Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, রবিবার, ১৭ নভেম্বর, ২০১৯ , ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

গড় রেটিং: 1.7/5 (32 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ১২-০৬-২০১৫

‘গিনেস সার্টিফিকেট’ পেলেন নরেন্দ্র মোদী

‘গিনেস সার্টিফিকেট’ পেলেন নরেন্দ্র মোদী

নয়াদিল্লি, ০৬ ডিসেম্বর- ‘গিনেস সার্টিফিকেট’ পেলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। সরকার পরিচালনা বা অন্য কোনও বিশেষ কাজের জন্য নয়, রান্নার গ্যাসে ভর্তুকি দিয়েই বিশ্ব রেকর্ডের অধিকারী হলেন তিনি। ‘গিনেস বুক অফ ওয়ার্ল্ড’-এর পক্ষ থেকে জানানো হয়, গত এক বছরে রান্নার গ্যাসের ভর্তুকি হিসাবে যে পরিমাণ টাকা ভারতে ব্যাঙ্ক মারফত লেনদেন হয়েছে, তা আর কোথাও হয়নি। এই বিপুল পরিমাণ টাকা লেনদেনের জন্যই ‘গিনেস বুক অফ ওয়ার্ল্ড রেকর্ড’-এ নাম উঠল নরেন্দ্র মোদীর। কেন্দ্রীয় তেলমন্ত্রী ধর্মেন্দ্র প্রধানই ‘গিনেস সার্টিফিকেট’ তুলে দিলেন নরেন্দ্র মোদীর হাতে।

বর্তমানে নরেন্দ্র মোদীর ‘প্যাহাল’ প্রকল্পের অধীনে দেশের বিপুল সংখ্যক মানুষ রান্নার গ্যাসে ভর্তুকি পান। ভর্তুকির টাকা নরেন্দ্র মোদীর সরকার সরাসরি গৃহস্থদের ব্যাঙ্কে অ্যাকাউন্টে পাঠিয়ে দেন। এর ফলে সরকারের সঙ্গে গৃহস্থদের ব্যাঙ্কিং লেনদেন বহুগুণ বেড়ে গিয়েছে। গিনেস সূত্রের খবর, গত সাত মাসে কেবল রান্নার গ্যাসের ভর্তুকি হিসাবে ১২ কোটি ৫৭ গৃহস্থ ব্যাঙ্ক মারফত লেনদেন করেছেন। যা বিশ্বের কোথাও হয়নি। তাই এই প্রকল্প-প্রণেতা নরেন্দ্র মোদীকে বিশ্বরেকর্ডের সার্র্টিফিকেট দিল ‘গিনেস’।

জানা গিয়েছে, মনমোহন সিংয়ের সরকার দরিদ্রদের রান্নার গ্যাসে ভর্তুকি দেওয়ার প্রস্তাব দিয়েছিল। গৃহস্থদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে সরকার সরাসরি ভর্তুকি দেবে বলে স্থির হয়েছিল। ২০১৩ সালের ১ সেপ্টেম্বর থেকে প্রকল্পটি চালু হয়। কিন্তু বিভিন্ন জটিলতার কারণে মনমোহন সরকারের মাঝপথেই এটি বন্ধ হয়ে যায়। তারপর নরেন্দ্র মোদী সরকারে আসার পর ‘প্যাহাল’ নাম দিয়ে ফের এই প্রকল্পটি চালু করেন। ২০১৪ সালের ১৫ নভেম্বর প্রথমে ৫৪টি জেলায় ‘প্যাহাল’ চালু হয়। তারপর চলতি বছরের ১ জানুয়ারি থেকে সারাদেশে এটি চালু হয়ে যায়। রান্নার গ্যাস কেনার সঙ্গে সঙ্গেই তার ভর্তুকির টাকা গৃহস্থের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে ফেলে দেয় মোদী সরকার সরাসরি। তারপর সেই টাকা তুলে নেন গৃহস্থ। এভাবে গত ৩০ জুন পর্যন্ত কেবল ‘প্যাহাল’ প্রকল্পের অধীনে ১২ কোটি ৫৭ লক্ষ গৃহস্থ ব্যাঙ্কিং লেনদেন করেছেন। এছাড়া চলতি মাসের ৩ তারিখ পর্যন্ত এই প্রকল্পের সঙ্গে যুক্ত হয়েছেন ১৪ কোটি ৬২ লক্ষ মানুষ। এছাড়া ‘প্যাহাল’ প্রকল্প চালু হয়ে ৩ কোটি ৩৪ লক্ষ মানুষের ভুয়ো অ্যাকাউন্ট বন্ধ করা সম্ভব হয়েছে। 

দক্ষিণ এশিয়া

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে