Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই, ২০১৯ , ৩ শ্রাবণ ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.3/5 (48 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ১০-০৯-২০১১

লারার মতো হতে চান বারাথ

লারার মতো হতে চান বারাথ
ক্রিকেট ছেড়ে পুরোদস্তুর গলফার হয়ে গেছেন ব্রায়ান লারা। পেশাদার গলফ নয়, খেলেন চ্যারিটি গলফ। ত্রিনিদাদে থাকলে খোঁজখবর নেন স্থানীয় ক্রিকেটেরও। তবে ক্যারিবীয় রাজপুত্রের ক্রিকেট-সংশ্লিষ্টতা আপাতত হাতের কাছের ক্রিকেটারদের টুকটাক পরামর্শ দেওয়াতেই সীমাবদ্ধ।
লারার দেশ ত্রিনিদাদের ছেলে আদ্রিয়ান বারাথ। লারার সঙ্গে কেবল এই একটি মাত্র সম্পর্কই নয় ওয়েস্ট ইন্ডিজ ওপেনারের, লারাকে কাছ থেকে দেখেছেন ছোটবেলা থেকে। লারার পরামর্শ, লারার সাহচর্য, লারার সুদৃষ্টি তাঁর ওপর তখন থেকেই। এমন এক কিংবদন্তিকে দেখে দেখে বড় হওয়া বারাথের স্বপ্নটাও বড় হবে স্বাভাবিক। ?ছোটবেলা থেকেই ব্রায়ান লারা আমার আদর্শ। শুধু আমি কেন, ত্রিনিদাদে আমার বয়সী সবারই আদর্শ তিনি। কোনো দিন লারার মতো ব্যাটসম্যান হব, এই স্বপ্ন সব সময়ই দেখি??মিরপুরে কাল সংবাদ সম্মেলন শেষে একাডেমি মাঠে ফিরতে ফিরতে বললেন ২১ বছর বয়সী তরুণ, যিনি টেস্ট অভিষেকেই করেছেন সেঞ্চুরি।
আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে খেলতে এসে স্বপ্নের নায়ককে পাশে না পাওয়ার আফসোস আছে। তবে বারাথ মন থেকেই বিশ্বাস করেন, কোনো না কোনোভাবে লারা ঠিকই আবার জড়াবেন ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেটের সঙ্গে, ?এখন উনি ক্রিকেটে নেই। আমাদের মাঝেমধ্যে টুকটাক পরামর্শ দেন?এ পর্যন্তই। তবে আশা করি, ব্রায়ানকে আমরা আবার ক্রিকেটে দেখব। তাঁর মতো একজন যুক্ত থাকলে দেশের ক্রিকেটেরই লাভ।?
বাবা র‌্যালফ বারাথ ত্রিনিদাদে ক্লাব ক্রিকেট খেলতেন। তাঁর উৎসাহেই বারাথের ক্রিকেটে আসা, ?ছোটবেলায় বাবাই আমাকে ক্রিকেটে আনেন। বাড়ির উঠানে তিনি ছিলেন আমার প্রথম কোচ। আমি সব সময় সোজা ব্যাটে খেলতাম দেখেই বেশি মুগ্ধ হয়েছিলেন বাবা। কারণ, সোজা ব্যাটে খেলতে হবে, আমাকে সেটা কেউ শিখিয়ে দেয়নি।?
১০ বছর বয়সেই ছেলেকে ক্রিকেটে এনে ভুল করেননি বারাথ সিনিয়র। কুঁড়ি থেকে ফুল হয়ে ফোটার আগেই আদ্রিয়ান বারাথ চোখে পড়ে যান আসল মানুষটির, ?আমার বয়স তখন ১১ বছর। একদিন কুইন্স পার্ক ওভালের নেটে ব্যাট করছিলাম। আমার ব্যাটিং দেখে মুগ্ধ হলেন লারা।? ২০০১ সালে, মানে ওই ১১ বছর বয়সেই সুযোগ পেয়ে যান ত্রিনিদাদ অনূর্ধ্ব-১৩ দলে। পরের বছর পেয়ে যান দলটার নেতৃত্বও। এরপর শুধুই সামনে এগোনো।
১৭ বছর বয়সে জাতীয় দলে অভিষেক হওয়ার আগে ওয়েস্ট ইন্ডিজ অনূর্ধ্ব-১৯ দলেও খেলেছেন। ছিলেন ২০০৮-এর অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের দলে। ওই বিশ্বকাপের আগে প্রস্তুতিমূলক সিরিজ খেলতে এসেই বাংলাদেশ সম্পর্কে প্রথম ধারণাটা পান। কাল সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ দলের বোলারদের সম্পর্কে বলতে গিয়ে বারাথ ফিরে গেলেন তিন বছর আগের স্মৃতিতে, ?বাংলাদেশ দলের বিপক্ষে এখনো খেলিনি। তবে ২০০৮-এ মালয়েশিয়ায় অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ খেলতে যাওয়ার আগে এখানে খেলে গিয়েছিলাম। এখানকার উইকেট, কন্ডিশন সম্পর্কে একটা ধারণা পেয়েছিলাম তখন। এবার সেই অভিজ্ঞতা কাজে লাগবে।? পুরোনো অভিজ্ঞতা থেকেই তাঁর ধারণা, বাংলাদেশে উইকেট মন্থর। তবে বলেছেন, ?...আমরা যেকোনো কিছুর জন্যই প্রস্তুত। আমাদের দলে এমন ক্রিকেটার আছে, যারা প্রতিকূল কন্ডিশনেও ভালো খেলার সামর্থ্য রাখে।?
বাংলাদেশকে হালকাভাবে না নেওয়ার কথা ঢাকায় এসে একাধিকবার বলেছে ক্যারিবীয় শিবির। দলের ?সিরিয়াস? অনুশীলনও বলছে সেটাই। বারাথ জানালেন, তাঁদের প্রস্তুতিটা বাংলাদেশ দলের আলাদা কোনো খেলোয়াড়ের জন্য নয়, ?বাংলাদেশ দলের সব বোলারকে নিয়েই আমরা ভাবছি। সাকিব আছে, আছে আরও অভিজ্ঞ অনেক বোলার। আমাদের ব্যাটসম্যানরা যেভাবে তাদের নিয়ে হোমওয়ার্ক করছে, আশা করি, ভালো কিছুই হবে।? ঢাকায় আসার আগের প্রস্তুতিটাও আত্মবিশ্বাসী করে তুলছে লারার স্বদেশি তরুণকে, ?এখানে আসার আগে আমরা বারবাডোজে ক্রিকেট একাডেমিতে প্রস্তুতি নিয়েছি। দুবাই গিয়েছি। আমি মনে করি, অনুশীলনই আসল এবং দল সে কাজটা ভালোভাবেই করছে।?
সিরিজ শুরু হবে ১১ অক্টোবর, আর ওয়েস্ট ইন্ডিজ দল ঢাকায় এসেছে ৪ অক্টোবর। সিরিজ শুরুর আগে এখানকার জল-হাওয়ার সঙ্গে মানিয়ে নেওয়ার ভালো সুযোগ পেল দলটা। বারাথও বলছেন, ?বাংলাদেশে এসে বাংলাদেশের বিপক্ষে খেলা সব দলের জন্যই চ্যালেঞ্জ। আগে আসায় ভালোই হয়েছে। কারণ, ম্যাচের প্রস্তুতি নেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আবহাওয়ার সঙ্গেও মানিয়ে নেওয়া যাচ্ছে। একটু গরম পড়লেও আমরা এ ধরনের আবহাওয়ায় অভ্যস্ত।?
লারা নেই তো কি, ওয়েস্ট ইন্ডিজকে সাহস দিতে তাঁর দেশের বারাথ তো আছেন!

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে