Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, মঙ্গলবার, ৭ এপ্রিল, ২০২০ , ২৪ চৈত্র ১৪২৬

গড় রেটিং: 2.7/5 (7 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৫-০৯-২০১২

হিলারি না মমতা, কে মিথ্যা বলছেন ?

হিলারি না মমতা, কে মিথ্যা বলছেন ?
কলকাতা ৯ মে: খুচরো ব্যবসায় সরাসরি বিদেশী বিনিয়োগ এবং ভারত-বাংলাদেশের মধ্যে প্রস্তাবিত তিস্তা পানিবণ্টন চুক্তির মতো অভ্যন্তরীণ ও দ্বিপাক্ষিক বিষয়ে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিন্টনের সঙ্গে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির আলোচনা নিয়ে ইতোমধ্যে গোটা দেশে বিতর্কের ঝড় উঠেছে। এমনকি সংসদের অভ্যন্তরেও এবিষয়ে প্রশ্ন উত্থাপিত হয়েছে। কিন্তু যাদের নিয়ে এই বিতর্ক, তাদের তরফে এ নিয়ে কী বলা হয়েছে? নিচের ঘটনাবলীর দিকে নজর রাখলে এটা স্পষ্ট বোঝা যাবে পরস্পরবিরোধী মন্তব্য করছে রাজ্য প্রশাসন ও মার্কিন কনস্যুলেট। প্রশ্ন উঠেছে, কে ঠিক বলছেন, কে মিথ্যা বলছেন?

ঘটনা ১: ওয়াশিংটনে ওবামা প্রশাসনের একজন ঘনিষ্ঠ মুখপাত্রকে উদ্ধৃত করে সংবাদসংস্থা পিটিআই-এর প্রতিনিধি গত ৩ মে জানালেন, হিলারি-মমতা আলোচনায় বিনিয়োগ, আঞ্চলিক সহযোগিতা (তিস্তা চুক্তি)-র বিষয় থাকবে।

ঘটনা ২: মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীর আলোচনায় কেন তিস্তা চুক্তির মতো দ্বিপাক্ষিক বিষয়, খুচরো ব্যবসায় সরাসরি বিদেশী বিনিয়োগ থাকবে, তা নিয়ে শনিবার প্রশ্ন তুললেন বামফ্রন্ট চেয়ারম্যান বিমান বসু।

ঘটনা ৩: মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে তার আলোচনায় তিস্তা চুক্তি, এফডিআই থাকবে কিনা সোমবার সকালে টাউন হলের অনুষ্ঠানে এ নিয়ে এক প্রশ্নের উত্তরে হিলারি ক্লিন্টন স্পষ্ট জানালেন, ‘‘আমি যা নিয়ে কথা বলতে চাই, তার মধ্যে নিশ্চিতভাবেই এগুলো রয়েছে...আমি অবশ্যই ‘মাল্টিব্র্যান্ড রিটেল’-এর জন্য বাজার উন্মুক্ত করার ক্ষেত্রে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের আকাঙ্ক্ষার কথা তুলবো।’’

ঘটনা ৪: হিলারি ক্লিন্টনের সঙ্গে আলোচনার পরে সোমবার মহাকরণে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি বললেন, ‘উনি তিস্তা নিয়ে, এফডিআই নিয়ে কিছু জানতে চাননি। এসব নিয়ে কোনো কথাই হয়নি। এফডিআই -নো। জল-নো।’’

ঘটনা ৫: ভারত-বাংলাদেশের মধ্যে প্রস্তাবিত তিস্তা পানিবণ্টন চুক্তি নিয়ে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রীর আলোচনাকে এক বিবৃতিতে সিপিআই (এম) পলিট ব্যুরো বললো ‘‘একটি সম্পূর্ণ দ্বিপাক্ষিক বিষয়ে অবাঞ্ছিত এবং অনভিপ্রেত নাক গলানো’’।

ঘটনা ৬: মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা নিয়ে সোমবার সন্ধ্যায় কলকাতার মার্কিন কনস্যুলেট এক প্রেস বিবৃতিতে জানালো, ‘উভয়ের মধ্যে খুচরো বাণিজ্য ক্ষেত্রসহ পশ্চিমবঙ্গে বর্ধিত মার্কিন বিনিয়োগ, মার্কিন-ভারত সহযোগিতা, আঞ্চলিক বিষয়সমূহ এবং উভয় দেশের মানুষের মধ্যে শক্তিশালী বন্ধন গড়ে তোলার মতো বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়েছে।’

ঘটনা ৭: সোমবার রাতে মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র পশ্চিমবঙ্গ সরকারের তরফে মার্কিন কনসাল জেনারেলকে ই-মেলে অনুরোধ জানান, ‘‘যেহেতু মাননীয় মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনায় ‘খুচরো ব্যবসায় এফডিআই’-এর কোনো উল্লেখ করেননি এবং নির্দিষ্ট এই বিষয় নিয়ে উভয়ের মধ্যে কোনো আলোচনাও হয়নি, তাই আমি দ্ব্যর্থহীনভাবে ও দৃঢ়তার সঙ্গে অনুরোধ করছি আপনাদের প্রেস বিবৃতিতে খুচরো ব্যবসায় বিনিয়োগের প্রসঙ্গটি বাদ দেয়া হোক।’’

ঘটনা ৮: মঙ্গলবার রাত পর্যন্ত কলকাতার মার্কিন কনস্যুলেট তাদের সংশ্লিষ্ট প্রেস বিবৃতির বয়ান একচুলও পরিবর্তন করেনি। ওদিকে, এদিন সকালে নয়া দিল্লিতে হিলারি ক্লিন্টন তার ভারত সফর নিয়ে যে সাংবাদিক সম্মেলন করলেন, সেখানে মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির সঙ্গে তার সাক্ষাতের কোনো উল্লেখই করলেন না, যা কূটনৈতিকভাবে বেশ অস্বাভাবিক।  সূত্র: গণশক্তি (কলকাতা)।

পশ্চিমবঙ্গ

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে