Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, সোমবার, ২০ জানুয়ারি, ২০২০ , ৭ মাঘ ১৪২৬

গড় রেটিং: 2.9/5 (126 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৮-২৯-২০১৫

মুটে থেকে মিলিয়নেয়ার

মাহমুদ হাফিজ


মুটে থেকে মিলিয়নেয়ার

প্যারিস, ২৯ আগষ্ট- ফ্রান্সে একসময়ের মুটে (কুলি) প্রবাসী বাংলাদেশি কাজী এনায়েত উল্লাহ বর্তমানে মিলিয়নেয়ার।  এখানকার শীর্ষ ব্যবসায়ীও বটে। একেবারে শূন্য থেকে শুরু করে প্যারিসের মূল স্রোতের রিয়েল এস্টেট, অ্যাভিয়েশন ও রেস্তোরাঁ ব্যবসায় তার এ উন্নতির পেছনে রয়েছে অধ্যাবসায় ও কঠোর পরিশ্রম।

সম্প্রতি একান্ত আলাপচারিতায় নিজেই জানালেই ভাগ্য ফেরানোর কথা। বললেন, ‘১৯৭৮সালে ফ্রান্সে আসার পর উচ্চশিক্ষার পাশাপাশি টিকে থাকার জন্য গাড়ি থেকে মালামাল খালাস বা বোঝা টানতে হয়েছে আমাকে। তবে জীবনের অভীষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছাতে কখনও আশা ছাড়িনি।’
 
ফ্রান্স তথা ইউরোপের বাণিজ্যজগত ও কমিউনিটি সেবায় এক পরিচিত নাম কাজী এনায়েত উল্লাহ।

পিগেল, আইফেল টাওয়ারে কাছাকাছি এবং অভিজাত এভিনিউ শাঁজালিজে এলাকায় রয়েছে তার একাধিক রেস্তোরাঁ। আছে রিয়েল এস্টেট ও কনসালট্যান্সি ফার্মও। উজবেকিস্তান এয়ারলাইন্সের গোটা ইউরোপের টিকিটও তার প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে বিকোচ্ছ।

ব্যবসা থেকে দৈনিক কতো টাকা জমা হচ্ছে সে হিসেব কমই রাখেন এই সংগ্রামী ব্যবসায়ী। তবে ফ্রান্সের শীর্ষস্তরের করপ্রদানকারী কাজী এনায়েত এখনও সাদাসিধে জীবনযাপন করছেন।

নিজের অসংখ্য ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান ছাড়াও তিনি বাংলাদেশ-ফ্রান্স ইকোনমিক ফোরাম, ইউরোপ প্রবাসীদের প্রাণপ্রিয় সংগঠন অল ইউরোপিয়ান বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশনের (আয়বা) সেক্রেটারি জেনারেল হিসেবেও দায়িত্ব পালন করছেন।

ইউরোপে বাংলাদেশি কমিউনিটির সাহায্য সহযোগিতা এবং সমস্যা নিরসনে এনায়েতউল্লাহ স্বপ্রণোদিত হয়ে ঝাঁপিয়ে পড়েন।

স্থানীয় সময় বুধবার প্যারিসের পিগেলের ব্যস্ততম এলাকায় যখন তার নিজস্ব রেস্তোরাঁ ক্যাফে লুনায় বসে কথা হয়, তখন তিনি ফিরে গেলেন কয়েকদশক পেছনে।

যখন তার জীবন ধূসর, বিবর্ণ ও সংগ্রামে ভরপুর। বললেন,‘ভাই টিকে থাকার জন্য বোঝা টেনেছি এই প্যারিসে। পরে যে কোম্পানিতে কাজ করতাম, তার ডিস্ট্রিবিউটর হই। ১৯৮৬ সালে বনানী নামে রেস্তোরাঁ গড়ে তুলি আইফেল টাওয়ার এলাকায়। যা ছিল প্রথম দিককার বাংলাদেশি উদ্যোগ।’

‘এর সাফল্যে ১৯৮৯সালে শুরু করি রিয়েল এস্টেট ব্যবসা। ২০০২সালে ব্যবসা শুরু করি এভিয়েশন সেক্টরে। এরপর ক্যাফে লুনাসহ আরও কয়েকটি রেস্তোরাঁ চালু করি। শুরু করি কনসালট্যান্সি বাণিজ্য,’ যোগ করেন তিনি।

এনায়েত উল্লাহ বলেন, আমার জন্ম রাজধানীর বনানীর চেয়ারম্যানবাড়ী এলাকায়। জন্মস্থানের নামেই বনানী গ্রুপ গড়ে তুলেছি। এখন ঢাকার পূর্বাচল এলাকায় এই গ্রুপের পক্ষ থেকে প্রবাসীদের জন্য বিশেষ সিটি গড়ে তোলার কাজ শুরু করেছি।
 
আয়েবা’র বিভিন্ন বিষয় তুলে ধরে সংগঠনটির প্রেসিডেন্ট কাজী এনায়েত উল্লাহ বলেন, প্রবাসীদের বিলিয়ন বিলিয়ন টাকা অলস পড়ে থাকে বিদেশের ব্যাংকে। বিনিয়োগে অগ্রাধিকার দেওয়া হলে এই অর্থ দেশে বিনিয়োগ হতে পারে।

এ ব্যাপারে আয়েবার পক্ষ থেকে ছয়দফা দাবি তুলে ধরেন এই বাংলাদেশি উদ্যোক্তা।

ছয় দফা হচ্ছে- এক কোটি প্রবাসী বাংলাদেশিকে ভোটার হিসাবে স্বীকৃতি, দূতাবাস হাইকমিশন বা কনস্যুলেটের মাধ্যমে প্রবাসীদের ন্যাশনাল আইডি কার্ড প্রদান, জাতীয় সংসদে প্রবাসীদের মধ্য থেকে কোটাভিত্তিক সংসদ সদস্য নির্বাচন, প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়ে প্রবাসীদের প্রতিনিধিত্ব রাখা, প্রবাসী কল্যাণ-ব্যাংক প্রবাসীদের দিয়ে পরিচালনা করা, বাংলাদেশের অভ্যন্তরে প্রবাসীদের বিনিয়োগের অনুকূল ও অগ্রাধিকার দেওয়ার পরিবেশ তৈরি করা।

‘এসব দাবি পূরণে ক্যাম্পেইন চালিয়ে যাবো,’ বলেন তিনি।

ফ্রান্স

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে