Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, শনিবার, ৭ ডিসেম্বর, ২০১৯ , ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.2/5 (45 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৩-১৫-২০১২

নাইক্ষ্যংছড়ির সীমান্তে হঠাৎ মিয়ানমারের সৈন্য সমাবেশ

নাইক্ষ্যংছড়ির সীমান্তে হঠাৎ মিয়ানমারের সৈন্য সমাবেশ
জার্মানির হামবুর্গে ইন্টারন্যাশনাল ট্রাইব্যুনাল ফর দ্য ল অব সিতে (আটলস) বাংলাদেশ এবং মিয়ান-মারের মধ্যকার সমুদ্রসীমা বিরোধ মামলার রায় ঘোষণাকে কেন্দ্র করে হঠাৎ মঙ্গলবার রাত থেকে পার্বত্য জেলা বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার গুনধুম সীমান্ত এলাকায় সৈন্য সমাবেশ ঘটিয়েছে মিয়ান-মার। এ ঘটনায় দুই দেশের মধ্যে নতুন করে সীমান্ত উত্তেজনা দেখা দিয়েছে। সংঘর্ষের আশঙ্কায় সীমান্ত এলাকায় বসবাসরত বহু বাংলাদেশি পরিবার অন্যত্র নিরাপদে আশ্রয় নিয়েছে। নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান মো. নূরুল আবছার এবং গুনধুম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান দীপক বড়ুয়া জানান, কোনো উত্তেজনা ছাড়াই মঙ্গলবার সন্ধ্যার পর থেকে বাংলাদেশের গুনধুম ও তুব্রু সীমান্ত সংলগ্ন এবং মিয়ানমারের অভ্যন্তরে হাজার হাজার সৈন্য মোতায়েন করে মিয়ানমার। এ সময় মিয়ানমার সেনাবাহিনী বাংলাদেশ সীমান্ত ঘেঁষা মিয়ানমারের উংচিপ্রাং ক্যাম্প, ঢেঁকিবুনিয়া ক্যাম্প এবং মেহ্ধাই ক্যাম্পসহ এর আশপাশের প্রায় ১০ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে রণসজ্জায় সজ্জিত হয়ে অবস্থান নেয়। বিনা উস্কানিতে মিয়ানমার সৈন্যদের মারমুখি ভূমিকায় সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থান নেয় বাংলাদেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)। এ পরিস্থিতিতে দুই দেশের সীমান্ত এলাকায় বসবাসকারীদের মাঝে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। এদিকে সীমান্ত উত্তেজনা নিরসনে বুধবার বান্দরবানের গুনধুম সীমান্তে বিজিবি-নাসাকা কমান্ডার পর্যায়ে পতাকা বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। সকাল ১১টায় জেলার নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার গুধধুম সীমান্তের বিপরীতে মিয়ানমারের ৩ নাম্বার সেক্টর এলাকায় অনুষ্ঠিত পতাকা বৈঠকে বাংলাদেশের পক্ষে ১২ সদস্যের প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দেন বিজিবির ১৭ ব্যাটালিয়ন কমান্ডার লে. কর্নেল মো. খালেকুজ্জামান, পিএসসি এবং মিয়ানমারের পক্ষে ৯ সদস্যবিশিষ্ট প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দেন মিয়ানমার সীমান্তরক্ষী বাহিনী নাসাকার ৩ নাম্বার সেক্টর কমান্ডার ও ডেপুটি ডিরেক্টর থ্যান থিক অং। দুই ঘণ্টাব্যাপী চলা ওই পতাকা বৈঠকে দুই দেশের সীমান্ত পরিস্থিতি, সীমান্ত এলাকায় অবৈধ সৈন্য সমাবেশ, চোরাচালান এবং অবৈধ অনুপ্রবেশ বন্ধসহ সার্বিক বিষয়ে আলোচনা করা হয়। বৈঠকে নাসাকার প্রতিনিধি সীমান্ত শান্ত ও সুরক্ষার ব্যাপারে বাংলাদেশকে সব ধরনের সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছে বলে জানিয়েছেন বিজিবির ১৭ ব্যাটালিয়ন কমান্ডার লে. কর্নেল মো. খালেকুজ্জামান, পিএসসি। তিনি আরো জানান, এবারকার বৈঠকে বাংলাদেশের পক্ষে বাংলাদেশ-মিয়ানমারের ২১৭ কিলোমিটার সীমান্ত এলাকার মধ্যে ১৭ বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়নের আওতাধীন প্রায় ২৩ কিলোমিটার সীমান্ত এলাকার বিষয়গুলো ছাড়াও ইয়াবা ট্যাবলেট এবং মিয়ানমারের তৈরি মদসহ মাদকদ্রব্য ও রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ ঠেকাতে দেশটির সীমান্তরক্ষী বাহিনীর সহযোগিতা চেয়েছে বিজিবি। মিয়ানমারের সীমান্তরক্ষীরা বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে দেখবে বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। এছাড়া সীমান্ত সমস্যা সমাধানে প্রতি মাসে একবার বিজিবি-নাসাকার পতাকা বৈঠকের ব্যাপারেও সম্মত হয়েছে দুই দেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনী। সীমান্ত এলাকায় মিয়ানমার কর্তৃক সৈন্য সমাবেশ ঘটানোর বিষয়টি স্বীকার করে বিজিবির ১৭ ব্যাটালিয়ন কমান্ডার লে. কর্নেল মো. খালেকুজ্জামান, পিএসসি জানান, জার্মানির হামবুর্গে ইন্টারন্যাশনাল ট্রাইব্যুনাল ফর দ্য ল অব সিতে (আটলস) বাংলাদেশ এবং মিয়ানমারের মধ্যে সমুদ্রসীমা বিরোধ মামলায় বুধবার রায় ঘোষণাকে কেন্দ্র করে হঠাৎ বাংলাদেশের গুনধুম ও তুব্রু সীমান্তের ওপারে মিয়ানমার অতিরিক্ত সৈন্য বৃদ্ধি করে। এ ঘটনায় দুই দেশের সীমান্ত এলাকায় কিছুটা উত্তেজনা দেখা দেয়। উত্তেজনা নিরসনে পতাকা বৈঠকের জন্য মিয়ানমারের সীমান্তরক্ষী বাহিনী নাসাকার কাছে একটি চিঠি পাঠানো হলে তারা বৈঠকে বসতে রাজি হয়। সীমান্তে যে কোনো পরিস্থিতি মোকাবেলায় বিজিবিকে সবর্োচ্চ সর্তকাবস্থায় রাখা হয়েছে।
 

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে