Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৯ , ২৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

গড় রেটিং: 4.3/5 (3 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৫-০৬-২০১২

প্রণব মুখার্জি ঢাকায়

প্রণব মুখার্জি ঢাকায়
ঢাকা, ৫ মে: ভারতের অর্থমন্ত্রী প্রণব মুখার্জি এখন ঢাকায়। তিনি শনিবার রাত পৌনে দশটায় ঢাকায় এসে পৌঁছান। তিনি বিশ্ব কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের সার্ধশততম জন্মবার্ষিকীর বছরব্যাপী অনুষ্ঠানমালার সমাপনী পর্বে ভারত সরকারের প্রতিনিধিত্ব করবেন।

এদিকে কূটনীতিকরা মনে করছেন, এই অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ আনুষ্ঠানিকতা মাত্র। ঢাকা-দিল্লি সম্পর্কের বহুমাত্রিকতা, বিশেষ করে দু'দেশের মধ্যে সাম্প্রতিক টানাপোড়নের আদ্যোপান্ত আলোচনার জন্যই প্রণব ঢাকায় এসেছেন এবং তার এই সফরে ঢাকা-নয়াদিল্লির সম্পর্কে সাম্প্রতিককালে যে ছন্দপতন ঘটেছে তা কেটে যাবে।

৭৭ বছর বয়সী প্রণব মুখার্জী শনিবার আট সফরসঙ্গী নিয়ে ফিলিপাইনের রাজধানী ম্যানিলা থেকে ঢাকা এসেছেন। একই বিমানে এসেছেন বাংলাদেশের অর্থমন্ত্রী আবুল মাল মুহিতও। তারা ম্যানিলায় এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি)-এর বার্ষিক বৈঠকে যোগ দিতে গিয়েছিলেন। বিমানবন্দরে এই দুই অর্থমন্ত্রীকে স্বাগত জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

সফরসূচি অনুসারে, শনিবার সকাল ১০টায় বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে বিশেষ অতিথি হিসেবে কবিগুরুর সার্ধশত জন্মবার্ষিকিতে যোগ দিবেন। সেখানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা থাকবেন প্রধান অতিথি। পরে সেখান থেকেই চলে যাবেন প্রধনমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে। দুপুর বারোটায় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাত করবেন প্রণব মূখার্জি। সাক্ষাত শেষে গণভবনে মধ্যাহ্ন ভোজে অংশ নিবেন। গণভবন থেকে হোটেলে ফিরে বিকাল তিনটা পর্যন্ত বিশ্রাম শেষে সোনারগাওঁয়ের বাঙ্গালি স্যুটে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডা. দীপু মনির সঙ্গে সাক্ষাত করবেন। ১৫ মিনিটের এ সাক্ষাত শেষে ভারতীয় অর্থমন্ত্রী বাংলাদেশের গণমাধ্যমের সঙ্গে বেশ কয়েকজন সম্পাদকের সঙ্গে সাক্ষাতের সূচি রয়েছে।

জানা গেছে এরপর অর্থমন্ত্রী আবুল মাল মুহিত যাবেন প্রণবের সঙ্গে সাক্ষাত করতে। ওইদিন বিকাল সাড়ে চারটায় প্রণব মূখার্জি বিরোধীদলীয় নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাত করবেন। সেখান থেকেই বিমানবন্দরে চলে যাবেন তিনি। বিকাল সাড়ে পাঁচটায় তিনি দিল্লির উদ্দেশ্যে ঢাকা ত্যাগ করবেন।

ঢাকার কূটনৈতিক সূত্রগুলো মনে করছে, গত বছর সেপ্টেম্বরে ভারতের প্রধানমন্ত্রী ড. মনমোহন সিং-এর ঢাকা সফরের সময় অভিন্ন তিস্তা চুক্তি না হওয়ায় ছন্দপতন ঘটে ঢাকা ও নয়াদিল্লির উষ্ণ সম্পর্কে। পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জীর অসম্মতিতে তিস্তা ব্যর্থতায় হতাশা নামে দু’দেশের মধ্যে। এছাড়া এক বিলিয়ন ডলারের ভারতীয় ঋণে প্রকল্প অনুমোদন, সীমান্ত প্রটোকল বাস্তবায়ন, বাণিজ্য ঘাটতি হ্রাস, ট্রানজিট ফিসহ কয়েকটি ইস্যু দু’দেশের মধ্যে অমীমাংসিত রয়ে গেছে। এগুলো নিষ্পত্তি দ্রুততর করতে অর্থমন্ত্রী প্রণব মুখার্জীর সফর কার্যকর ভূমিকা রাখবে।

কূটনৈতিক সূত্রে জানা গেছে, প্রণব মুখার্জির সফরের সময় নাটকীয় কোনো ঘটনা ঘটার সম্ভাবনা নেই। তবে সার্বিক বিষয়গুলো নিয়ে রাজনৈতিক আলোচনা ও সিদ্ধান্ত হবে। তবে আগামী ৭ মে নয়া দিল্লির হায়দারাবাদ হাউসে দুই দেশের যৌথ কমিশন বৈঠকে কিছু  গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত হতে পারে।

ভারতের কর্মকর্তারা আশা করছেন, সেখানে দুই দেশের মধ্যে বন্দি বিনিময় চুক্তি সই হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। যৌথ কমিশন বৈঠকে বাংলাদেশের প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেবেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডা. দীপু মনি। ভারতীয় প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেবেন ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এসএম কৃষ্ণা। সে বেঠকের দিক নির্দেশনা যেতে পারে হাসিনা-প্রণব বেঠক থেকে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা বলছেন, ভারত চাইছে বাংলাদেশের চট্টগ্রাম ও মংলা সমুদ্র বন্দর ট্রানজিটের কাজে ব্যবহার করতে। কিন্তু কোনো কিছুতেই অগ্রগতি হচ্ছে না তিস্তা জটিলতায়। প্রণব মুখার্জি তার সফরে এসব ক্ষেত্রে ভারতের পক্ষ থেকে কী ধরনের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে সেটা জানাতে পারেন। পাশাপাশি ১০০ কোটি ডলার ঋণের প্রকল্প বাস্তাবায়নে মন্থরগতির বিষয়টি পর্যালোচনায় আসতে পারে। ভারতের অর্থমন্ত্রীর সফরে ছিটমহল বিনিময়, অপদখলীয় ভূমি হস্তান্তর এবং অচিহ্নিত সীমান্ত চিহ্নিত করা সংক্রান্ত সীমান্ত চুক্তি উভয় দেশের পার্লামেন্টে অনুমোদনের বিষয়ে আলোচনা হতে পারে।

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে