Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, শনিবার, ২৪ আগস্ট, ২০১৯ , ৮ ভাদ্র ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.3/5 (18 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৩-১২-২০১২

দলীয় নেতাকর্মীদের পদভারে প্রকম্পিত নয়াপল্টন

দলীয় নেতাকর্মীদের পদভারে প্রকম্পিত নয়াপল্টন
তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা পুনঃপ্রতিষ্ঠা, ‘ব্যর্থ অযোগ্য’ সরকারের পদত্যাগের দাবিতে ঢাকায় বিএনপির নয়াপল্টনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে চারদলীয় জোট ও সমমনা দলগুলোর মহাসমাবেশকে ঘিরে এই মুহূর্তে নয়া পল্টন যেন মিলনমেলায় পরিণত হচ্ছে।
 
রাতভর কয়েক হাজার নেতাকর্মী দলীয় কার্যালয়ের সামনে অবস্থান করে। সকাল হতেই চারদিক থেকে মানুষের স্রোত আসতে থাকে নয়াপল্টন অভিমুখে। সকাল দশটার মধ্যে পূর্বে ফকিরাপুল মোড় ও পশ্চিমে নাইটিংগেল মোড় পর্যন্ত সড়কে নেতাকর্মীরা অবস্থান নিয়েছে। ফকিরাপুল থেকে নাইটিংগেল সড়ক আগে থেকেই বন্ধ রয়েছে।
 
বিএনপি অফিসের উল্টো দিকে সড়কের ওপরে নির্মাণ করা হয়েছে বিশাল মঞ্চ। মাইকে গান বাজছে।
 
দুপুর দুইটায় সমাবেশ আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হবে।
 
সরকারের সব বাধা উপেক্ষা করে ‘চলো চলো ঢাকা চলো’ শ্লোগানে স্মরণকালের সর্ববৃহৎ সমাবেশ করার দিকেই এগিয়ে যাচ্ছে বিরোধীদল। সকাল থেকে এখন পর্যন্ত রাজধানীর কোথাও কোনো অঘটনের খবর পাওয়া যায়নি। নয়াপল্টন এলাকাও এখন পর্যন্ত শান্তিপূর্ণই আছে।
 
রোববার দিনভর নানা নাটকীয় ঘটনার পর ১১টি শর্তে মাইক ব্যবহারের অনুমতি দেয় ঢাকা মহানগর পুলিশ।
 
বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, “সদরঘাট, সায়েদাবাদ, যাত্রাবাড়ি, গাবতলীতে ঢাকার বাইরে থেকে লোকদের আসতে দেয়া হচ্ছে না। মাওয়া, দৌলতদিয়া, আরিচা ফেরি বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। ঢাকা-চট্টগ্রাম, ঢাকা-সিলেটসহ সব মহাসড়কে যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে। অতীতে কখনোই এ ধরনের ঘটনা আমরা দেখিনি।”
 
তিনি বলেন, “রাজধানীর প্রতিটি মহল্লায় নেতা-কর্মীদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে পুলিশ নির্যাতন চালাচ্ছে। মনে হয় যেন সন্ত্রাসের রাজত্ব কায়েম হয়েছে। টাঙ্গাইল, বরিশাল, ভোলা, নারায়ণগঞ্জ, জামালপুর, গোপালগঞ্জ, শরিয়তপুর, মানিকগঞ্জ ও রাজধানীতে গত ২৪ ঘণ্টায় প্রায় পাঁচ হাজার নেতা-কর্মীকে গ্রেফতার করা হয়েছে।”
 
বিশেষ কার্ড
কেন্দ্রীয় নেতাদের জন্য মহাসমাবেশের প্রতিনিধি (ডেলিগেট) কার্ড বিতরণ করা হয়েছে। স্থায়ী কমিটি, ভাইস চেয়ারম্যান, উপদেষ্টা পরিষদ, নির্বাহী কমিটির সদস্য মোট ৪৮০ জনের জনকে এই কার্ড দেয়া হয়েছে। এই কার্ড দেখিয়ে মঞ্চের কাছে সংরক্ষিত আসনে বসবেন তারা।
 
 
ব্যানার ফেস্টুন
ব্যানার, ফেস্টুন, ডিজিটাল সাইন আর পোস্টারে পুরো রাজধানী ছেয়ে গেছে। বিশেষ করে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের আশে পাশের ভবনগুলোর দেয়াল দেখা যাচ্ছে না এসবের কারণে। নয়া পল্টনে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে উত্তর-দক্ষিণ বরাবর মঞ্চ করা হয়েছে। নটর ডেম কলেজ, কাকরাইল, শান্তিনগর, জিরো পয়েন্ট, শাপলা চত্বর পর্যন্ত মানুষ যাতে নির্বিঘ্নে খালেদা জিয়ার বক্তব্য শুনতে পারেন, সে ব্যবস্থাও নেয়া হয়েছে। মঞ্চ থেকে দূরে বিভিন্ন স্থানে খালেদা জিয়ার বক্তৃতা দেখানো হবে বড় পর্দায়। পুলিশের অনুমতি দেয়া এলাকার মধ্যেই বেশ কয়েকটি স্থানে বড় পর্দায় সমাবেশ দেখার ব্যবস্থা করা হয়েছে।
 
জনসভায় খালেদা জিয়ার বক্তব্য ইন্টারনেটে সরাসরি দেখানো (ওয়েবকাস্ট) হবে। www.bnplive.com এই ঠিকানায় সরাসরি দেখা যাবে।
 
পুরো রাজধানীজুড়ে বিএনপির নিজস্ব একটি সিকিউরিটি ফোর্স প্রস্তুত রয়েছে। তারা পুরো মহাসমাবেশ মনিটর করবে। থাকবে অসংখ্য ভিডিও ও সিসি ক্যামেরা। উঁচু বিল্ডিংয়ে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পাশাপাশি বিএনপির নিজস্ব স্বেছাসেবকরা বাইনোকুলারের মাধ্যমে পুরো মহাসমাবেশ মনিটর করছে।
 
বিএনপির কর্মসূচিতে যোগ দিতে আসা ঢাকার বাইরের নেতাকর্মীদের ঢাকা মহানগর বিএনপি, ছাত্রদল নেতাকর্মীদের মহানগর ছাত্রদল, যুবদল নেতাকর্মীদের মহানগর যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল নেতাকর্মীদের মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দল ও স্ব স্ব অঙ্গ সংগঠনগুলোর স্বাস্থ্য ও নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকবে। নিরাপত্তার জন্য ১০ হাজার মুভি ক্যামেরা, ভিডিও ক্যামেরা এবং সিসিটিভি রাখার ব্যাবস্থা করা হয়েছে। আর প্রচারের জন্য ৩০০ মাইক ও ২০ টি প্রজেক্টর ব্যবহার করা হয়েছে।
 
১০ পয়েন্টে অবস্থান নিয়ে সারাদেশ থেকে আগত নেতাকর্মী ও সমর্থকদের রাজধানীতে অভ্যর্থনা জানাবে বিএনপি। এ জন্য ৫০ সদস্য বিশিষ্ট ১০টি টিম গঠন করা হয়েছে। অভ্যর্থনা টিমগুলো- মিরপুর ব্রিজ, মিরপুর বেড়িবাঁধ রোড, উত্তরা হাউস বিল্ডিং ৬ নম্বর সেক্টর, মহাখালী সেতু ভবনের পাশে, মহাখালী বাস টার্মিনাল, যাত্রাবাড়ী চৌরাস্তা, শ্যামপুর, পোস্তগোলা ব্রিজ, নয়াবাজার, কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন ও সদরঘাট।
 
মেডিকেল টিম
মহাসমাবেশকে উপলক্ষে ডক্টর’র এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ড্যাব) এর তত্ত্বাবধানে রাজধানীজুড়ে মোট ৩৬টি মেডিকেল টিম গঠন করা হয়েছে। এর মধ্যে ৮৯ জন ডাক্তারসহ ৮৫১ সদস্যের মেডিকেল টিম রয়েছে। রাজধানীর প্রতিটি প্রবেশ পথে একটি করে মেডিকেল টিম রয়েছে। এছাড়া বিভিন্ন পয়ন্টে মেডিকেল ক্যাম্প ও ভ্রাম্যমাণ মেডিকেল টিম কাজ করছে। ১১টি অ্যাম্বুলেন্স সার্বক্ষণিক দায়িত্ব পালন করছে। পল্টন এলাকায় রয়েছে ১০টি মেডিকেল টিম। একই সঙ্গে এগুলোতে ব্যবহার করা হবে একটি বিশেষ মেডিকেল প্রতীক। এই মেডিকেল টিমের সার্বিক ব্যবস্থাপনায় রয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও ড্যাব মহাসচিব ডা. এজেডএম জাহিদ হোসেন।
 
দলীয় সূত্রে জানা গেছে, বিকেল সাড়ে তিনটায় মঞ্চে আসবেন প্রধান অতিথি বেগম খালেদা জিয়া।
এর আগে ১৬ টি দলের সভাপতিরা বক্তৃতা দেবেন। এছাড়া বিএনপি’র ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদসহ কয়েকজন সিনিয়র নেতাও বক্তব্য দেয়ার সুযোগ পাবেন।
 
উল্লেখ্য, দেশব্যাপী চারটি রোডমার্চ ও বেশ কয়েকটি বড় জনসভা করেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। সর্বশেষ গত ৮-৯ জানুয়ারি চট্টগ্রাম বিভাগের রোডমার্চ শেষে চট্টগ্রাম রেলওয়ের পলোগ্রাউন্ডে বিশাল জনসভায় আজকের এই মহাসমাবেশের ঘোষণা দেন খালেদা জিয়া।

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে