Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, বৃহস্পতিবার, ১৪ নভেম্বর, ২০১৯ , ৩০ কার্তিক ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.4/5 (25 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৪-১৪-২০১২

সুরঞ্জিতের পদত্যাগ দাবিতে সোচ্চার বিএনপি ও সুশীলসমাজ

সুরঞ্জিতের পদত্যাগ দাবিতে সোচ্চার বিএনপি ও সুশীলসমাজ
সোমবার গভীর রাতে রাজধানীতে রেলমন্ত্রী সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের এপিএস ওমর ফারুক ও রেলওয়ের মহাব্যবস্থাপক (পূর্ব) ইউসুফ আলী মৃধা বিপুল টাকা ধরা খাওয়ার পর রেলমন্ত্রীর পদত্যাগের জোরালো দাবি উঠেছে। প্রধান বিরোধীদল বিএনপির সিনিয়র নেতারা তার পদ থেকে সরে যাওয়ার আহবান জানিয়েছেন।

 

ক্ষমতাসীন জোটের শরিক দলের বাম নেতারাও এ দাবির সঙ্গে একাত্মতা পোষণ করেছেন। সমালোচনা থেকে বিরত নেই আওয়ামী লীগ নেতারাও। সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মো. নাসিম বলেছেন, রেলভবনকে হাওয়া ভবন করতে দেয়া হবে না।

 

ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি) এর ঘটনা সুষ্ঠু তদন্ত দাবি করে রেলমন্ত্রীর পদত্যাগ দাবি করেছেন।

 

ব্যাপক সমালোচনার পরও সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত তার পদত্যাগের কথা নাচক করে দিয়েছেন। বৃহস্পতিবার বিবিসির সঙ্গে এক সাক্ষাৎকারে তার পদত্যাগের কথা সরাসরি নাকচ করে দিয়ে বলেছেন, ‘‘যেহেতু অভিযোগ উঠেছে আমার সহকারী এবং রেলওয়ের একজন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে, তাই এখানে আমার পদত্যাগের প্রশ্ন ওঠেছে কেন?’’

 

এছাড়া শুক্রবার বেসরকারি টেলিভিশন মাছরাঙা একটি টকশোতে সুরঞ্জিত বলেন, “টাকাটা আমরা সহকারীর ব্যক্তিগত নাকি অবৈধ, সেই প্রশ্নের সুরাহা এখনো হয়নি। আগে সংসদীয় তদন্ত কমিটি হোক। তদন্তে দোষী প্রমাণিত হলে আমি নিজেই গণতন্ত্রের স্বার্থে পদত্যাগ করবো।”

 

তিনি বলেন, আমার বিরুদ্ধে এখনো ষড়যন্ত্র হচ্ছে। তার এপিএস’র গাড়িতে টাকা পাওয়ার দায়ে তার পদত্যাগের কথা উঠছে কেন উল্টো প্রশ্ন রাখেন তিনি।

 

এদিকে তার পদত্যাগের দাবিতে সোচ্চার হয়েছে বিএনপি ও সুশীল সমাজ। শুক্রবার বিএনপির তিনজন স্থায়ী কমিটির সদস্য তাকে আত্মসম্মান বজায় রেখে পদত্যাগ করা আহবান জানিয়েছেন।

 

শুক্রবার সকালে ফটোজার্নালিস্ট এসোসিয়েশন মিলনায়তনে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, “সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের সহকারীর গাড়িতে অর্থ পাওয়ার ঘটনায় প্রমাণ হয়েছে, সরকারের দুর্নীতি আজ ব্যাধিতে পরিণত হয়েছে। নিজের সম্মান ও গণতন্ত্রের রীতিনীতি রক্ষার স্বার্থে ঘটনার সঙ্গে সঙ্গে সুরঞ্জিতের পদত্যাগ করা উচিত ছিল। এটাকে চক্রান্ত বলে তিনি তার দায় এড়াতে পারেন না।”

 

তিনি বলেন, “বিষয়টা ইতিমধ্যে সবার কাছে পরিষ্কার হয়ে গেছে যে, ব্যাপক একটা দুর্নীতি ঘটেছে রেলওয়ে বিভাগে নিয়োগের ক্ষেত্রে। শুধু রেলওয়েতে নয়, বাংলাদেশের সব পর্যায়ে দুর্নীতি রন্ধ্রে রন্ধ্রে চলে গেছে। গত তিন বছর সরকারের এই দুর্নীতি প্রাতিষ্ঠানিক রূপ পেয়েছে।”

 

দুনীতি বিরোধী সংগঠন ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি) রেলমন্ত্রী সুরঞ্জিত সেনগুপ্তকে সব দায়দায়িত্ব গ্রহণ করে নৈতিক অবস্থান থেকে পদত্যাগ করার আহবান জানিয়েছে।

 

শুক্রবার এক বিবৃতিতে টিআইবি সম্পূর্ণ স্বাধীন ও নিরপেক্ষ তদন্তের মাধ্যমে ঘটনার সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করার দাবি জানিয়েছে। টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ইফতেখারুজ্জামান এ বিবৃতি দেন।

 

বিবৃতিতে বলা হয়, মধ্যরাতে টাকা ভাগাভাগির যে ঘটনা ঘটেছে এর মাধ্যমে সরকারি দপ্তর ও উচ্চ রাজনৈতিক মহলে দুর্নীতিকে প্রশ্রয় দেয়ার ঘটনা বেরিয়ে এসেছে।

 

টিআইবির নির্বাহী পরিচালক বলেন, “যে সরকার দুর্নীতির বিরুদ্ধে একটি সুনির্দিষ্ট প্রতিশ্রুতি দিয়ে ক্ষমতায় এসেছে, তাদের জন্য এটি একটি বড় চ্যালেঞ্জ।”

 

শুক্রবার লেবার পার্টির প্রোগ্রামে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ বলেন, “সুরঞ্জিত বাবুর নিজের আত্মসম্মানবোধ থেকেই পদত্যাগ করে দৃষ্টান্ত স্থাপন করা উচিত ছিল। নিরপেক্ষ তদন্তের স্বার্থে থাকে এ পদ থেকে সরে যাওয়া উচিত ছিল।” অর্থ কেলেঙ্কারির সুষ্ঠু তদন্ত দাবি করে তিনি বলেন, “যদি আপনারা এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত না করতে পারেন তাহলে আমরা বুঝে নেব সরকারের সবাই এটার সঙ্গে জড়িত।”

 

অন্যদিকে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য এমকে আনোয়ার জাতীয় প্রেস ক্লাবে ‘বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী সাংস্কৃতিক দলের এক আলোচনা সভায় বলেন, “সুরঞ্জিত বাবুর কালোবিড়াল এখন তার বাড়ির দিকে রওয়ানা হয়েছে। জীবনের শেষ মুহূর্তে এসে তিনি কালোবিড়ালের মুখোমুখি হয়েছেন। এই কালোবিড়াল থেকে বাবু হয়তো আর রেহাই পাবেন না, কারণ থলের বিড়াল বের হয়ে গেছে।”

 

বিএনপির আরেক স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বয় চন্দ্র রায় শুক্রবার বিকালে জাতীয় প্রেস ক্লাবে বলেন, “সরকারের দুনীতির প্রতিকী উদাহরণ সুরঞ্জিত বাবু। সুরঞ্জিত বাবুর দলে সরকারের বড় বড় মন্ত্রীরাও আছেন। সুরঞ্জিত বাবু রাজনীতিতে এটিএম শামসুজ্জামান ও টেলিসামাদের ভূমিকা পালন করছেন। দেশের প্রধানমন্ত্রী দেশে ফিরে যদি এ ঘটনাকে সাগর-রুনির মতো ধামাচাপা দেয়ার অপচেষ্টা করে তবে সুরঞ্জিত বাবু কিন্তু বানরের চেয়ে আরো উস্কে যাবে।”

 

তিনি বলেন, “প্রধানমন্ত্রী দেশে এলে সুরঞ্জিত বাবু পদত্যাগ করবেন না, কারণ সে পদত্যাগ করলেই এ সরকারের পদত্যাগ করার দাবি উঠবে।”

 

এছাড়া শুক্রবার ক্রাইম রিপোর্টার্স ইউনিটি মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য ও সাবেক সংসদ সদস্য নাছির উদ্দিন চৌধুরী সুরঞ্জিত সেনগুপ্তকে মুখোশধারী ও অর্থলিপ্সু রাজনীতিবিদ হিসেবে উল্লেখ করে তার পদত্যাগ দাবি করেছেন।

 

তার পদত্যাগ চেয়েছেন বাংলাদেশ ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ) সভাপতি হাসানুল হক ইনু। গত দুদিন তার রাজধানীতে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে সুরঞ্জিতের পদত্যাগ দাবি করেন তারা। এছাড়াও বাম রাজনৈতিক দলগুলো মিডিয়ার কাছে বিবৃতি পাঠিয়ে এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত দাবি করে রেলমন্ত্রীর পদত্যাগ দাবি করেছেন।

 

সোমবার জিগাতলা মোড়ে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) সদর দপ্তরের মূল ফটকের কাছে বিপুল পরিমাণ টাকাসহ আটক হন রেলমন্ত্রীর এপিএস ওমর ফারুক তালুকদার ও রেলওয়ের মহাব্যবস্থাপক (পূর্ব) ইউসুফ আলী মৃধা। গাড়িতে নিয়োগের জন্য ঘুষ হিসেবে ৭০ লাখ টাকা নেয়া হয়েছিল। ব্যাপক সমালোচনার মুখে বুধবার ফারুককে সাময়িক বরখাস্ত করেন রেলমন্ত্রী সুরঞ্জিত। ওই ঘটনার তদন্তে দু'টি কমিটি করেছে রেলপথ মন্ত্রণালয়।

 

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে