Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, মঙ্গলবার, ১২ নভেম্বর, ২০১৯ , ২৮ কার্তিক ১৪২৬

গড় রেটিং: 2.4/5 (11 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ১১-০২-২০১৫

ক্যালিফোর্নিয়ায় পানি পেতে..

ক্যালিফোর্নিয়ায় পানি পেতে..
‘টয়লেট থেকে ট্যাপ’ পদ্ধতিতে পয়োনিষ্কাশনের পানিকে মানুষের ব্যবহারের উপযোগী করা হয়।

ক্যালিফর্নিয়া, ০২ নভেম্বর- বুদ্ধিটা ভালো, কিন্তু অনেকের কাছেই তা হজম করা কঠিন। বিষয়টি হচ্ছে শৌচাগারের নোংরা পানি পরিশোধন করে তা খাওয়ার পানি হিসেবে গ্রহণ করা। কিন্তু ক্যালিফোর্নিয়ায় একটানা ঐতিহাসিক যে খরা চলছে, ‘টয়লেট টু ট্যাপের’ এ কৌশল খুব জুতসই হবে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞ ও রাজনীতিকেরা।

এ ব্যবস্থা একই সঙ্গে পরিবেশবান্ধব ও ব্যয়সাশ্রয়ী হবে। সমস্যা হচ্ছে তা মেনে নেওয়া। পর্যাপ্ত পানি থাকলে যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ার বাসিন্দাদের এমন দোটানায় পড়তে হতো না।

অঙ্গরাজ্যটিতে প্রচণ্ড খরা চলছে। সেখানে পানি ব্যবহারের ওপর কড়াকড়ি পর্যন্ত আরোপ করা হয়েছে। এই পরিস্থিতিতে দীর্ঘ মেয়াদে পানি প্রাপ্তির বিকল্প উপায় নিয়ে নানা তোড়জোড় চলছে। পানি প্রাপ্তির এমনই একটি পদ্ধতি ‘টয়লেট টু ট্যাপ’। পানি-সংকটের প্রেক্ষাপটে রাজ্যের বিশেষজ্ঞ ও রাজনীতিবিদেরা এই পদ্ধতিটিকে গুরুত্বের সঙ্গে নিয়েছেন।

এএফপির প্রতিবেদনে জানানো হয়, ‘টয়লেট থেকে ট্যাপ’ পদ্ধতিতে পয়োনিষ্কাশনের পানিকে মানুষের ব্যবহারের উপযোগী করা হয়। মানুষের মধ্যে অস্বস্তি কাজ করায় পদ্ধতিটি ক্যালিফোর্নিয়ায় ব্যাপকভাবে সাড়া ফেলতে ব্যর্থ হয়েছে।

দীর্ঘ সময় ধরে খরা চলতে থাকায় পয়োনিষ্কাশনের পরিশোধিত পানি ব্যবহারের ব্যাপারে ক্যালিফোর্নিয়ার বাসিন্দারা কত দিন তাদের খুঁতখুঁত ভাব বজায় রাখতে পারবে, তা দেখার বিষয়। পরিস্থিতির কারণে এ ধরনের খুঁতখুঁতে ভাব ছাড়তে তারা বাধ্য হতে পারে।


বর্জ্যপানিকে কয়েক ধাপে পরিশোধন করে পানযোগ্য করা হয়।

রাজ্যের অধিবাসীদের পানযোগ্য পানির একটি গুরুত্বপূর্ণ উৎস সিয়েরা নেভাদার তুষার গলা পানি। তা কার্যত ফুরিয়েছে। অন্য উৎসগুলোর পানিও কমছে। এই পরিস্থিতিতে বর্জ্যপানি পুনর্ব্যবহারের জন্য তা প্রক্রিয়াজাত করার কথা সবাই ভাবছে বলে উল্লেখ করেন পানি পরিশোধন বিশেষজ্ঞ জর্জ টচোবানোগলোস। তাঁর ভাষ্য, ক্যালিফোর্নিয়ার মতো বিরাট মহানগর ও উপকূলীয় এলাকায় এই পদ্ধতি নিঃসন্দেহে বাস্তবায়নযোগ্য ও ব্যয়সাশ্রয়ী।

গত বছর প্রকাশিত এক গবেষণা অনুসারে, এই পদ্ধতিতে ২০২০ সাল নাগাদ বছরে ৩৫০ বিলিয়ন গ্যালনের বেশি পানি উৎপাদন করা যেতে পারে। ওই পানির পরিমাণ ক্যালিফোর্নিয়ার জনগণের চাহিদার জন্য যথেষ্ট।

ইতিমধ্যে এই পদ্ধতি টেক্সাসের বিভিন্ন স্থানে সফলভাবে ব্যবহৃত হচ্ছে। সেখানেও মারাত্মক খরা চলছে। ডাইরেক্ট পোটাবল রিইউজ (ডিপিআর) বা ‘টয়লেট থেকে ট্যাপ’ পদ্ধতিতে টয়লেট, ওয়াশিং মেশিন, থালা-বাসন মাজার যন্ত্র, গোসলের বর্জ্যপানিকে পরিশোধন করে পানযোগ্য করা হয়। কয়েকটি ধাপে এই পরিশোধনের প্রক্রিয়া চলে।


যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ায় টানা খরা চলছে।

বেশ আগে একই ধরনের একটি পরিকল্পনা ক্যালিফোর্নিয়ার সান ডিয়েগোতে নেওয়া হয়েছিল। তীব্র বিরোধিতার মুখে তা বাস্তবায়ন করা যায়নি। ক্যালিফোর্নিয়ায় পানি ব্যবহারের ওপর কড়াকড়ি রয়েছে। এই বিধি মেনে চলতে সেখানকার বাসিন্দাদের হিমশিম খেতে হচ্ছে। তাই প্রকল্পটি ফের আলোচনায় এসেছে।

পানি পরিশোধন বিশেষজ্ঞ টচোবানোগলোসের ভাষ্য, বিষয়টি নিয়ে সম্প্রতি সান ডিয়েগোতে জরিপ হয়েছে। ওই জরিপে ৭৬ শতাংশ মানুষ বর্জ্যপানি পুনর্ব্যবহারের জন্য প্রক্রিয়াজাত করার পক্ষে মত দিয়েছে। নব্বইয়ের দশকের শুরুর দিকে এই সমর্থন ছিল মাত্র ২৩ শতাংশ। বাস্তব উদাহরণ টেনে পদ্ধতিটির পক্ষের লোকজন বলছেন, প্রযুক্তিটি পরিবেশবান্ধব এবং আর্থিকভাবেও সুবিধাজনক।

লস অ্যাঞ্জেলস কাউন্টির ওয়েস্ট বেসিন ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্টের সহকারী মহাব্যবস্থাপক শিবাজি দেশমুখ বলেন, ‘প্রথাগতভাবে পয়োপানিকে বর্জ্য হিসেবে দেখা হয়। কিন্তু এখন আমরা এটাকে মূল্যবান সম্পদ হিসেবে দেখছি, যা দিয়ে আমরা অন্যতম উৎকৃষ্ট মানের পানি উৎপাদন করতে পারি।

উত্তর আমেরিকা

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে