’ কেন্দ্রে কেন্দ্রে বুথ-কর্মী থেকে এজেন্ট সকলকে এ ব্যাপারে সমঝে দেওয়া হয়েছে। বলা হয়েছে, এই দু’টো দিন সাবধানে থাকতে হবে। অহেতুক জটলা করা যাবে না।

শুধু দল বা নেতাদের সতর্কতার জন্যই নয়, গত দফার ভোট দেখে কর্মীদের মধ্যেও চিন্তা বেড়েছে। অনেকেই গা বাঁচিয়ে থাকার কথা ভাবছে। সেটাও আগামী দু‍’দফা ভোটের জন্য রীতিমতো চিন্তার বিষয় তৃণমূল কংগ্রেসের কাছে।

আর/১৭:২৪/২৮ এপ্রিল

পশ্চিমবঙ্গ

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে