Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, শুক্রবার, ১৫ নভেম্বর, ২০১৯ , ১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

গড় রেটিং: 2.6/5 (42 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ১০-০৮-২০১১

ক্যারিবিয়ান পেসেই বেসামাল!

ক্যারিবিয়ান পেসেই বেসামাল!
ম্যাচ শেষের পাঁচ মিনিট হয়েছে কি হয়নি, লেন্ডল সিমন্স, কাইরান পাওয়েল, দিনেশ রামদিনরা আবার ব্যাট হাতে নেমে গেলেন। জয় দিয়ে সফর শুরুর করা স্বস্তি অবশ্যই আছে। কিন্তু ব্যাটসম্যানদের অনুশীলন যে মনমতো হয়নি, সেটা বোঝা গেল পরিষ্কার। ম্যাচ শেষেও তাই নেটে বেশ কিছুক্ষণ চলল ব্যাটিং অনুশীলন।
আর বিসিবি একাদশ? প্রস্তুতি ম্যাচের আড়ালে বেশ কয়েকজনের জন্য এটি ছিল আসলে ওয়ানডে দলে জায়গা পাওয়ার লড়াই। সবাই ভালো করলে নির্বাচকদের কাজটা অনেক কঠিন হয়ে যেত। কিন্তু শাহরিয়ার-নাঈম-শুভাগতদের দৃষ্টিকটু ব্যাটিং আকরাম খানদের কাজ মনে হয় কিছুটা হলেও সহজ করে দিল। অলক কাপালি আর আশরাফুলই বলার মতো যা একটু পারফর্ম করলেন। দুজনই দারুণ বোলিং করেছেন। তবে ব্যাট হাতে থিতু হয়েও বাজেভাবে আউট হওয়ার দায় এড়াতে পারবেন না তাঁরাও। ম্যাচ শেষে তাই অলক কাপালির কণ্ঠে সংশয়, ?বুঝতে পারছি না পরীক্ষায় পাস করলাম কি না।?
এ তো গেল দলে ঢোকার ব্যক্তিগত লড়াইয়ের কথা। দলীয় অর্জনের কথা চিন্তা করলেও দারুণ একটু সুযোগ হারিয়েছে বিসিবি একাদশ। সফরের প্রথম ম্যাচে বাংলাদেশের দ্বিতীয় সারির দলের কাছে হারলে মানসিকভাবে অনেকটাই পিছিয়ে সিরিজ শুরু করত ওয়েস্ট ইন্ডিজ। হারানোর সুযোগটাও পেয়েছিল বিসিবি একাদশ। স্পিনারদের দুর্দান্ত বোলিং ২১৭ রানেই বেঁধে ফেলেছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজকে। কঠিন উইকেটেও আজকাল ২১৭ রান খুব কঠিন কিছু নয়। ফতুল্লার খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামের উইকেট তো সেখানে দেশের সেরা ব্যাটিং উইকেটগুলোর একটি। কিন্তু ব্যাটসম্যানদের বাজে শট খেলার প্রতিযোগিতায় এই ম্যাচটাও হারতে হলো ৬৫ রানের বড় ব্যবধানে।
ব্যাটিং বাজে হয়েছে, তার চেয়েও গুরুত্বপূর্ণ হলো, সিরিজে বাংলাদেশকে ঘায়েল করার অব্যর্থ অস্ত্র মনে হয় পেয়েই গেছে ক্যারিবীয়রা। বাংলাদেশে এসে প্রথম সংবাদ সম্মেলনে ড্যারেন স্যামি বলেছিলেন, ?জেনুইন ফাস্ট বোলাররা যেকোনো উইকেটেই গতির ঝড় তুলতে পারে, আমার আছে তিনজন জেনুইন ফাস্ট বোলার।? সেই তিনজনের একজন খেলেছেন কাল এবং তাঁর কাছেই মূলত কুপোকাত বিসিবি একাদশের ব্যাটিং। ৯ ওভারে ৩ মেডেন, ২৩ রানে ৪ উইকেট, এই পরিসংখ্যানও ঠিক পরিষ্কার বোঝাচ্ছে না রামপলের পারফরম্যান্স। এই উইকেটেই নিয়মিত বল করে গেলেন ব্যাটসম্যানদের পাঁজর লক্ষ্য করে, ত্রিনিদাদের ফাস্ট বোলারকে স্বস্তিতে খেলতে পারেননি একজন ব্যাটসম্যানও। এমনকি দুই পেস বোলিং অলরাউন্ডার আন্দ্রে রাসেল ও কার্লোস ব্রাফেটের বাউন্সও যথেষ্ট ভোগাল ব্যাটসম্যানদের। অলক-শুভাগত-নাসির-নাঈম?সবাই আউট হয়েছেন বাড়তি বাউন্সে! সবচেয়ে পীড়াদায়ক ছিল অবশ শাহরিয়ার নাফীসের ব্যাটিং, ৪৭ বলে ১৬ করছেন কালকের ম্যাচের অধিনায়ক।
এর মাঝেও নিজেদের সহজাত ব্যাটিং করেছেন আশরাফুল-অলক। স্যামিকে দৃষ্টিনন্দন এক স্কয়ার ড্রাইভে চার দিয়ে শুরু আশরাফুলের। এক বল ডট দেওয়ার পর টানা দুটি চার, একটি কভার ড্রাইভ, আরেকটি পুল শটে। পুল-হুকে এল আরও তিনটি চার। আউট যথারীতি তাঁর মতো করেই, টানা তিন বলে স্কয়ার কাট করতে গিয়েও পারলেন না, চতুর্থবার একই প্রচেষ্টায় কট বিহাইন্ড (২৯ বলে ৩২)। অলকের ব্যাটিংয়ে যথারীতি ছিল চোখের প্রশান্তি, কিন্তু রামপল দ্বিতীয় স্পেলে এসেই ফিরিয়েছেন তাঁকে (৫৬ বলে ৪১)।
ব্যাটিংটা ভালো হয়নি ক্যারিবীয়দেরও। ব্রাভো-স্যামুলেয়সরা থিতু হয়েও বড় কিছু করতে পারেননি। উইকেট পেয়েছেন বাংলাদেশের ৫ স্পিনারই। দারুণ বোলিং করেছেন অলক, ৪২ ও ৪৪তম ওভারে বোলিং করে মাত্র ৯ রানে ৩ উইকেট আশরাফুলের। প্রথম স্পেলে ৫ ওভারে ৭ রান দেওয়া রবিউল ইসলাম স্লগ ওভারে ২ ওভারে ৩৫ রান না দিলে হয়তো দুই শই পেরোত না ক্যারিবীয়দের ইনিংস। তবে বিসিবি একাদশ যেমন ব্যাটিং করেছে, হয়তো যথেষ্ট হতো সেটাও!

সংক্ষিপ্ত স্কোর
ওয়েস্ট ইন্ডিজ: ৪৫ ওভারে ২১৭/৯ (সিমন্স ৪, পাওয়েল ১৮, ব্রাভো ৪৭, স্যামুয়েলস ৩০, হায়াট ১৪, স্যামি ২৭, রামদিন ৩০, ব্রাফেট ২, রাসেল ৮, রামপল ১৫*, মার্টিন ১*। বোলিং: রবিউল ৭-১-৪২-১, আলাউদ্দিন বাবু ৪-০-১৬-০, নাঈম ৫-১-২৪-১, নাসির ৯-১-২৮-১, সোহাগ ৯-০-৬০-১, অলক ৯-০-৩২-২, আশরাফুল ২-০-৯-৩)।
বিসিবি একাদশ: ৪১ ওভারে অলআউট ১৫২ (শাহরিয়ার ১৬, জুনায়েদ ০, আশরাফুল ৩২, অলক ৪১, শুভাগত ১০, নাঈম ১২, নাসির ২০, আলাউদ্দিন ৪, সগীর ০, সোহাগ ৭*, রবিউল ৩। বোলিং: রামপল ৯-৩-২৩-৪, স্যামি ৪-০-৩১-১, মার্টিন ৮-১-২৫-১, রাসেল ৭-০-১৮-১, স্যামুয়েলস ৮-০-২৭-২, ব্রাফেট ৫-০-২২-১)। ফল: ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৬৫ রানে জয়ী।

ফুটবল

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে