Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, রবিবার, ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৯ , ১ পৌষ ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.3/5 (25 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৩-১০-২০১২

যুদ্ধাপরাধীদের পক্ষে কাজ করতে পাকিস্তানী গোয়েন্দা টিম ঢাকায়

যুদ্ধাপরাধীদের পক্ষে কাজ করতে পাকিস্তানী গোয়েন্দা টিম ঢাকায়
ঢাকা, ৯ মার্চ- একাত্তরে মানবতা বিরোধী অপরাধে অভিযুক্ত যুদ্ধাপরাধীদের পক্ষে প্রতিবেদন তৈরি করতে গোপন পরিচয়ে বাংলাদেশ ভ্রমণ করছে পাকিস্তান টেলিভিশনের ওয়ার্ল্ড সার্ভিসের (পিটিভি ওয়ার্ল্ড) একটি গোয়েন্দা দল। অন্তত ৪ সদস্যর দলটি পরিচয় গোপন করে বাংলাদেশে প্রবেশের পর এ ধরনের তৎপরতায় লিপ্ত রয়েছে বলে জানায় দায়িত্বশীল একটি গোয়েন্দা সংস্থা। পুলিশ ও র‌্যাবের মুখপাত্র বলেছেন এ ধরনের কার্যক্রম রাষ্ট্রদ্রোহীতার শামিল।
 

ঢাকা মহানগর পুলিশের মুখপাত্র ও গোয়েন্দা বিভাগের উপ-কমিশনার মোঃ মনিরুল ইসলাম জানান, এ ধরনের কার্যক্রম রাষ্ট্রদ্রোহীতার শামিল। আমরা পুরো ঘটনা খতিয়ে দেখছি। তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে। তবে এখনো নির্দিষ্ট কিছু পাইনি। পুরো ঘটনা তদন্ত করে এ ধরনের রাষ্ট্রদ্রোহীদের আইনের আওতায় আনার চেষ্টা করা হবে। তদন্ত চলছে। র‌্যাবের সদর দপ্তরের পরিচালক (আইন ও গণমাধ্যম) কমান্ডার মোঃ সোহায়েল জানান, এ ধরনের ঘটনা অবশ্যই রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের অংশ। যদি কেউ এমনটি করে থাকেন, তিনি দেশী বিদেশী যেখানকারই হোন না কেনো অবশ্যই কঠোর ব্যবস্থা নেয়া উচিৎ। এ ধরণের তথ্য যাচাই করা হবে। তবে র‌্যাবের কাছে সুনির্দিষ্ট কোনো অভিযোগ কিংবা তথ্য এখনো নাই।
ইতিমধ্যে পরিচয় গোপনকারী পিটিভি ওয়ার্ল্ডের কর্মীরা ঢাকায় গোলাম আযমের ১ ছেলে ও তার আইনজীবী প্যানেলের একাধিক সদস্য এবং সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর (সাকা চৌধুরী) একাধিক স্বজন ও তাদের নিয়োজিত আইনজীবী প্যানেলের একাধিক সদস্যর সাক্ষাৎকার গ্রহণ করেছে বলে একাধিক সূত্রে নিশ্চিত হয়েছে গোয়েন্দা সূত্রগুলো। অভিযোগ পাওয়া গেছে দলটি এশিয়া কাপের কাগজপত্র প্রদর্শন করে নির্বিঘেœ ঢাকায় প্রবেশের জন্য বিমান বন্দর ইমিগ্রেশন পার হতে সক্ষম হয়। এরপর তারা এশিয়া কাপের বিভিন্ন কার্যক্রমের পাশাপাশি আন্তর্জাতিক যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনালে বিচারাধীন যুদ্ধাকালীন সময়ে মানবতা বিরোধী অপরাধীদের পক্ষে কাজ শুরু করে। গোয়েন্দারা এ খবর পাওয়ার পর গত বুধবার রাত থেকেই রাজধানীর বিভিন্ন হোটেল, মোটেল, গেস্ট হাউজ এবং কয়েকটি বাসা-বাড়িতে পর্যবেক্ষণ শুরু করেছে। তবে আজ দুপুর পর্যন্ত গোয়েন্দারা পিটিভি ওয়ার্ল্ডের ডকুমেন্ট তৈরিকারী দলটিকে সনাক্ত করতে পারেনি। বিমান বন্দরের ইমিগ্রেশন
বিভাগের কাগজপত্র অনুসন্ধান করে দেখা যায় এশিয়া কাপকে উপলক্ষে করে গত ২ মাসে অগ্রগামী দল হিসেবে পাকিস্তান ও অপর ২টি দেশ থেকে বিপুল সংখ্যক পাকিস্তানি নাগরিক ঢাকায় আসেন। এ সংখ্যা শতাধিক বলে ধারণা দেয়া হয়। তাদের অনেকে ইতিমধ্যে চলেও গেছেন।
উল্লেখ্য, জামাতের সাবেক আমির গোলাম আযম, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য সাকা চৌধুরী, জামাতের কেন্দ্রীয় আমির মতিউর রহমান নিজামী, নায়েবে আমির দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদী, সেক্রেটারী জেনারেল আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদ, সহকারি সেক্রেটারী জেনারেল আব্দুল কাদের মোল্লা ও মোঃ কামারুজ্জামানসহ মোট ৮ জনকে ইতিপূর্বে গ্রেপ্তার করা হয়। তারা সবাই এখন কারাগারে বন্দি এবং যুদ্ধাকালীন সময়ে মানবতা বিরোধী অপরাধ বিচারের জন্য গঠিত আন্তর্জাতিক যুদ্ধারাধ ট্রাইব্যুনালে তাদের বিচার চলছে। গোয়েন্দা সংস্থার দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, আসন্ন ১১ মার্চ থেকে শুরু হওয়া এশিয়া কাপে অংশ গ্রহণের জন্য গতকাল বৃহস্পতিবার ঢাকায় পৌঁছেছে পাকিস্তান জাতীয় দল। তবে পাকিস্তান দল ঢাকা পৌঁছার আগে গত ১ মাসের বেশি সময়ে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক পাকিস্তানি নাগরিক অগ্রগামী দলে সংযুক্ত হয়ে কিংবা এশিয়া কাপ সংশ্লিষ্ট কাগজপত্র প্রদর্শন করে ঢাকা পৌঁছে। এদের মধ্যে অন্তত ৪ জন পিটিভির কর্মী হলেও তারা নিজেদের পরিচয় গোপন করে প্রাইভেট সার্ভিস কিংবা ভ্রমণ ভিসায় ঢাকায় আসেন। বুধবার আন্তর্জাতিক যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনালের আওতায় মানবতা বিরোধী অপরাধে বন্দি এবং বর্তমানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রিজন সেলে চিকিৎসার জন্য ভর্তি গোলাম আযমের সাক্ষাৎকার নেয়ার একটি গোপন পরিকল্পনার তথ্য পেয়ে জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থার সূত্রগুলো তৎপর হয়ে ওঠে। গোয়েন্দারা আঁচ করতে পারে যে বন্দি গোলাম আযমের সঙ্গে পাকিস্তান ভিত্তিক টেলিভিশন চ্যানেলের একটি দল গোপনে সাক্ষাৎকার কিংবা তার বক্তব্য নেয়ার চেষ্টা করছিলো। এই সূত্র ধরে এগুতেই গোয়েন্দা কর্মকর্তারা আরেকটু স্পষ্ট হয়েছেন যে গোপনে বিদেশী একটি টিভি চ্যানেলের একটি দল মানবতা বিরোধী অপরাধে অভিযুক্তদের সম্পর্কে সাফাই গাওয়ার জন্য ডকুমেন্ট তৈরি করছে। এ ধরণের কাজ রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে এক ধরনের ষড়যন্ত্র। ইতিপূর্বে মধ্যপ্রাচ্য ভিত্তিক আল জাজিরা টেলিভিশনও বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনাল এবং এর কার্যক্রম সম্পর্কে নেতিবাচক প্রতিবেদন প্রচার করেছে। ওই প্রতিবেদন প্রচারের পর বাংলাদেশের গোয়েন্দা কার্যক্রমের শ্লথগতি সম্পর্কে কয়েকটি বন্ধুপ্রতিম দেশও প্রশ্ন তুলেছে। সরকারের উচ্চ পর্যায় থেকেও ক্ষোভ প্রকাশ করা হয়। পরে দেশ বিদেশে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি প্রশ্নবিদ্ধ হলে সরকারের পক্ষ থেকে আল জাজিরায় চ্যানেলে আনুষ্ঠানিক প্রতিবাদ জানানো হয়। চ্যানেলটি সরকারের প্রতিবাদ গ্রাহ্য না করে ওইসব অনুষ্ঠান পুনঃপ্রচারও শুরু করেছে। আল জাজিরায় সম্প্রচারিত ফুটেজে লক্ষ্য করা গেছে যে, বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনালের কাঠগড়ায় যাদের বিচার চলছে তাদেরকে আদালত থেকে ট্রাইব্যুনালে আনা নেয়ার দৃশ্য এবং যুদ্ধাপরাধীদের পক্ষে অনেকের দেয়া সাফাই বক্তব্য। চ্যানেলটি তাদের ভাষায় এ ধরনের বিচার ব্যবস্থাতে বাংলাদেশে ইসলামের পক্ষে আন্দোলনকারী এবং সমমনাদের ওপর সরকারের পক্ষ থেকে নিপীড়ন বলে মন্তব্য করা হয়।

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে