Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, মঙ্গলবার, ২১ মে, ২০১৯ , ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬

গড় রেটিং: 2.9/5 (211 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৯-০৪-২০১৪

প্রতারক দালালকে পুলিশে দিলেন বাহরাইনে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত  

মোসাদ্দেক হোসেন সাইফুল


প্রতারক দালালকে পুলিশে দিলেন বাহরাইনে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত

 

মানামা, ৪ সেপ্টেম্বর- প্রতারক ভিসা দালাল চক্রের নেতা রাশেদকে ধরে বাহরাইনের আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে সোপর্দ করলেন দেশটিতে নিযুক্ত বাংলাদেশি রাষ্ট্রদূত মেজর জেনারেল কে এম মমিনুর রহমান।

বৃহস্পতিবার রাষ্ট্রদূত কে এম মমিনুর রহমান বাংলানিউজকে বলেন, আবদুর রব নামের এক নিরীহ শ্রমিকের পাসপোর্ট গত ৮ বছর ধরে আটকে রেখেছিলো রাশেদ নামের প্রতারক ভিসার দালাল। এ ছাড়া আরও অনেকের সাথেই সে দীর্ঘদিন ধরে প্রতারণা করে আসছিলো । 

পরবর্তীতে আব্দুর রব বিষয়টি দূতাবাসকে অবহিত করলে, রাশেদকে পাসপোর্ট ফেরত দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়। কিন্তু তারপরও পাসপোর্ট ফেরত দিতে টালবাহান করায় মঙ্গলবার রাশেদকে ধরে বাহরাইনের পুলিশের কাছে হস্তান্তর করি ।

রাষ্ট্রদূত এ সময় বাহরাইনে তৎপর অসাধু বাংলাদেশি ভিসা দালাল ও প্রতারক চক্রের সদস্যদের  হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, যারা নিরীহ, গরীব ও খেটে খাওয়া এসব প্রবাসী বাংলাদেশি শ্রমিকদের সাথে প্রতারণা করবে এবং বিদেশে এসে দেশের ভাবমুর্তি  নষ্ট করবে, তারা যতই প্রভাবশালী হোক না কেন তাদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে।

উল্লেখ্য, দীর্ঘদিনের অব্যবস্থাপনা ও দূতাবাসের এক শ্রেণীর অসাধু কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের যোগসাজশে রীতিমত আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ হয়ে উঠেছে বাহরাইনে সংঘবদ্ধ ভিসা প্রতারক চক্র। জনশক্তি রপ্তানিতে কতিপয় অসাধু বাংলাদেশি দালালদের এ দৌরাত্ম্যের কারণে মধ্যপ্রাচ্যে সৌদি আরবের পরপরই সম্ভাবনাময় দেশটিতে অবৈধ ভিসা বাণিজ্য বেড়েই চলেছে। এতে দেশটিতে বাংলাদেশি শ্রমিকদের অভিবাসন ব্যয় বেড়ে গেছে অনেকখানি।

বাহরাইনে ভিসা পেতে সাধারণত সরকারি ফি বাবদ সংশ্লিষ্ট কোম্পানি বা মালিকের ব্যয় হয় সর্বসাকুল্যে ৫২ হাজার টাকা (২৫০ দিনার)। কিন্তু মালিক পক্ষ ও বাংলাদেশি  দালালের যোগসাজশে এই খরচ পৌঁছায় ৩ থেকে ৫ লক্ষ টাকায়। 

সরকারি বা প্রশাসনিক নজরদারির অভাবে দালালরা দিন দিন অপ্রতিরোধ্য হয়ে উঠেছে দেশটিতে। সামাজিকভাবে অবস্থান সৃষ্টির জন্য তারা বিভিন্ন সামাজিক ,স্বেচ্ছাসেবী,আঞ্চলিক ও রাজনৈতিক সংগঠনের আড়ালে বিস্তার করে চলেছে তাদের প্রতারণার জাল । এদের পৃষ্ঠপোষকতায় বাহরাইনে সংঘটিত হচ্ছে নানা অসামাজিক কর্মকাণ্ড । নষ্ট হচ্ছে দেশের ভাবমূর্তি। 

তবে বাহরাইনে নবনিযুক্ত রাষ্ট্রদূত মেজর জেনারেল কে এম মমিনুর রহমান যোগদানের পর থেকে এ চিত্র পাল্টাতে শুরু করে। যোগদানের পর থেকেই দালালদের দৌরাত্ম্য ও  সাধারণ নিরীহ মানুষের হয়রানি লাঘবের চেষ্টা করছেন তিনি। 

ইতিপূর্বে তিনি বাহরাইনে প্রবাসী বাংলাদেশিদের নিয়ে ওপেন হাউজ বৈঠকে মিলিত হয়েছেন। পাশাপাশি ভিসা প্রতারক চক্রের সদস্যদের শনাক্তের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন তিনি।

রাষ্ট্রদূতের এমন তৎপরতায় বদলে গেছে বাহরাইনের দূতাবাসের চিত্র। সেবার মান বেড়েছে বহু গুন । সাধারণ জনগণ যে কোন সমস্যা নিয়ে সরাসরি রাষ্ট্রদূতের সাথে  যোগাযোগ করতে পারছেন । 

অবশ্য এখনো হাল ছাড়েনি অপরাধীরা । তারা বিভিন্ন  সংগঠনের ব্যানারে  কোট টাই পরে ভদ্রলোক সেজে ফুলের তোড়া নিয়ে নতুন  রাষ্ট্রদূতের সাথে সখ্যতা গড়ে তোলার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। পাশাপাশি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে এ সকল ছবি পোস্ট করে নতুন ভাবে নিজেদের অস্তিত্বের জানান দেয়ার চেষ্টা করছে তারা। 

বাহরাইন

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে