Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, সোমবার, ২২ জুলাই, ২০১৯ , ৬ শ্রাবণ ১৪২৬

গড় রেটিং: 2.8/5 (12 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০২-০৯-২০১৬

বয়স লুকিয়ে শিশুরাও ফেসবুকে

বয়স লুকিয়ে শিশুরাও ফেসবুকে

ওয়াশিংটন, ০৯ ফেব্রুয়ারী- সম্প্রতি বিবিসির এক গবেষণায় জানা গেছে, ১৩ বছরের নিচের শিশুরা যেকোনো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নিজেদের বয়স লুকিয়ে রেখে এসব মাধ্যম ব্যবহার করে। ব্রিটিশ শিশুদের (যাদের বয়স ১০ থেকে ১২ এর মধ্যে) এক তৃতীয়াংশ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলো ব্যবহার করছে। যার ফলে সামাজিক যোগাযোগের অবক্ষয় এবং অপব্যবহার বাড়ছে। আজ নিরাপদ ইন্টারনেট দিবস উপলক্ষে এক সমীক্ষায় দেখা গেছে, ১৩ বছরের নিচের শিশুরাও ইনস্ট্রগ্রামের মাধ্যমে ফেসবুক ব্যবহার করছে। 

বিবিসি এই গবেষণাটি পরিচালনার জন্য ১ হাজার শিশু-কিশোর বেছে নেয়া হয়। যাদের বয়স ১০ থেকে ১৮ এর মধ্যে। এদের পাঁচজনের মধ্যে একজন বলেছে, তারা অনলাইনে নিপীড়নের শিকার হচ্ছে কিন্তু সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলো তাদের জীবনের অংশ হয়ে গেছে। 

১৬ থেকে ১৮ বছরের এক তৃতীয়াংশ জনগোষ্ঠী সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে (যেমন ফেসবুক, স্ন্যাপচ্যাট, ইনস্ট্রাগ্রাম এবং টুইটার) অন্য ব্যবহারকারীকে উদ্দেশ্য করে নির্দয় এবং অভদ্র পোস্ট করতে ব্যবহার করছে। ফেসবুক, টুইটার, ইনস্ট্রাগ্রাম, স্ন্যাপচ্যাটসহ অন্যান্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলো ব্যবহার করার ন্যুনতম বয়স ১৩। যেখানে হোয়াটস অ্যাপ ব্যবহারের ন্যুনতম বয়স ১৬। কিন্তু শিশুরা নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করে বয়স লুকিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলো ব্যবহার করছে। 

গবেষণায় দেখা যায়, বেশিরভাগ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শিশুরা তাদের আসল জন্ম সাল পরিবর্তন করে প্রবেশ করে এবং পরবর্তীতে নিজেদের জন্ম সাল পরিবর্তন করে নেয়। ফেসবুক ১৩ বছরের নিচে ব্যবহারকারীর অ্যাকাউন্ট নিষ্ক্রিয় করে দেয় এবং ইনস্ট্রাগ্রামে ন্যুনতম বয়সের নিচের অ্যাকাউন্টগুলোকে রিপোর্ট করতে উৎসাহিত করে। 

ভিন্ন একটি প্রতিবেদনে জানা যায়, নিরাপদ ইন্টারনেট দিবস ‍উপলক্ষে করা গবেষণায় দেখা যায় কিশোর কিশোরিরা অনলাইন অপব্যবহারের শিকার হয় তাদের লিঙ্গ, যৌন প্রবৃত্তি, জাতি, ধর্ম, অক্ষমতা ও হিজড়া পরিচয়ের জন্য। 

যুক্তরাজ্যের শিক্ষা সচিব নিকি মর্গান জানান, তার বিভাগ ইন্টারনেট নিরাপত্তার ব্যাপারে কাজ করে যাচ্ছে এবং শিশুর বাবা-মাকেও এ ক্ষেত্রে ভূমিকা রাখতে বলেন। তিনি বলেন, ‘আমরা ইন্টারনেটকে শিশুদের জন্য নিরাপদ করার চেষ্টা করছি কিন্তু আমরা এককভাবে এটি করতে পারবো না। সন্তানের পিতা মাতাকেও শিশুকে ইন্টারনেট ব্যবহারের ক্ষেত্রে শিক্ষা দিতে হবে।’ 

শিশুদের ব্যাপারে সতর্ক থাকলেই ইন্টারনেট হবে শিশুদের জন্যও নিরাপদ।

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে