Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, রবিবার, ২৬ জানুয়ারি, ২০২০ , ১৩ মাঘ ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.0/5 (1 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৩-০৫-২০১২

দুই নেত্রীর সংলাপেও রাজনৈতিক সঙ্কট সমাধান সম্ভব নয়

দুই নেত্রীর সংলাপেও রাজনৈতিক সঙ্কট সমাধান সম্ভব নয়
ঢাকা, ০৬ মার্চ- তত্ত্বাবধায়ক সরকার ইস্যুতে রাজনৈতিক সঙ্কটের সমাধান আওয়ামী লীগ ও বিএনপি’র দুই শীর্ষ নেত্রীর আলোচনাতেও সম্ভব নয় বলে মন্তব্য করেছেন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক প্রধান উপদেষ্টা বিচারপতি মুহাম্মদ হাবিবুর রহমান। তিনি বলেছেন, গণতন্ত্রে ভিন্নমত থাকে, সমাধানও থাকে। তাই নিজেদের সমস্যার সমাধান নিজেদেরই করতে হবে। বাইরে থেকে কেউ এসে করে দেবে, তার আগে আমরা তৈরি হবো না, এটা তো ঠিক না। আমি ‘মেইড ইন বাংলাদেশ’ সমাধান চাই।
গতকাল সোমবার রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে  ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) ও সার্ক সহযোগিতা বিষয়ক সেমিনার শেষে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন। এতে উপস্থিত ছিলেন ডেইলি সান সম্পাদক ড. সৈয়দ আনোয়ার হোসেন, সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা সিএম শফি সামি, ঢাকাস্থ নেপাল দূতাবাসের ডেপুটি চিফ অব মিশন কে সি আরিয়াল, ভুটান দূতাবাসের ডেপুটি চিফ অব মিশন কারমা এস তিসোর, শ্রীলঙ্কা হাইকমিশনের মিনিস্টার এজি অবিশেখার, ভারতীয় হাইকমিশনের ফার্স্ট সেক্রেটারি মনোজ কুমার মহাপাত্র, পাকিস্তান হাইকমিশনের ফার্স্ট সেক্রেটারি আমের আহমেদ আটোজাই, ভারতের ত্রিপুরা বিশ্ববিদ্যালয়ের রুরাল ম্যানেজমেন্ট অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড. জয়ন্ত চৌধুরী প্রমুখ।
বিচারপতি হাবিবুর রহমান বলেন, বাংলাদেশে মান্ধাতার আমলের রাজনীতি চলছে। এতে বলার বা শেখার কিছুই নেই। তাই রাজনৈতিক সঙ্কট সমাধানে কোন আলোচনা বা সংলাপে এর সমাধান সম্ভব নয়। এ জন্য এই পুরনো রাজনৈতিক সংস্কৃতি থেকে বেরিয়ে আসতে হবে। বর্তমান অবস্থায় আমি মোটেও হতাশ নই। তিনি বলেন, গণতন্ত্রে ভিন্নমত থাকবে। মতবিনিময়ের মাধ্যমে সম্ভাব্য সমাধানের পথ খুুঁজে বের করতে হবে। এ থেকে আমরা নিজেদের বঞ্চিত করতে পারি না। নেতারা যা বলবেন, আমরা তা শুনবো। তাদের শ্রদ্ধা জানাবো। দেশের অবস্থা নাজুক বলে আর চুপ করে থাকা যায় না। আর পালিয়ে যাওয়ারও উপায় নেই। আমি আশা করি আমরা রাজনৈতিক সঙ্কটের সমাধান পাবো।
দেশে চলমান রাজনৈতিক সঙ্কট নিরসনে তার কোন মত বা পরামর্শ আছে কিনা  জানতে চাইলে হাবিবুর রহমান বলেন, নতুন কিছু বলার নেই, শেখার নেই। আমার কোন সুপারিশ নেই। অনেকেই মনে করেন, দুই নেত্রীকে এক টেবিলে বসালেই সব সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে। তবে তা আমি মনে করি না।
বিদেশী দূতদের বিভিন্ন ফর্মুলার সমালোচনা করে বিচারপতি হাবিবুর রহমান বলেন, বাইরের কোন ফর্মুলায় দেশের সমাধান সম্ভব তো নয়ই, এটি মেনেও নেয়া যায় না। দেশের সমস্যা আমাদেরকেই সমাধান করতে হবে। আশা করি, সমাধান দ্রুত হবেই।
সেমিনারে হাবিবুর রহমান বলেন, এখনকার যুব সমাজ অনেক ডাইনামিক ধারণা পোষণ করে। তাদের চিন্তাধারার সঙ্গে মিলিয়েই রাজনীতির ধারার পরিবর্তন করতে হবে। বিশেষ করে দক্ষিণ এশিয়ার তরুণদের কাজ করার মানসিকতা রয়েছে। তারা এখন ভিসামুক্ত বিশ্ব আশা করে।
সাবেক উপদেষ্টা  সিএম শফি সামি বলেন, দক্ষিণ এশিয়ার মূল সমস্যা দারিদ্র্য, বর্ধিত জনসংখ্যা ও অশিক্ষা। এগুলোর সমাধানে ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন ও সার্ক সহযোগিতা করতে পারে। এটা সম্ভব হলে সমস্যা সমাধানে অগ্রগতির সম্ভাবনা আছে।
ড. জয়ন্ত চৌধুরী বলেন, ভবিষ্যতে বিভিন্ন দেশের সঙ্গে সম্পর্ক উন্নয়নে ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও সার্কের পারস্পরিক সম্পর্ক সেখানে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।
এজি অবিশেখার বলেন, ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও সার্কের মধ্যে সমন্বয়ে সহযোগিতার সম্পর্ক তৈরি হলে দক্ষিণ এশিয়ার বিভিন্ন দেশ আরও উন্নত হবে।

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে