Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, শনিবার, ১৮ জানুয়ারি, ২০২০ , ৫ মাঘ ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.6/5 (7 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৩-০৪-২০১২

কুমিল্লা ও রংপুরে সিটি গভর্নমেন্ট

কুমিল্লা ও রংপুরে সিটি গভর্নমেন্ট
ঢাকা, ৩ মার্চ: বাংলাদেশের দুটো সিটি কর্পোরেশনে নগর সরকার বা সিটি গভর্ণমেন্টের আদলে সব ধরনের সেবা দেয়ার ব্যবস্থা চালু করতে সরকার নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। নির্বাচিত সিটি কর্পোরেশন দুটি হলো কুমিল্লা ও রংপুর।
 
কর্মকর্তারা বলছেন, এই দুটো নতুন সিটি কর্পোরেশনের ক্ষমতা ও কাজের পরিধি বাড়ানো হবে, তবে পুলিশকে আপাতত মেয়রের আওতায় দেয়ার কোনো পরিকল্পনা নেই। স্থানীয় সরকার বিশেষজ্ঞরা অবশ্য সরকারের এই উদ্যোগকে সঠিক পদক্ষেপ বলে স্বাগত জানিয়েছেন।
 
ঢাকা কিংবা চট্টগ্রামের মতো শহরগুলোতে সিটি কর্পোরেশন থাকার পরেও উন্নয়নের কাজগুলো হয় ভিন্ন সংস্থার মাধ্যমে, সরাসরি সরকারের আওতায়। যেমন ঢাকায় উন্নয়নের দেখভাল করার দায়িত্ব রাজউকের, আর পানি সরবরাহ করে ওয়াসা। এর বাইরেও রয়েছে অনেকগুলো প্রতিষ্ঠান।
তবে নতুন গঠিত কমিল্লা ও রংপুর সিটি কর্পোরেশনের ক্ষেত্রে ভিন্ন ব্যবস্থা হচ্ছে।
 
স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব আবু আলম মোহাম্মদ শহীদ খান বলেন, ঢাকায় সংস্থাগুলোর মধ্যে সমন্বয়ের সমস্যা হচ্ছে এবং এ থেকেই তারা শিক্ষা নিয়েছেন।
 
তিনি বলেন, “ঢাকায় সেবা দেয়ার ক্ষেত্রে আমাদের নানারকম অসুবিধা হচ্ছে। এক সময়ে মনে করা হয়েছিল যে বড় একটি শহরে সিটি কর্পোরেশন একা সেবা দিতে পারবে কিনা। সেই চিন্তা থেকে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলা হলেও এর সীমাবদ্ধতা আমরা এখন বুঝতে পারছি।”
তিনি আরো বলেন, “সে কারণে আমরা ইনক্লুসিভ সিটি ডেভেলপমেন্ট করতে চাই, যাতে মহানগরের সবকিছুই একটি কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে পরিচালনা করতে পারি।”
 
মি. খান জানান, কুমিল্লা ও রংপুর সিটি কর্পোরেশনের ক্ষমতা ও সক্ষমতা দুটোই বাড়ানো হবে, যাতে পানি সরবরাহ কিংবা উন্নয়নের মতো কাজগুলো নির্বাচিত প্রতিনিধিরাই করতে পারেন।
তিনি বলেন, “উন্নয়নকাজগুলোতে জনগণকে সম্পৃক্ত রাখার লক্ষ্য নিয়ে আমরা ওয়ার্ডগুলোকেও শক্তিশালী করতে চেষ্টা করছি, ফলে এসব ক্ষেত্রে তারা মতামত দিতে পারবেন।”
 
পশ্চিমা অনেক দেশের বড় শহরে নগর সরকার ব্যবস্থা রয়েছে, যারা এমনকি পরিবহন এবং পুলিশ সেবাও নিয়ন্ত্রণ করে।
 
কুমিল্লা ও রংপুর সিটি কর্পোরেশনের হাতে পুলিশি ব্যবস্থা দেয়া হবে কি না, তা জানতে চাইলে স্থানীয় সরকার সচিব বলেন, তেমনটি আপাতত চিন্তা করা হচ্ছে না।
 
তবে সরকার পৌর পুলিশ গঠনের চিন্তা করছে বলে জানান মি. খান। তিনি বলেন, এ ব্যাপারে সরকারের কাজ অনেক দূর এগিয়ে গেছে। আমরা হয়তো শিগগিরই দেখতে পাবো সরকার পৌর পুলিশের একটি কাঠামো তৈরি করে ফেলেছে।
 
সিটি কর্পোরেশনগুলোকে নগর সরকার বা সিটি গভর্নমেন্টের ক্ষমতা দেয়ার জন্যে পুরানো সিটি কর্পোরেশনের মেয়ররা এর আগে দাবি জানিয়েছিলেন, তবে সরকার তখন তাতে সাড়া দেয়নি।
 
স্থানীয় সরকার বিশেষজ্ঞরা অবশ্য সেই দাবীর প্রতি সমর্থন জানিয়েছিলেন এবং এখনো তারা মনে করেন যে সিটি কর্পোরেশনগুলোর মাধ্যমে নগরবাসীকে সেবা দিতে হলে স্থানীয় পর্যায়ের ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করতে হবে।
 
সুজনের সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদার বলেন, “এটি কেবল দাবিই ছিল না, বরং আমি মনে করি এটি আমাদের সাংবিধানিক অঙ্গীকারও।”
 
তিনি বলেন, “সরকার যদি সত্যিই এই পদক্ষেপটি নেয়, তাহলে আমি মনে করি স্থানীয় পর্যায়ে স্থানীয় প্রতিনিধিদের মাধ্যমে স্থানীয় সমস্যা সমাধানে একটি অপূর্ব সূযোগ সৃষ্টি হবে, যার কোন বিকল্প নেই। স্থানীয়ভাবে নির্বাচিতদের ওপর দায়িত্ব দেয়ার প্রক্রিয়া শুরু হলে তা নিঃসন্দেহে একটি শুভ সূচনা।”
 
স্থানীয় সরকার সচিব আবু আলম শহীদ খান আশা করছেন যে আগামী অর্থবছরে অর্থের সংস্থান হলে কুমিল্লা ও রংপুরে নগর সরকার ব্যবস্থার আদলে সেবা দেয়া শুরু করা যাবে। আর এটি সফল হলে অন্য সিটি কর্পোরেশনগুলোতে তা চালু করা হবে বলে তিনি জানান। সূত্র: বিবিসি।

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে