Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, মঙ্গলবার, ১১ আগস্ট, ২০২০ , ২৭ শ্রাবণ ১৪২৭

গড় রেটিং: 2.4/5 (19 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)


আপডেট : ০৯-০৮-২০১৫

এমপি হোস্টেল থেকে বহিরাগত উচ্ছেদ শুরু

এমপি হোস্টেল থেকে বহিরাগত উচ্ছেদ শুরু

ঢাকা, ০৮ সেপ্টেম্বর- মানিক মিয়া অ্যাভিনিউয়ের এমপি হোস্টেলে অস্থায়ী দোকান ও অফিসঘর তৈরি করে দীর্ঘদিন ধরে ঠিকাদারিসহ ব্যবসা চালিয়ে আসা বহিরাগতদের একটি ঘর আজ উচ্ছেদ করেছেন সংসদ কমিটির সদস্যরা। কমিটির সভাপতি ও জাতীয় সংসদের চিফ হুইপ আ স ম ফিরোজের নেতৃত্বে ৫ সদস্যের কমিটি এ অভিযান পরিচালনা করেন।

এসময় কমিটির সদস্য সাগুফতা ইয়াসমিন, পঞ্চানন বিশ্বাস, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, তালুকদার মো. ইউনুস এবং নাজমুল হক প্রধান এবং বিশেষ আমন্ত্রণে হুইপ মো. শহীদুজ্জামান সরকার, মো. নূরুল ইসলাম ওমর, মো. ছলিম উদ্দীন তরফদার, উম্মে রাজিয়া কাজল অভিযানে অংশগ্রহণ করেন। আগামী সাতদিনের মধ্যে বহিরাগতদের উচ্ছেদসহ এমপি হোস্টেলের সব সমস্যা দূর করার ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও প্রত্যয় ব্যক্ত করে কমিটির সদস্যরা।

আজ দুপুরে অভিযান পরিচালনাকারী কমিটির একজন সদস্য নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, বহিরাগতরা ৩নং ভবনের পাশে একটি ঘরও করেছিল। সেটি ভেঙে দেওয়া হয়েছে। তিনি স্বীকার করেন যে, কিছু অনিয়ম-দুর্নীতি তো আছেই, বাইরের একটি চক্র এখানে ফাঁকা জায়গায় বসবাস করছিল। তিনি আরো জানান, অভিযান অব্যাহত থাকবে। তিনি বলেন, এদের নেপথ্যে ক্ষমতাসীনদের অনেকেই আছেন। তারা প্রভাবশালী এমপি, মন্ত্রীদের নাম ভাঙিয়ে এখানে ব্যবসা করেন, দোকান দিয়েছেন।

সংসদ কমিটির সপ্তম বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ১ থেকে ৬নং সংসদ সদস্য ভবন পরিদর্শন করেন সংসদ কমিটির সদস্যরা। এ সময় তারা বিভিন্ন ফ্লাটে বসবাসরত সংসদ সদস্য ও তাদের পরিবার এবং এখানকার কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সমস্যার কথা শোনেন। এরআগে বহিরাগতদের দাপটে তটস্থ এমপি হোস্টেলের বাসিন্দাদের অভিযোগের ভিত্তিতে সংসদ কমিটির সদস্যরা সরেজমিনে এ অভিযানে যান। অভিযানকালে ঘটনার সত্যতা পাওয়া যায় বলে কমিটির একাধিক সদস্য নিশ্চিত করেছেন।

পরিদর্শন টিমের কাছে এক নারী বাসিন্দা জানিয়েছেন, যারা এখানে প্রভাব খাটান, তারা সবাই বলেন, আমাদের ওপরে লোক আছে। কিন্তু সেই লোকটা কে, কেউ বলেন না? কমিটির সদস্য সরকার দলীয় এক এমপি বলেন, সমস্যা আছে। কিছু বলতে পারি না, দলের অনেকেই এর সঙ্গে জড়িত। তাই নাম জানা থাকলেও জানানো সম্ভব না। তবে যাই হোক, পরিদর্শন করে সাতদিনের মধ্যে সব সমস্যার সমাধান করার নির্দেশ দিয়েছে কমিটি।

কমিটির সভাপতি আ স ম ফিরোজ বলেন, যুবলীগের নাম ভাঙিয়ে একটি চক্র এখানে প্রভাব বিস্তার করে আসছিল। তাদের অধিকাংশই ছিলেন ঠিকাদার। তারা এমপি হোস্টেলের ভেতরে অফিস বানিয়ে এবং ৩নং ভবনের জরুরি সিঁড়ি দখল করে থাকতেন। এটি উচ্ছেদ করা হয়েছে। এছাড়া আগামী সাতদিনের মধ্যে সব সমস্যা দূর করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এমপি হোস্টেলের সমস্যা দেখতে গিয়ে কমিটির সদস্যরা ৩নং ভবনের লিফটে প্রায় ১০ মিনিট আটকে ছিলেন বলে জানান একজন সদস্য। পরে লিফটম্যানের সহায়তায় তারা বের হয়ে আসেন। এ সমস্যা নাকি মাঝে মাঝেই হয় বলে জানিয়েছেন লিফটম্যান। মানিক মিয়া এভিনিউয়ের ১ থেকে ৬নং সদস্য ভবনে বসবাসরত সদস্যদের সমন্বয়ে ‘কল্যাণ সোসাইটি’ গঠনের মাধ্যমে তাদের সমস্যা সমাধানে পদক্ষেপ গ্রহণের সুপারিশ করে কমিটি।

এছাড়া সংসদ সদস্যদের গাড়ি রাখার জন্য গ্যারেজ নির্মাণ, ভিজিটরদের জন্য ওয়েটিং রুম নির্মাণ, ১-৩নং ভবন এলাকায় একটি নামাজ ঘর নির্মাণ, সদস্য ভবনের ছাদের প্লাস্টিকের শেড পরিবর্তন, ড্রাইভারদের জন্য বিশ্রাম কক্ষ নির্মাণ করার সুপারিশ করে। মানিক মিয়া এভিনিউয়ের সদস্য ভবনের নিরাপত্তা জোরদার, পিএবিএক্স টেলিফোন সচল করা এবং নির্ধারিত স্থান ছাড়া ড্রাইভারদের যত্রতত্র গাড়ি পরিষ্কার না করতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের নির্দেশ দেন। কমিটি সংসদ ভবন এলাকার মানসম্মত পরিবেশ নিশ্চিতকরণ, পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা,পানি, বিদ্যুৎ ও গ্যাস সমস্যার সমাধান এবং সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধি করার সুপারিশ করে।

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে