Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, মঙ্গলবার, ১২ নভেম্বর, ২০১৯ , ২৮ কার্তিক ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.3/5 (6 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৪-০৮-২০১৬

আসন্ন নিউইয়র্ক ভোট নিয়ে হিলারি-স্যানডার্স উত্তেজনা

আসন্ন নিউইয়র্ক ভোট নিয়ে হিলারি-স্যানডার্স উত্তেজনা

ওয়াশিংটন, ০৮ এপ্রিল- মার্কিন নির্বাচন নিয়ে প্রার্থীদের প্রতিদ্বন্দ্বিতা যত বাড়ছে তত বাড়ছে উত্তেজনা। ডেমোক্র্যাটিক দলের প্রেসিডেন্ট মনোনয়ন প্রত্যাশী হিলারি ক্লিনটন ও বার্নি স্যানডার্সের মধেও শুরু হয়েছে শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বিতা। হিলারির প্রেসিডেন্ট হওয়ার যোগ্যতা নেই বলে বার্নি স্যানডার্সের এই উক্তি ক্লিনটন হেসে উড়িয়ে দিলেও আসন্ন নিউইয়র্ক নির্বাচন নিয়ে দানা বাধছে চরম উত্তেজনা। 

কিন্তু ভারমন্ট অঙ্গরাজ্যের সিনেটর স্যানডার্স তার মন্তব্য থেকে সরে যাননি। প্রমাণ হিসেবে তিনি হাজির করেছেন ওয়াল স্ট্রিটের সাথে হিলারির দহরম-মহরম সম্পর্ক এবং ইরাক যুদ্ধের পক্ষে অবস্থান নেয়াকে। তার বিরুদ্ধে আগে বাকযুদ্ধ শুরু করার জন্যও তিনি হিলারিকে দায়ী করেন।

এই দুই ডেমোক্র্যাট প্রতিদ্বন্দ্বী দুই সপ্তাহ পরেই নিউইয়র্কে ভোট যুদ্ধে নামবেন। সেখানে তাদের দুজনের অবস্থানই শক্ত। তবে নিজেকে সমাজতান্ত্রিক দাবি করা স্যানডার্সের জন্য নিউইয়র্ক একটু বেশি গুরুত্বপূর্ণ। মঙ্গলবার উইসকন্সিনে জয় পেয়েছেন তিনি। নেভাডা অঙ্গরাজ্যে তার পরাজয় ঘোষণা করার পরেও শেষ পর্যন্ত ডেলিগেটদের কারণে জিতে যান তিনি।

নির্বাচনের প্রথম দিকে হিলারির প্রতিপক্ষ হিসেবে স্যানডার্সকে কেউই পাত্তা দেয়নি। গণমাধ্যমগুলো তার বিরোধিতা করেছে এবং এখনো করছে কৌশলে। হিলারির নামের শেষে ক্লিনটন নাম যুক্ত থাকায় তিনি সুবিধা পাচ্ছেন অনেক। কিন্তু সেটা ২০০৮ সালেও পেয়েছিলেন, অথচ বারাক ওবামার কাছে তার পরাজয় হয়েছিল ঠিকই।

স্যানডার্সকে গণমাধ্যম এবং ওয়াশিংটনের প্রতিষ্ঠিত পুঁজিপতিরা সমর্থন না দিলেও তার বিস্ময়কর জয়ের কারণ হচ্ছে সাধারণ মানুষ। নীতি নির্ধারণী জায়গা থেকে হিলারির চেয়ে সুস্পষ্ট অবস্থানে রয়েছেন তিনি। মানুষ এখন তথাকথিত রাজনীতিবিদদের প্রতি বিতৃষ্ণ হয়ে গেছেন। হিলারির অভিজ্ঞতা স্যানডার্সের চেয়ে বেশি হলেও তার সিদ্ধান্তে যে ভুল হয়েছিল সেজন্য মাশুল দিতে হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রকে। মধ্যবিত্ত মানুষ পুঁজিপতিদের সাথে হিলারির যোগাযোগকেও ভালো চোখে দেখছে না, বিশেষ করে ওয়াল স্ট্রিট।

অঙ্গরাজ্যগুলোর ভোটে এখন পর্যন্ত হিলারি এগিয়ে থাকলেও কিছু নৈতিক কারণে পিছিয়ে পড়ছেন তিনি। এদিক থেকে স্যানডার্সের দৃঢ় রাজনৈতিক ইতিহাস এবং নৈতিকতা তাকে দ্রুত জনপ্রিয় করে তুলছে মার্কিনীদের কাছে, বিশেষ করে তরুণ ও মধ্যবিত্ত সমাজের মানুষের কাছে।

এফ/১৫:৮/০৮এপ্রিল

উত্তর আমেরিকা

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে