Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, সোমবার, ১৪ অক্টোবর, ২০১৯ , ২৯ আশ্বিন ১৪২৬

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৩-১৫-২০১২

ফের ভোট দিলে সুসংবাদ: প্রধানমন্ত্রী

ফের ভোট দিলে সুসংবাদ: প্রধানমন্ত্রী
জাতিসংঘের রায়ে বঙ্গোপসাগরে ২০০ নটিক্যাল মাইলের ওপর বাংলাদেশের অধিকার নিশ্চিত হওয়া প্রসঙ্গটি সামনে এনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, “সমুদ্র সীমানা বিরোধ নিয়ে ভারতের সঙ্গে রায় হবে ২০১৪ সালে। বাংলাদেশের জনগণ যদি পরবর্তী নির্বাচনে আমাদের ভোট দিয়ে ক্ষমতায় আনে, তাহলে ২০১৪ সালে জনগণকে একই রকম আরেকটি সুখবর দিতে পারবো।”

 

বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদের বৈঠকে সংসদ নেতার বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

 

বক্তব্যের শুরুতে শেখ হাসিনা বলেন, ‘‘জনগণকে আজ আমি একটি ভাল সংবাদ দিতে এসেছি। আপনারা হয়তো এরিমধ্যে পত্রিকায় সংবাদটি পড়েছেন। মিয়ানমারের সঙ্গে সমুদ্রসীমা নিরসনে আন্তর্জাতিক সমুদ্র আইন ট্রাইব্যুনালের রায়ের মধ্য দিয়ে আজ আমরা বঙ্গোপসাগরে ২০০ নটিক্যাল মাইল অর্থনৈতিক সীমানার ওপর নিরঙ্কুশ অধিকার লাভ করেছি।’’

 

তিনি বলেন, ‘‘নির্দিষ্ট সময় শেষ হওয়ার আগেই আমরা জাতিসংঘে দাবিটি উত্থাপন করি। যথাসময়ে দাবি জানাতে না পারলে চিরতরে সমুদ্রের ওপর অধিকার হারাতাম। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এসেছে বলেই এটা সম্ভব হয়েছে।’’

 

তিনি বলেন, ‘‘পররাষ্ট্রমন্ত্রী দীপু মনি, জার্মানিতে নিযুক্ত রাষ্ট্রদূত রায় প্রদানের সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন। বাংলাদেশ এখন স্বাধীনভাবে ও মিয়ানমারের বাঁধা ছাড়াই গভীর সমুদ্রে মৎস্য, খনিজ সম্পদ অনুসন্ধানে স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারবে।’’

 

তিনি বলেন, ‘‘আইনি সমঝোতার মধ্য দিয়ে রায়টি আসায় বাংলাদেশ ও মিয়ানমার উভয়ের জন্যই ভাল হয়েছে। মিয়ানমারের চেহারা আন্তর্জাতিক অঙ্ঘনে উজ্জ্বল হয়েছে। এ জন্য মিয়ানমারকে ধন্যবাদ।’’

 

তিনি বলেন, ‘‘বাংলাদেশের সেন্টমার্টিন দ্বীপে মিয়ানমারের মালিকানা রয়েছে বলে দেশটি যে দাবি তুলেছে ট্রাইব্যুনাল তা খণ্ডন করেছে। এ কাজটি মাত্র দুই বছরের মধ্যে সম্পাদন করায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও নৌ বাহিনীকে ধন্যবাদ।’’

 

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘‘যখনই আমরা পরিকল্পনা নিয়েছি মিয়ানমারের বিরুদ্ধে ট্রাইব্যুনালে যাবো। সঙ্গে সঙ্গে কক্সবাজারে আমরা বিমান বাহিনীর জন্য একটি ঘাটি তৈরি করি। এরই সুফল পেলাম বুধবার।’’

 

এখন আমরা বঙ্গোপসাগরে এক লাখ ১১ হাজার বর্গমাইল পেয়েছি। যার ওপর দিয়ে আমরা অবাধে স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারবো।’’

 

তিনি বলেন, ‘‘কারণ এর আগে এ সমস্ত বিষয় কেউই দেখেনি। বঙ্গবন্ধ সমুদ্রসীমা নিয়ে শুরু করা কাজ আমরা ধারাবাহিকভাবে চালিয়ে যাচ্ছি। শুধু সমুদ্রসীমা নয়। বাংলাদেশের প্রতিটি সীমানা আমরা নির্ধারণ করতে চাই। আমরা ইতোমধ্যে ভারত ও মিয়ানমারের সঙ্গে প্রায় নির্ধারণ করে ফেলেছি।’’

 

শেখ হাসিনা বলেন, ‘‘আজ আমার খুব ভাল লাগছে। আমরা একটি স্বাধীন দেশের নাগরিক হয়ে আমাদের সমুদ্রের ওপর পূর্ণাঙ্গ দাবি অদায় করতে পেরেছি। আমাদের সম্পদ এতোদিন অন্যদের অধীনে ছিল। এটা শত্রু-মিত্র সকলের জন্য আনন্দের দিন।’’

 

এ জন্য মহান আল্লাহর কাছে শুকরিয়া আদায় করেন প্রধানমন্ত্রী।

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে