Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, বৃহস্পতিবার, ১৪ নভেম্বর, ২০১৯ , ৩০ কার্তিক ১৪২৬

গড় রেটিং: 2.3/5 (24 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০২-১৫-২০১৫

ইতিহাসের পুনরাবৃত্তি, ৭৬ রানে হারল পাকিস্তান

ইতিহাসের পুনরাবৃত্তি, ৭৬ রানে হারল পাকিস্তান

অ্যাডিলেড, ১৫ ফেব্রুয়ারী- বিশ্বকাপ পাক-ভারত লড়াইয়ের ইতিহাসে নতুনত্ব আসেনি। বরং ইতিহাসের পুনরাবৃত্তিই হয়েছে অ্যাডিলেডে।পাকিস্তান পারেনি নতুন গল্প লিখতে। বরাবরের মতো ভারতের জয়গান দিয়েই শেষ হয়েছে দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী দলের স্নায়ুক্ষয়ী লড়াই।

রোববার অ্যাডিলেডে পাকিস্তানকে ৭৬ রানে হারিয়ে ২০১৫ বিশ্বকাপ মিশন শুরু করেছে ভারত। প্রথমে ব্যাট করে বিরাট কোহলির সেঞ্চুরি, শেখর ধাওয়ান-সুরেশ রায়নার হাফ সেঞ্চুরিতে ৭ উইকেটে ৩০০ রান করে ভারত। জবাবে ৪৭ ওভারে ২২৪ রানে অলআউট হয় পাকিস্তান। কোহলি ম্যাচ সেরা হন।

৩০১ রানের টার্গেটটা এমন উত্তেজনাকর ম্যাচে পাকিস্তানের জন্য কঠিন কর্মই ছিল। ইউনুসকে ওপেনিংয়ে পাঠিয়ে লম্বা ইনিংসের আশা করেছিল পাকিস্তান। কিন্তু ইনিংসের চতুর্থ ওভারেই অভিজ্ঞ ইউনুস (৬) ফিরে যান সাজঘরে। দ্বিতীয় উইকেটে আহমেদ শেহজাদ-হারিস সোহাইলের ৬৮ রানের জুটিতে ঘুরে দাঁড়িয়েছিল পাকিস্তান। হারিসকে (৩৬)রায়নার ক্যাচ বানিয়ে ব্রেক থ্রু এনে দেন অশ্বিন।

এরপর ইনিংসের ২৪তম ওভারে শেহজাদ ও শোয়েব মাকসুদকে ফিরিয়ে পাকিস্তানকে বিপদে ফেলে দেন উমেশ যাদব। শেহজাদ ৪৭ রান করলেও শোয়েব মাকসুদ রানের খাতা খুলতে পারেননি। পরের ওভারেই জাদেজার বলে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দেন উমর আকমল (০)।হঠাৎ ঝড়ে ২ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে বিপদে পড়ে যায় পাকিস্তান।

ষষ্ঠ উইকেটে আবারও পাক সমর্থকদের মনে আশার সঞ্চার করে মিসবাহ-আফ্রিদির জুটি। যদিও ৪৬ রান যোগ করেই থেমে যায় এই জুটি। দলীয় ১৪৯ রানে আফ্রিদি (২২) ক্যাচ দেন কোহলির হাতে। দুই বল পরই আবার ওয়াহাব রিয়াজও সামির শিকার হন।একপ্রান্ত আগলে প্রতিরোধ গড়ার চেষ্টা করেছিলেন পাক অধিনায়ক মিসবাহ। ইয়াসির শাহর সঙ্গে ৪৯ রানের জুটি গড়েন তিনি অষ্টম উইকেটে।পাল্টা আক্রমণ করলেও শেষ পর্যন্ত হার মানতে হয়েছে মিসবাহকে। দলীয় ২২০ রানে ৭৬ রান (৯চার, ১ছয়) করে আউট হন তিনি। সোহাইল খানকে আউট করে পাকিস্তানের ইনিংসের লেজটা মুড়ে দেন মোহিত শর্মা। ভারতের পক্ষে সামি ৪টি, উমেশ যাদব ২টি করে উ্ইকেট পান।
     
এর আগে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে ৩৪ রানে রোহিত শর্মার (১৫) উইকেট হারালেও পথ হারায়নি ভারতের ব্যাটিং লাইন। সোহাইল খানের বলে মিসবাহর হাতে ক্যাচ দেন রোহিত। পরে শেখর ধাওয়ান-কোহলি দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে ১২৯ রান যোগ করেন। হারিস সোহাইলের বলে কোহলির সঙ্গে ভুল বোঝাবুঝিতে আহমেদ শেহজাদের সরাসরি থ্রোয়ে রান আউট হন ধাওয়ান। তিনি ৭৬ বলে ৭৩ রান (৭ চার, ১ ছয়) করেন।

ধাওয়ানের বিদায়ের পর ভারতের ইনিংসটা টেনে গেছেন কোহলি-রায়না। তারা ১১০ রানের জুটি গড়েন তৃতীয় উইকেটে।দুবার জীবন পেলেও সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন ভারতের ব্যাটিং সেনসেশন বিরাট কোহলি। বিশ্বকাপে পাকিস্তানের বিপক্ষে প্রথম ভারতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে সেঞ্চুরি করলেন তিনি। যা পারেননি ব্যাটিং গ্রেট শচিন টেন্ডুলকারও। ওয়ানডে ক্যারিয়ারে কোহলির এটি ২২তম তম সেঞ্চুরি। পাকিস্তানের বিরুদ্ধে দ্বিতীয় সেঞ্চুরি। ১১৯ বলে সেঞ্চুরি করেন তিনি।সুরেশ রায়নাও ৩৪তম হাফ সেঞ্চুরি করেন। ৪০ বলে এই মাইলফলকে পৌঁছান তিনি।

কোহলি-রায়নাকে ফেরান সোহাইল খান। কোহলি ৮টি চারে ১০৭ রান করেন। রায়না ৭৪ রান করেন। শেষ দিকে ওয়াহাব রিয়াজ ও সোহাইল খানের নিয়ন্ত্রিত বোলিং চেপে ধরেছিল ভারতের ব্যাটসম্যানদের। যার ফলে ভারতের রানটা অত বড় হয়নি। শেষ দুই ওভারে ৮ রান তুলতে পেরেছিল ভারত। ধোনি করেন ১৮ রান। পাকিস্তানের সোহাইল খান ৫৫ রানে ৫ উইকেট নেন। ওয়াহাব রিয়াজ পান ১ উইকেট।

ক্রিকেট

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে