Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, মঙ্গলবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ , ১৩ ফাল্গুন ১৪২৬

গড় রেটিং: 2.4/5 (21 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৯-২৫-২০১৫

মীনা ট্রাডেজির অন্তরালে: আফ্রিকান হাজিরা, সৌদি রাজপুত্র নাকি অব্যবস্থাপনা?

মীনা ট্রাডেজির অন্তরালে: আফ্রিকান হাজিরা, সৌদি রাজপুত্র নাকি অব্যবস্থাপনা?

রিয়াদ, ২৫ সেপ্টেম্বর- মক্কার মীনায় পদদলনে ৭ শতাধিক হাজীর মৃত্যুর ঘটনায় বারবারই সামনে আসছে অব্যবস্থাপনার প্রসঙ্গটি। কমবেশি সবাই মানছেন, যথাযথ ব্যবস্থাপনা থাকলে এমন ঘটনা এড়ানো সম্ভব। তবে এরইমধ্যে চলছে দোষারোপের রাজনীতিও। এ ঘটনায় সৌদি আরবের তরফে দায়ী করা হচ্ছে আফ্রিকার হাজীদের। আর তেহরানভিত্তিক সংবাদমাধ্যম বলছে, বাদশাহ-পুত্রের গাড়িবহরের কারণেই এমন ঘটনা ঘটেছে।

শুক্রবার সৌদি আরবের রাষ্ট্রীয় আল-অ্যারাবিয়া টেলিভিশনে দেশটির কেন্দ্রীয় হজ কমিটির প্রধান ও সৌদি প্রিন্স খালেদ আল-ফয়সালের দেওয়া এক সাক্ষাতকারের বরাতে সংবাদমাধ্যম ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস টাইমস জানায়, হজ পালনের সময় সৌদি আরবের মিনায় পদপিষ্ট হয়ে সাত শতাধিক মানুষের মৃত্যুর ঘটনায় আফ্রিকা থেকে আসা হাজিদের দায়ী করেছেন তিনি। এরআগে সৌদি স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেছেন, ‘অনেক হাজিই কর্তৃপক্ষের নির্ধারিত সময়ের তোয়াক্কা করে না। আর এটিই দুর্ঘটনার অন্যতম কারণ। যদি হাজিরা আমাদের নির্দেশনা মেনে চলতেন তাহলে এ দুর্ঘটনা এড়ানো যেত।’

এদিকে মিনায় নিহতদের মধ্যে শতাধিক ইরানি নাগরিককে চিহ্নিত করা হয়েছে বলে দাবি তেহরানভিত্তিক সংবাদমাধ্যম তেহরান রেডিও’র। অনাকাঙ্ক্ষিত এই প্রাণহানির জন্য সৌদি আরবের হজ ব্যবস্থাপনা এবং নিরাপত্তার অভাবকে দায়ী করেছে ইরান। একইসঙ্গে সৌদি আরবের কাছে এর অন্য কোনও ব্যাখা নেই বলেও দাবি করেছে দেশটি।

এ বিষয়ে ইরানের উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী হোসেন আমির আবদুল্লাহিন জানান, এরইমধ্যে দুর্ঘটনার জন্য তারা সৌদি রাষ্ট্রদূতকে তলব করেছেন। তিনি বলেন, ‘সৌদি আরবের এ ধরনের ব্যবহারের পর আমাদের আর কোনও উপায় ছিল না। পুরো বিষয়টিকে আমরা কূটনৈতিক চ্যানেলেই মোকাবিলা করবো। কারণ দুর্ঘটনার জন্য সৌদি কর্মকর্তারাই দায়ী। সংকট মোকাবিলায় অবশ্যই তাদের রাষ্ট্রীয়ভাবে কার্যকর উদ্যোগ গ্রহণ করা উচিত। সেইসঙ্গে হজিদেরও পূর্ণ নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা উচিত।

লেবাননের আরবি দৈনিক আদদিয়ার বরাতে তেহরান রেডিও আরও দাবি করে, সৌদি রাজার ছেলের গাড়ি বহর মিনা শহরের কেন্দ্রস্থলে আসায় তীব্র ভিড় দেখা দেয়া এবং মূলত এ কারণেই পদপিষ্ট হয়ে হজযাত্রীদের মৃত্যু ঘটেছে। লেবাননের আরবি দৈনিক আদদিয়ার বরাতে তারা লিখেছে, শাহজাদা মুহাম্মাদ বিন সালমানের গাড়ি বহরই প্রাণঘাতী এই বিপর্যয় সৃষ্টির মূল কারণ। তার বিপুল গাড়ি বহর ও নিরাপত্তা প্রহরা মিনার প্রায় ৫ কিলোমিটার এলাকা দখল করে নেয়। শাহজাদার সঙ্গে ছিল ২০০ সেনা ও ১৫০ পুলিশ কর্মকর্তা।

তেহরান রেডিও আরও দাবি করে, সৌদি সরকার এ বিষয়টিকে ধামাচাপা দেয়ার জন্য হজের সময় মিনায় সালমানের সফর বা তার উপস্থিতি সংক্রান্ত খবর প্রচার নিষিদ্ধ করেছে বলে লেবাননি দৈনিকটি উল্লেখ করেছে।

কিন্তু সৌদি আরবের সরকারি কর্মকর্তারা সালমানের উপস্থিতির কারণে মিনা ট্র্যাজেডি ঘটার খবরকে 'সঠিক নয়' বলে উল্লেখ করেছেন এবং এই বিপর্যয়ের জন্য হজযাত্রীরাই দায়ী বলে দাবি করেছেন। তাদের একজন বলেছেন, হজযাত্রীরা দিক-নির্দেশনা মেনে চললে এ দুর্ঘটনা হয়ত এড়ানো যেত।

মধ্যপ্রাচ্য

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে