Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, রবিবার, ১৭ নভেম্বর, ২০১৯ , ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

গড় রেটিং: 2.8/5 (19 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ১০-০৬-২০১১

ডারবান সম্মেলন: আশাবাদী নন হাছান মাহমুদ

ডারবান সম্মেলন: আশাবাদী নন হাছান মাহমুদ
আসন্ন ডারবান জলবায়ু সম্মেলনে স্বল্পোন্নত ও উন্নয়নশীল দেশগুলোর জন্য ইতিবাচক ফল পাওয়ার বিষয়ে আশাবাদী নন পরিবেশ ও বন প্রতিমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।
বুধবার হোটেল রূপসী বাংলায় খাদ্যনিরাপত্তা বিষয়ে এক কর্মশালায় তিনি বলেন, "সামনে ডারবান জলবায়ু সম্মেলন। কিন্তু এ সম্মেলন আমাদের মতো তৃতীয় বিশ্বের দেশগুলোর জন্য আদৌ কোনো ইতিবাচক ফল বয়ে আনবে কি না- সে ব্যাপারে আমার যথেষ্ট সন্দেহ রয়েছে।"

দক্ষিণ আফ্রিকার ডারবানে আগামী ২৮ নভেম্বর শুরু হবে জাতিসংঘের জলবায়ু বিষয়ক ষোড়শ ফ্রেমওয়ার্ক সম্মেলন- কোপ ১৭। গতবছর কোপ ১৬ সম্মেলন হয়েছিল কোপেনহেগেনে।

জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাবে যেসব দেশ সবচে বেশি ক্ষতির মুখে রয়েছে- তাদের অভিযোজন ও পুনর্বাসনে সহযোগিতা দেওয়ার পাশাপাশি কার্বন গ্যাস নিঃসরণের মাত্রা কমিয়ে আনার জন্য শিল্পোন্নত দেশগুলোকে একটি আইনি বাধ্যবাধকতাপূর্ণ চুক্তিতে আনার জন্য দাবি জানিয়ে আসছে স্বল্পোন্নত দেশগুলো।

গত বছরের সম্মেলনে এ চুক্তির বিষয়ে আলোচনার প্রতিশ্র"তি দেওয়া হলেও হাছান মাহমুদ সে ব্যাপারে আশাবাদী নন।

'বাংলাদেশের খাদ্যনিরাপত্তা বৃদ্ধিতে করণীয়' শীর্ষক কর্মশালায় প্রতিমন্ত্রী বলেন, খাদ্যনিরাপত্তা বিষয়টি জনসংখ্যা বৃদ্ধি এবং জলবায়ু পরিবর্তনের সঙ্গে সম্পর্কিত।

"এই বিশ্বে যে পরিমাণ সম্পদ রয়েছে, তা ২ থেকে ৩ শ' কোটি মানুষ ভালোভাবে বেঁচে থাকার জন্য উপযোগী। অথচ বর্তমানে বিশ্বের জনসংখ্যা প্রায় ৭ শ' কোটি। এর মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থা সবচেয়ে সঙ্কটময়।"

দেশে বর্তমানে প্রতি বর্গকিলোমিটারে ১১ হাজারেরও বেশি মানুষ বাস করে উল্লেখ করে হাছান মাহমুদ বলেন, বিশ্বব্যাপী খাদ্য নিরাপত্তা রক্ষায় এই বাড়তি জনসংখ্যা একটি বড় চাপ।

বাংলাদেশে জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাব সম্পর্কে তিনি বলেন, "এতে বৃষ্টিপাতের পরিমাণ ঠিক থাকছে না। একদিকে উত্তরবঙ্গে শত শত একর জমি মরুকরণের শিকার হচ্ছে, অন্যদিকে দক্ষিণে লবণাক্ততার কারণে চাষযোগ্য জমির পরিমাণ কমে যাচ্ছে।"

সরকার এই চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় সব ধরনের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বলেও উল্লেখ করেন প্রতিমন্ত্রী।

ইন্টারন্যাশনাল ফুড পলিসি রিসার্চ ইন্সটিটিউট আয়োজিত (আইএফপিআরআই) এই কর্মশালায় জানানো হয়, ধান উৎপাদনের দিক থেকে বাংলাদেশ বিশ্বে চতুর্থ হলেও এ দেশের প্রায় ৫ কোটি মানুষ দারিদ্র্র্যসীমার নিচে বাস করছে।

এর মধ্যে ৩ কোটি ৬০ লাখ মানুষ খাদ্যাভাব এবং অপুষ্টিতে ভুগছে। আর শিশুদের মধ্যে অপুষ্টিতে ভোগার হার ৪০ শতাংশেরও বেশি।

এশিয়া

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে