Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, রবিবার, ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০ , ১২ আশ্বিন ১৪২৭

গড় রেটিং: 1.8/5 (8 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৯-২০-২০১৫

ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণের দাবি উদ্বিগ্ন নাগরিক সমাজের

ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণের দাবি উদ্বিগ্ন নাগরিক সমাজের

ঢাকা, ২০ সেপ্টেম্বর- বর্তমানে আইন বিভাগ অর্থাৎ জাতীয় সংসদ একদলীয় হয়ে পড়েছে এমন অভিযোগ করে ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণের দাবি করেছে উদ্বিগ্ন নাগরিক সমাজ।

রোববার রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে উদ্বিগ্ন নাগরিক সমাজের উদ্যোগে ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণ নিয়ে আয়োজিত এক গোলটেবিল আলোচনায় সভায় এ দাবি জানান বক্তারা।

বর্তমানে আইন বিভাগ অর্থাৎ জাতীয় সংসদ একদলীয় হয়ে পড়েছে বলে মন্তব্য করেছেন স্থানীয় সরকার বিশেষজ্ঞ ড. তোফায়েল আহমেদ। তিনি বলেন, ‘এ অবস্থা থেকে উত্তরণের জন্য ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণ করা প্রয়োজন। অন্যথায় এ অবস্থা আরো খারাপ হবে।’

সাবেক প্রধান নির্বাচন কমিশনার এ টি এম শামসুল হুদার সঞ্চালনায় এতে উপস্থিত ছিলেন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা এম হাফিজ উদ্দিন, ড. শওকত আলী, অর্থনীতিবিদ আহসান এইচ মনসুর। আরো উপস্থিত ছিলেন বিভিন্ন স্থানীয় সরকারের প্রতিনিধিরা।

এ টি এম শামসুল হুদা বলেন, ‘আমাদের প্রধানমন্ত্রী-রাষ্ট্রপতি হওয়ার কোন ইচ্ছা নেই। আমার উদ্দেশ্যে হলো জনগণের ক্ষমতায়ন ও গণতন্ত্রকে টেকশই করা। আমরা এটি পারবো না, আমাদের সেই ক্ষমতা নেই। রাজনীতিবিদদেরই এ কাজটি করতে হবে। আমরা চাই ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণ।’

তিনি বলেন, ‘রাজনৈতিক দলগুলোর সদিচ্ছা না থাকলে ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণ সম্ভব নয়। আমরা যতই কথা বলি না কেন, তাতে কাজ হবে না। রাজনৈতিক সদিচ্ছা থাকলে যে ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণ সম্ভব, তার সর্বশেষ প্রমাণ শ্রীলঙ্কা।’

ড. তোফায়েল আহমেদ বলেন, ‘অতিকেন্দ্রীক অতিরিক্ত ক্ষমতা, এককেন্দ্রীক সমতা রাষ্ট্র নয়, সগঠন পরিবারিক ক্ষেত্রেও ক্ষতিকর। অতিরিক্ত ক্ষমতা মানুষকে হীতাহিত জ্ঞানশূন্য করে। ক্ষমতার প্রতি অতি অনুরাগ মাদকতা ও উন্মাদনায় কিছু কিছু মানুষ পাগল হয়ে যায়।’

প্রশাসনকে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘সচিব কখনো মন্ত্রীর কর্তৃত্বের মধ্যে বিলীন হয়ে যাবে না। সচিব যদি রাজনৈতিক কর্মী হয়ে যায়, তাহলে ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণ সম্ভব নয়। সেই সঙ্গে মন্ত্রী কতটুকু ক্ষমতা প্রয়োগ করতে পারেন, সেটাও বিবেচ্য বিষয়। নাকি সব ক্ষমতা প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সেটাও লক্ষ্য রাখতে হবে।’

ড. শওকত আলী বলেন, ‘আমাদের স্থানীয় সরকার নিয়ে অনেক আইন রয়েছে, কিন্তু ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণ হয়নি। স্থানীয় সরকারকে ফলপ্রসূ করতে হলে প্রথমেই কেন্দ্র থেকে অর্থায়ন নিশ্চিত করতে হবে। সাংবিধানিকভাবে বাংলাদেশ একটি একক রাষ্ট্র। এর কোনো প্রদেশ বা অঙ্গরাজ্য নেই। একক রাষ্ট্রে ক্ষমতার পুরোপুরি বিকেন্দ্রীকরণ সম্ভব নয়। এটা কেন্দ্রের হাতেই থাকবে।’

অর্থনীতিবিদ আহসান এইচ মনসুর বলেন, ‘অর্থকে যদি কেন্দ্র থেকে বের করা না যায়, স্থানীয় সরকার বিকেন্দ্রেীকরণ করা সম্ভব নয়। এমপিরা অসাংবিধানিকভাবে স্থানীয় সরকারের বিভিন্ন পর্যায়ে হস্তক্ষেপ করে। এটা বন্ধ করতে হবে। স্থানীয় সরকার বিকশিত করতে হলে এর আর্থিক স্বাধীনতা অবশ্যই প্রয়োজন। সেই সঙ্গে দেশের বিদ্যমান সম্পদেরও বিকেন্দ্রীয়করণ করার প্রয়োজনিয়তা রয়েছে। এর জন্য একটি স্বাধীন আর্থিক কমিশন গঠন করা প্রয়োজন।’

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে