Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, সোমবার, ২০ জানুয়ারি, ২০২০ , ৬ মাঘ ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.3/5 (43 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৫-১৮-২০১২

অন্য থিয়েটারের রবীন্দ্র জয়ন্তী

মনির বাবু


অন্য থিয়েটারের রবীন্দ্র জয়ন্তী
টরন্টো, ১৭ মে- যদিও টরন্টোতে অন্যথিয়েটার অপেক্ষাকৃত একটি নতুন সাংস্কৃতিক  ও নাট্য সংগঠন, তবে এর-ই মধ্যে এর সুস্থ সাংস্কৃতিক কর্মকান্ড এবং নাট্যচর্চা বৃহত্তর টরন্টো’র বাংলা-ভাষীদের মধ্যে একটি আস্থার স্থান দখল করেছে। গত কয়েক বছর যাবত বাংলাদেশের বিভিন্ন জাতীয় ও বিশেষ দিবসগুলো এ সংগঠনের উদ্যোগে গুনগতমান বজায় রেখে নিয়মিতভাবে অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে। এর-ই ধারাবাহিকতায় গত ১২ মে ২০১২, শনিবার কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ১৫১তম জন্ম-জয়ন্তি উপলক্ষে টরন্টো’র অদূরে এজাক্সে শহরে আয়োজন করা হয় “এত যদি দিলে সখা” শীর্ষক রবীন্দ্রনাথের গান, কবিতা পাঠ ও আলোচনা অনুষ্ঠানের এক অনন্য আসর। এতে টরন্টো ও এর আশেপাশের শহর থেকে রবীন্দ্রানুরাগী দর্শক, কন্ঠশিল্পী, আবৃত্তিশিল্পী ও রবীন্দ্রবিশেষজ্ঞরা কন্ঠশিল্পী ফারহানা শান্তা এবং আলোকচিত্র শিল্পী মনির বাবু’র বাসভবনে উৎসব আমেজে জড়ো হয়।
অনুষ্ঠানের শুরুতেই অন্যথিয়েটারের প্রধান, টরন্টো’র সুপরিচিত অনুষ্ঠান সঞ্চালক, আবৃত্তিশিল্পী ও নাট্যপরিচালক আহমেদ হোসেনের স্বাগত বক্তব্যের পর রবীন্দ্রসঙ্গীত শিল্পী জিবীনা সঞ্চিতা হক, চিত্রা সরকার, নাহিদ কবীর কাকলী, ফারহানা শান্তা, বাবলু হক ও পারভীন হোসেন এর সমবেত কন্ঠে ‘হে নতূন দেখা দিক আরবার’, ‘আকাশ ভরা সূর্য তারা’ এবং ‘ঐ মহামানব আসে’ গানগুলো পরিবেশিত হয়। তারপর বিরামহীনভাবে চলতে থাকে রবীন্দ্রসংগীত শিল্পীদের একক পরিবেশনা, আবৃত্তিশিল্পীদের রবীন্দ্রনাথের কবিতা আবৃত্তি ও টরন্টোর গুণীজনদের রবীন্দ্র বিষয়ক আলোচনা। আলোচকদের মধ্যে ছিলেন বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ও কলামিস্ট ডঃ মোজাম্মেল খান, রবীন্দ্রগবেষক জনাব সাদ কামালী, সংগীতবিশেষজ্ঞ জনাব হাসান মাহমুদ, রবীন্দ্রবিশেষজ্ঞ সাদী আহমেদ ও লেখক তাসরীনা শিখা।  কন্ঠশিল্পীদের মধ্যে নাহিদ কবীর কাকলী ‘সুরের গুরু দাও গো সুরের দীক্ষা`, `মাটির বুকের মাঝে বন্দি যে জল লুকিয়ে থাকে"’ ও “ফাগুন হাওয়ায় হাওয়ায় করেছি’; চিত্রা সরকার ‘ওহে সুন্দর’ ‘জানি নাই গো সাধন’, ‘হে মোর দেবতা’; জিবীনা সঞ্চিতা হক ‘প্রেমের ও মিলন দিনে’, পুরানো জানিয়া চেয়ো না; ফারহানা শান্তা ‘অনেক দিয়েছ নাথ’, নয় নয় এ মধুর খেলা’, ‘তোমার কাছে এ বর মাগি’; বাবলু হক ‘ওঠ ওঠরে বিফলে প্রভাত বহে যায়’ ও ‘আমার প্রানের মানুষ আছে প্রানে’; পারভীন হোসেন ‘চাঁদের হাসির বাধ ভেঙ্গেছে’, ‘ঐ আসন তলে’;সারাহ বিল্লাহ ‘মোরে বারে বারে ফিরালে’, ‘ভালোবাসি ভালোবাসি’; ফারহানা রাসেদ মিতা ‘আজি বিজন ঘরে’; শিখা রউফ ‘দাঁড়িয়ে আছো তুমি আমার’; জুলফিয়া ইন্টু ‘তোরা যে যা বলিস ভাই’, ‘স্ব্পন পাড়ের ডাক শুনেছি’;  নুরুল আলম লাল ‘আজ জোৎস্না রাতে’; আসিফ চৌধুরী ‘মনা কি করলিরে ভবে আসিয়া’ গানগুলো পরিবেশন করে দর্শকদের সম্মোহিত করে রাখেন। গান পরিবেশনার মাঝে মাঝে ছিল টরন্টো’র জনপ্রিয় আবৃত্তিশিল্পীদের সুললিত কন্ঠে রবীন্দ্রনাথের কবিতা আবৃত্তি। আবৃত্তিশিল্পীদের মধ্যে দিলারা নাহার বাবু রবীন্দ্রনাথের ‘ঝুলন’ কবিতা, দিলরুবা আলম রবীন্দ্রনাথের ‘পৃথিবী’ কবিতা, আহমেদ হোসেন রবীন্দ্রনাথের ‘পরিচয়’ কবিতা, রাশেদা মুনীর রবীন্দ্রনাথের ‘নির্ঝরের স্বপ্ন ভংগ’ কবিতা, মেহরাব রহমানের আবৃত্তি দর্শক-শ্রোতারা খুব-ই উপভোগ করেন। শিল্পীদের গানের সংগে তবলা বাজিয়ে সহযোগিতা করেন রনি পালমার।
যদিও অনুষ্ঠানটি রাত ১০ টায় সমাপ্তি ঘোষনা করার কথা ছিল কিন্তু দর্শকশ্রোতাদের অনুরোধে রাতের খাবারের পর শিল্পীরা আরো বেশ কয়েকটি অনুরোধের গান পরিবেশন  করেন। এর-ই মাঝে তখন মধ্যরাত অতিক্রান্ত করে ঘড়ির কাটা রাত একটা ছুই ছুই করলে অনিচ্ছা সত্তেও অনুষ্ঠানের পরিসমাপ্তি করা হয়।

কানাডা

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে