Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, সোমবার, ১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ , ৪ ফাল্গুন ১৪২৬

গড় রেটিং: 1.9/5 (140 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ১১-০৬-২০১৪

লাদেনের সেই হত্যাকারী

লাদেনের সেই হত্যাকারী

ওয়াশিংটন ডিসি, ০৬ নভেম্বর- আলকায়েদা এখন একটি টেরোরিস্ট ব্রান্ড। যে ব্রান্ডের আওতায় বিশ্বের প্রায় সকল সশস্ত্র সংগঠনকেই ফেলছে যুক্তরাষ্ট্র। যেখানেই যুক্তরাষ্ট্রকে নতুন কোনো সশস্ত্র গোষ্ঠির মুখোমুখি হতে হচ্ছে সেখানেই আলকায়েদা ব্রান্ডকে কাজে লাগিয়ে সশস্ত্র অভিযান চালানোর ফন্দি ফিকির বের করতে হচ্ছে তাদের। অথচ এই আলকায়েদা সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা ওসামা বিন লাদেনকে ২০১২ সালের ২ মে পাকিস্তানের অ্যাবোটাবাদে মার্কিন সিল বাহিনী রাতের অন্ধকারে হত্যা করে।

যদিও একটি স্বাধীন সার্বভৌম দেশে কিভাবে রাতের অন্ধকারে অন্য একটি দেশের সেনাবাহিনী অভিযান চালায় তা আজও পরিস্কার হয়নি বিশ্ববাসীর কাছে। পাকিস্তান এবং যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে অদ্ভুত এক নীরব আচরণ করা হয়েছে পুরো ব্যাপারটি নিয়ে। এমনকি এই অভিযানে কারা অংশগ্রহন করেছিল তাও এতোদিন অজানা ছিল। সম্প্রতি একটি আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের অনুসন্ধানী প্রতিবেদনের মধ্য দিয়ে বের হয়ে এসেছে মার্কিন সিল বাহিনীর সেই সদস্যের নাম যিনি ঠান্ডা মাথায় তিন তিনবার গুলি করে হত্যা করেছিলেন ওসামা বিন লাদেনকে।

মার্কিন সেই সিল বাহিনীটি গঠিত হয়েছিল দেশটির নৌবাহিনীর চৌকশ কিছু সদস্যকে নিয়ে। সেই সদস্যদের মধ্যে একজন ছিলেন রব ওনেইল। এক সাক্ষাতকারে রবের বাবা টম ওনেইল বলেন, ‘মানুষ আমাকে প্রায়ই ভয় দেখায় যে আইএস বাহিনী এসে রবের জন্য আমাদের সবাইকে হত্যা করবে। তাদের উদ্দেশ্যে আমি বলি যে, আমি আমার বাড়ির সদরদরজায় একটি নির্দিষ্ট লক্ষ্য একে দেব যাতে তারা আসতে পারে।’

পিতা যার এরকম তার সন্তান যে ঠান্ডা মাথায় ওসামা কিন লাদেনকে তিনবার গুলি করবে, তাতে আর অস্বাভাবিক কি। ৩৮ বছর বয়সী রব এখন মোটামুটি অবসর জীবনযাপন করছেন। যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে মাত্র কয়েকবার এলিট ফোর্স গঠন করার দরকার হয়েছিল। আর সেই এলিট ফোর্সের একজন সদস্য হিসেবে রবকে দেয়া হয়েছে রাষ্ট্রীয় সম্মান। যদিও লাদেন হত্যা পরবর্তীতে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ওবামা হোয়াইট হাউসে ছয় সদস্যের ওই সিল বাহিনীকে সম্মাননা জানিয়েছিল, কিন্তু তখন তাদের কারও ছবিই প্রকাশ করা হয়নি।

লাদেনকে হত্যা নিয়ে বেশকিছু বিতর্ক চালু আছে। তার মধ্যে একটি হলো, হোয়াইট হাউসের নির্দেশ ছিল যে লাদেনকে ধরার পথে যেই বাধা হয়ে দাড়াবে তাকেই হত্যা করা হবে, কিন্তু লাদেনকে আহত হলেও জীবিত গ্রেপ্তার করতে হবে। কিন্তু সিল বাহিনী লাদেনকে হত্যা করে এবং হোয়াইট হাউসের নির্দেশে গভীর সাগরে লাদেনের মরদেহ নিক্ষেপ করে। এক রিপোর্টে বলা হয় যে রব ওনেইল লাদেনকে একবার মাত্র গুলি করেছিল এবং তখন পর্যন্ত লাদের জীবিত ছিল। আর এই রিপোর্টটির অসত্যতা প্রমাণ হয় রব ওনেইলের ২০ বছর পূর্ণ হওয়ার আগেই সেনাবাহিনী থেকে বাধ্যতামূলক অবসর ঘটিয়ে দেয়ার বিষয়টির মধ্য দিয়েছ। মার্কিন সেনাবাহিনীর নিয়মানুযায়ী ২০ বছর পর  একজন সৈনিক স্বাভাবিক নিয়মে অবসরে যান, কিন্তু রব ওনেইলকে ১৬ বছরের মাথায় অবসরে পাঠানো হয়, তাও আবার লাদের হত্যার মিশনের পরপরই।

উত্তর আমেরিকা

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে