Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, বৃহস্পতিবার, ১৪ নভেম্বর, ২০১৯ , ৩০ কার্তিক ১৪২৬

গড় রেটিং: 2.2/5 (18 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ১০-০৯-২০১৫

হোয়াইট হাউসে দরজা আটকে স্বামী ক্লিনটনকে পেটাতেন হিলারি!

হোয়াইট হাউসে দরজা আটকে স্বামী ক্লিনটনকে পেটাতেন হিলারি!

ওয়াশিংটন, ০৯ অক্টোবর- যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে প্রভাবশালী প্রেসিডেন্টদের একজন বিল ক্লিনটন। তার স্ত্রী হিলারি ক্লিনটন আগামী নির্বাচনে দেশটির প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হিসেবে সবার চেয়ে এগিয়ে রয়েছেন। তারা পারিবারিক জীবনে তেমন সুখী ছিলেন না- এমন খবর গণমাধ্যমে নতুন কিছু নয়।

এবার হিলারি-বিল ক্লিনটন পারিবারিক দ্বন্দ্বের নতুন চিত্র হাজির করেছেন বিতর্কিত মার্কিন রাজনৈতিক বিশ্লেষক ও পরামর্শক রজার স্টোন।

সদ্য প্রকাশিত তার ‘দ্য ক্লিনটন’স ওয়ার অন উইম্যান’ বইতে তিনি লিখেছেন, হিলারির হাতে বিল ক্লিনটনের মার খাওয়ার দীর্ঘ ইতিহাস রয়েছে। হোয়াইট হাউসে থাকাকালে ক্লিনটনকে ঘরের দরজা বন্ধ করে পেটাতেন তার স্ত্রী ও সাবেক মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটন।

বিভিন্ন সময়ে হিলারি শক্ত জিনিস ছুড়ে বিলকে আহত করেছেন, আঁচড়ে-কামড়ে রক্তাক্ত করার মতো ঘটনাও প্রচুর ঘটেছে; বলেও দাবি করেছেন এক সময় ক্লিনটনদের ঘনিষ্ঠ এ রাজনৈতিক বিশ্লেষক।

হিলারি স্বামী বিল ক্লিনটনকে পেটাতেন তার পক্ষে যুক্তি তুলে ধরতে স্টোন বইতে লিখেছেন, ‘তাদের কয়েক দশকের পারিবারিক জীবনের অশান্তির সুসংরক্ষিত তথ্য রয়েছে। উদাহরণ, হোয়াইট হাউসের সাবেক প্রেস সেক্রেটারি ডি ডি মায়ার হিলারি আক্রমণাত্বক আচরণের কথা ১৯৯৯ সালে প্রকাশিত গেইল শেইহির লেখা ‘হিলারি’স চয়েস’ বইতে তুলে ধরেছেন।’

তিনি আরো লেখেন, ‘মূলত এ দম্পতির মধ্যে দ্বন্দ্ব শুরু হয় ১৯৯৩ সালে প্রেসিডেন্ট হিসেবে বিল ক্লিনটনের অভিষেক অনুষ্ঠানে। ওই সময় হিলারি বিল ক্লিনটনে উচ্চস্বরে অভক্তিমূলক কথা বলেন। তাদের মধ্যে দ্বন্দ্বের চিত্র আরো স্পষ্ট হতে থাকে যখন, ১৯৯৩ সালের এপ্রিলে মৃত্যুশয্যাশায়ী বাবাকে দেখতে আরকানসাসে ছুটে গিয়েছিলেন হিলারি, তখন বিল ক্লিনটন শ্বশুরকে দেখতে না গিয়ে হোয়াইট হাউসে বিখ্যাত বিখ্যাত গায়কদের নিয়ে গানের আসর বসিয়েছিলেন। হিলারি যখন এ খবর শুনলেন, তখন দ্রুত ওয়াশিংটনে ফিরে আসেন এবং স্বামীর সঙ্গে সহিংস আচরণে জড়িয়ে পড়েন।’

বইটিতে স্টোন বলেছেন, অনেক সময় স্ত্রী হিলারির পিটুনি খেয়ে রক্তাক্ত হতেন সাবেক এ মার্কিন প্রেসিডেন্ট; সেই মারের দাগ থাকত ক্লিনটনের শরীরজুড়ে। রক্তাক্ত অবস্থায় দেখার পর ক্লিনটনের কাছে কেউ কারণ জানতে চাইলে;  তিনি বলতেন, শেভ করতে গিয়ে কেটে গেছে।

এমনকি, নানা সরকারি অনুষ্ঠানে যাওয়ার পথে প্রেসিডেন্টের লিম্যুজিনের (গাড়ী) ভেতরেও চলত ক্লিনটন দম্পতির ঝগড়া। গাড়িতে হাতের কাছে যা পেতেন তা-ই ছুড়ে মারতেন হিলারি। হোয়াইট হাউসের সেই সময়ের এক গাড়িচালক জানিয়েছেন, পরস্পরের উদ্দেশে জঘন্যতম ভাষায় অভিযোগ ছুড়ে দিতেন দুজনেই।

স্টোর আরো উল্লেখ করেন, হোয়াইট হাউসের তৎকালীন কর্মকর্তা মনিকা লিউনিস্কির সঙ্গে যৌন কেলেঙ্কারির খবর ফাঁস হয়ে যাওয়ার পর হিলারি ক্ষেপে গিয়ে বিলকে কষে চড় লাগান। দুজনের মধ্যে হাতাহাতি এবং উচ্চস্বরে বাক্যবিনিময়-গালমন্দের শব্দও হোয়াইট হাউসের কর্মীরা শুনতে পান।

এছাড়া আরাকানসাসের গভর্নর থাকাকালে ক্লিনটনদের ঘরোয়া মারপিট চরম আকার নিয়েছিল বলে জানিয়েছিলেন আরেক লেখক ক্রিস অ্যান্ডারসন। তার ভাষ্যে, একবার মাঝরাতে ঘুম ভেঙে স্বামীকে বিছানায় দেখতে না পেয়ে নিরাপত্তাকর্মীদের তাকে খুঁজতে পাঠান হিলারি। বিল ফিরে এলে রান্নাঘর থেকে ভেসে আসে, কাচ ভাঙার আওয়াজ এবং হিলারির চিৎকার ও গালাগালির শব্দ।

আগামী প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রার্থিতা নিয়ে মার্কিন মুল্লুকে যখন জোরোশোরে প্রচারণা হচ্ছে, ঠিক তখন হিলারির বিরুদ্ধে গুরুতর এ অভিযোগ উঠলো। পররাষ্ট্রমন্ত্রী থাকাকালে ব্যক্তিগত ই-মেইলে প্রশাসনিক কাজ করায় তার বিরুদ্ধে সমালোচনার ঝড় ওঠে। ব্যবহারের সুবিধার্থে তিনি ব্যক্তিগত মেইল ব্যবহার করেছেন দাবি করে এর জন্য ক্ষমা চান।

সোমবার এ ব্যাপারে নিউইয়র্ক টাইমসকে স্টোন বলেন, ‘আমেরিকায় শুধুমাত্র একজনই হিলারি ক্লিনটন। তিনি আইস কুইন। এটাই সত্যিকারের হিলারি। তার নির্বাচনী প্রচারণায় আপনার কেউ একজন দেখেছেন- তার ভণ্ডামি।’

তবে স্টোনের বইয়ে লেখা তথ্যের ব্যাপারে জানতে চাইলে মেইল অনলাইনকে এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি হিলারি। খবর নিউইয়র্ক টাইমস, ডেইলি মেইলের।

উত্তর আমেরিকা

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে