Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, বুধবার, ১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ , ৭ ফাল্গুন ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.5/5 (20 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০২-২৭-২০১২

ইভিএম অনিশ্চিত ইসিতে ভিন্নমত

ইভিএম অনিশ্চিত ইসিতে ভিন্নমত
দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ব্যবহারের বিষয়টি অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। গতকাল অনুষ্ঠিত এ সংক্রান্ত এক বৈঠকে কমিশনাররা আগামী নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহারের বিষয়টিতে একমত হতে পারেননি। পুরো বিষয়টি নিয়ে আরও জানা-বোঝার প্রয়োজন রয়েছে বলে মনে করছেন নয়া কমিশন। সূত্র জানায়, ইভিএম বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে গত কমিশনের রেখে যাওয়া কর্মপরিকল্পনা নিয়ে গতকাল দুই দফা বৈঠক করেন বর্তমান কমিশন। প্রথম দফায় বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট)-এর অধ্যাপক ও ইনস্টিটিউশন অব ইনফরমেশন-কমিউনিকেশন অ্যান্ড টেকনোলজি (আইআইসিটি)’র চেয়ারম্যান ড. লুৎফুল কবিরের সঙ্গে খোলামেলা আলোচনা করা হয়। এ পদ্ধতিতে কিভাবে ভোট দেয়া হয় তা-ও প্রদর্শন করা হয়। দ্বিতীয় দফায় প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও নির্বাচন কমিশনাররা আগামী নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার করা সমীচীন হবে কিনা এ নিয়ে ঘণ্টাব্যাপী আলোচনা করেন। তবে তারা কোন সিদ্ধান্তে পৌঁছতে পারেননি। কমিশন সচিবালয়ের সংশ্লিষ্ট এক কর্মকর্তা জানান, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার করতে হলে চলতি মাসের মধ্যেই সিদ্ধান্ত নিতে হবে। মার্চের মধ্যেই এ মেশিন উৎপাদন শুরু করতে হবে। তা না হলে আগামী জাতীয় নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার করা সম্ভব হবে না। প্রায় তিন লাখের কাছাকাছি ইভিএম তৈরি করতে অনেক সময়ের প্রয়োজন। এছাড়া এ সংক্রান্ত অর্থ ছাড় করানোসহ অনেক কাজ এখনও বাকি। সব মিলিয়ে এ মাসের মধ্যে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে না পারলে কোনভাবেই দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার করা সম্ভব হবে না। কমিশন বৈঠকে ইভিএম নিয়ে আলোচনার বিষয়ে নির্বাচন কমিশনার মোহাম্মদ আবু হাফিজ বলেন, ইভিএম নিয়ে বিশদ আলোচনা হয়েছে। আমরা এ বিষয়ে বুঝতে চেষ্টা করছি। আরও অনেক কিছু বোঝার আছে। তবে এটি আরও উন্নত করতে হবে। আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার করা হবে কিনা প্রশ্নে তিনি বলেন, এ বিষয়ে এখনও কোন সিদ্ধান্ত হয়নি। বিষয়টি অনেক জটিল ও সময়সাপেক্ষ। অপর নির্বাচন কমিশনার মোহাম্মদ আবদুল মোবারক বলেন, আগামী নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার করা হবে কি হবে না- তা এখনই বলা সম্ভব নয়। তবে বিষয়টি সক্রিয়ভাবে বিবেচনাধীন আছে। ইভিএম পদ্ধতির সুবিধা উল্লেখ করে কমিশনার মোবারক বলেন, ফলাফল যত দ্রুত দেয়া যায় ততই ভাল। কারণ, ফল প্রকাশ করতে দেরি হলেই মানুষ মনে করে- ফল পাল্টানোর চেষ্টা চলছে। ইভিএম পদ্ধতিতে দ্রুত ফল দেয়ার সুবিধাটা আছে। তাছাড়া দিন যতই যাচ্ছে মানুষ তত প্রযুক্তির পথে হাঁটছে। সুতরাং প্রযুক্তিকে বাদ দিয়ে কখনও সামনের দিকে এগিয়ে যাওয়া সম্ভব নয়। প্রতিনিয়ত ইভিএম আপডেট হতে থাকবে বলেও মন্তব্য করেন তিনি ।
নতুন মডেল তৈরিতে বুয়েট চেয়েছে ২ কোটি টাকা: ইভিএম পদ্ধতিকে আরও আধুনিক করতে সদ্যবিদায়ী ড. হুদা কমিশন বুয়েটকে দায়িত্ব দিয়েছিল। নতুন ডিজাইনের ইভিএম-এর মডেল তৈরি করতে বুয়েট ২ কোটি টাকা চেয়েছে। এরই মধ্যে তৈরি হওয়া একটি মেশিনের ডিজাইন পরিবর্তন করতে কেন এত টাকা লাগবে- এ নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন খোদ কমিশন সচিবালয়ের কর্মকর্তারা। ইভিএম তৈরিতে কমিশন শুধু বুয়েটের ওপর নির্ভরশীল হওয়ায় প্রতিষ্ঠানটি ইচ্ছামতো অর্থ দাবি করছে বলে মন্তব্য করেছেন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। বুয়েটের দেয়া চাহিদাপত্রে ডিজাইন তৈরির কাজে বিদেশ সফরে যাওয়ার জন্য চাওয়া হয়েছে ৩১ লাখ টাকা। এছাড়া বিশেষজ্ঞ সেবা বাবদ ৭২ লাখ, সাপোর্ট টিমের খরচ বাবদ ২৭ লাখ ৫০ হাজার এবং বিভিন্ন মালামাল বাবদ চাওয়া হয়েছে আরও ৬৪ লাখ ৫০ হাজার টাকা। ইভিএম-এর নতুন মডেল তৈরির কাজের নাম দেয়া হয়েছে প্রটোটাইপিং প্রকল্প। নতুন মডেল তৈরিতে সময় চাওয়া হয়েছে ৬ মাস।
বিদায়ী ইসি’র ইভিএম প্রস্তুতি: বিদায়ের আগে ইভিএম নিয়ে বুয়েট ও মেশিন টুলস ফ্যাক্টরির সঙ্গে হুদা কমিশন বেশ কয়েকটি বৈঠক করলেও চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত দিয়ে যেতে পারেনি। ইভিএম বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়ার ভার তারা ছেড়ে দেয় নতুন নির্বাচন কমিশনের ওপর। তবে ২০১৩ সালের আগস্টের মধ্যে যাতে প্রয়োজনীয় সংখ্যক ইভিএম সংগ্রহ করা যায় সেজন্য প্রাথমিক প্রস্তুতি রেখে যায় হুদা কমিশন। এরই অংশ হিসেবে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) ও বাংলাদেশ মেশিন টুলস ফ্যাক্টরির সঙ্গে একাধিক বৈঠক করে ইসি। ওই সব বৈঠক থেকে দশম জাতীয় নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার সম্ভব করতে ২০১৩ সালের আগস্টের মধ্যে পৌনে তিন লাখ সেট ইভিএম প্রস্তুত ও সরবরাহের প্রাথমিক আলোচনা হয়। আর ইভিএম সংরক্ষণের দায়িত্ব দেয়া হয় বিএমটিএফ-কে।

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে