Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, সোমবার, ১৩ জুলাই, ২০২০ , ২৯ আষাঢ় ১৪২৭

গড় রেটিং: 4.0/5 (2 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৩-১৭-২০১২

শচীন যা বললেন

শচীন যা বললেন
গত একবছর একই প্রশ্ন তাড়িয়ে বেড়াচ্ছিল আমাকে। রেস্টুরেন্টে খেতে গিয়ে শুনতে হয়েছে এ প্রশ্ন। হাউস কিপার বা হোটেলের রুম সার্ভিস আমাকে দেখলে একই প্রশ্ন তাদেরও। অথচ বিশ্বকাপে যখন ৯৯ নম্বর সেঞ্চুরিটি পেলাম তখন খুব বেশি আলোচনা শুনিনি এ নিয়ে- বিরল রেকর্ড স্থাপন শেষে প্রতিক্রিয়া জানাতে রমিজ রাজার প্রশ্নের শুরুতেই গড়গড় করে এসব বলে গেলেন ভারমুক্ত ব্যাটিং জিনিয়াস শচীন টেন্ডুলকার। ভারতের ইনিংস শেষে ক্যামেরা-বুমের সামনে তার ১০০ সেঞ্চুরি নিয়ে খুব বেশি আবেগ দেখালেন না এ মাস্টার ব্লাস্টার। গত একবছরে নিজকণ্ঠে বহুবার বলা কথাটির  প্রতিধ্বনি শোনালেন আরেকবার। ‘পরিসংখ্যানের জন্য খেলি না আমি। ১০০ সেঞ্চুরি নয়, আমার কাছে দলের সাফল্যটাই গুরুত্বপূর্ণ- বললেন শচীন। তবে মুখে যাই বলেন না কেন শচীন। অপূর্ণ ১০০ সেঞ্চুরির বোঝাটি শচীনের মনে কেমন চেপেছিল তা দেখা গেছে মিরপুরের শেরেবাংলা মাঠেই। শতক পূর্ণ করে শচীনকে এর আগে ৯৯ বার ব্যাট তুলে, আকাশে চেয়ে সন্তোষ প্রকাশ করতে দেখেছে বিশ্ব। তবে গতকাল নিজের সেঞ্চুরির শততম দিনে এসময় শচীনের অভিব্যক্তি দেখাচ্ছিল উচ্ছ্বাসের তুলনায় ভারমুক্তির। বললেন, এদিন শেরেবাংলার উইকেট ছিল তুলনামূলক ধীরগতির। রান তোলা সহজ ছিল না। বল উইকেটে পিচ খেয়ে ব্যাটে আসছিল নিচু হয়ে। ব্যাটিংয়ের ফাঁকে অন্যপ্রান্তের সতীর্থ বিরাট কোহলির সঙ্গে এ নিয়ে কথা বলে নিচ্ছিলেন ফাঁকে ফাঁকে। দুদিন আগে ভারতের ঐচ্ছিক অনুশীলনে কঠোর অনুশীলনে ঘাম ঝরান শচীন। এসময় সতীর্থ রাহুল শর্মার সঙ্গে হাসি ঠাট্টায় দেখা যায় শচীনকে। সেদিনের হাসি ঠাট্টা হয়তো ছিল চাপ কমাতে। আর লক্ষ্য পূরণ শেষে হাসি-মশকরা করতে দেখা গেল গতকালও। ১০০ সেঞ্চুরি না হোক দলের সাফল্যের জন্যই সই- পরিশ্রম চালিয়ে যাচ্ছিলেন তো খুব- এমন প্রশ্নে হাসিমুখ শচীন বললেন ‘হ্যাঁ, ওজন কমেছে বোধহয় ৫০ কিলো।’ ঐতিহাসিক এ মুহূর্তে ছেলের উদ্দেশে শচীনকে কিছু বলতে বললেন রমিজ রাজা। শচীন পুত্র অর্জুন ইতোমধ্যেই ক্রিকেট বিশ্বের নজর কেড়েছে। শচীন বললেন, ‘এনজয় দ্য গেম, চেজ দ্য ড্রিম’। ওয়ান ডে ড্রিম উইল বিকাম ট্রু। বলেন, ‘খেলাটা উপভোগ করি আমি। সঙ্গে অটুট থাকে এ নিয়ে আমার স্বপ্ন দেখাটাও। আর লক্ষ্য পূরণ হয় এমনিতেই। বিশ্বকাপ হাতে নিতে ২২ বছর অপেক্ষা করতে হয়েছে আমাকে।’ শচীনের শতরানের সেঞ্চুরির রেকর্ডটির পাশে শেরেবাংলা মাঠের নামটি যুক্ত থাকবে যুগে যুগে নিশ্চিত। বাংলাদেশের খেলা পাগল দর্শকদের কাছে এও কম কি?

ফুটবল

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে