Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, শুক্রবার, ১৫ নভেম্বর, ২০১৯ , ১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.6/5 (13 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৮-১৯-২০১৪

গাজায় অস্ত্রবিরতি বাড়ল আরো একদিন

গাজায় অস্ত্রবিরতি বাড়ল আরো একদিন

ঢাকা, ১৯ আগস্ট- গাজায় অস্ত্রবিরতি চুক্তি আরো ২৪ ঘণ্টা বাড়াতে সম্মত হয়েছেন ইসরায়েল ও ফিলিস্তিনি নেতারা। সোমবার পাঁচ দিনের অস্ত্রবিরতি শেষ হওয়ার মাত্র কয়েক মিনিট আগে তারা এতে সম্মত হন।মঙ্গলবার সকাল থেকে ওই বিরতি শুরু হয়েছে বলে জানা গেছে।
ফিলিস্তিন-শাসিত গাজায় যুদ্ধবিরতির মেয়াদ আরও ২৪ ঘণ্টার জন্য বাড়াতে রাজি হয়েছে হামাস ও ইসরায়েল।

বিবিসি অনলাইনের প্রতিবেদনে জানানো হয়, সর্বশেষ পাঁচ দিনের যুদ্ধবিরতি  সোমবার স্থানীয় সময় মধ্যরাতে শেষ হয়। মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই উভয় পক্ষ আরও ২৪ ঘণ্টার যুদ্ধবিরতিতে সম্মত হয়। মিসরের মধ্যস্থতায় গত বুধবার পাঁচ দিনের যুদ্ধবিরতি কার্যকর হয়। এর আগে তিন দিনের আরেকটি যুদ্ধবিরতি হয়েছিল।

তবে গাজায় স্থায়ী সংঘাত বন্ধে দীর্ঘ কায়রো আলোচনায় এখন পর্যন্ত কোনো সিদ্ধান্তে পৌঁছুতে পারেনি দুই পক্ষ। যদিও আলোচনা এখনো শেষ হয়নি।

সোমবার এক দিনের ওই চুক্তিতে পৌঁছানোর পর প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাসের ফাতাহ মুভমেন্টের উর্ধ্বতন নেতা আজাম আল-আহমাদ বলেছেন,‘গাজা সংঘাতের সমাধানে এখনো কোনো অগ্রগতি হয়নি। তবে আমরা আশা করছি আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে একটি চুক্তিতে পৌঁছাতে পারব।আর চুক্তিতে সম্মত না হলে ফের সহিংসতা শুরু হবে।’

এর আগে ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী বেনইয়ামিন নেতানিয়াহু হামাসকে হুঁশিয়ার করে দিয়ে বলেছিলেন, ফের রকেট হামলা চালানো হলে পাল্টা আঘাত হানবে ইসরায়েলি বাহিনী এবং তারা যে কোনো ধরণের পরিস্থিতি মোকাবেলার জন্য প্রস্তুত রয়েছে।

এদিকে সোমবার ২৪ ঘণ্টার অস্ত্রবিরতির কথা নিশ্চিত করে মিশর সরকার বলছে, গাজা সংঘাতের একটি স্থায়ী সমাধান খুঁজে বের করতে আলোচনা চালিয়ে যেতে সম্মত হয়েছে ইসরায়েল ও ফিলিস্তিনি প্রতিনিধিরা। কায়রো আলোচনায় অংশগ্রহণকারী এক ফিলিস্তিনি কর্মকর্তা জানিয়েছেন, আলোচনায় পরিসংহার টানতে এক দিনের অস্ত্রবিরতিতে সম্মত হয়েছেন দুই পক্ষ। এক ইসরায়েলি কর্মকর্তা এবং নিরাপত্তা সূত্রও ২৪ ঘণ্টার অস্ত্রবিরতির কথা স্বীকার করেছেন।

গাজায় এক উর্ধ্বতন ফিলিস্তিনি কর্মকর্তা বলেছেন, কায়রো আলোচনায় দুই পক্ষই একটি চুক্তির পথে এগুচ্ছে। তবে কেবল দুটি ইস্যু নিয়ে মতবিরোধ চলছে। এগুলোর একটি হল, গাজায় স্বাধীন পণ্য প্রবাহের অনুমতি এবং ভূমধ্যসাগরে সামুদ্রিকসীমার পরিমান বৃদ্ধি। এছাড়া হামাসের সমুদ্রবন্দর খুলে দেয়ার দাবিতেও এখনো রাজি হয়নি ইসরায়েল। কায়রো বৈঠকের শেষ পর্যায়ে ইসরায়েল এ ইস্যু নিয়ে আলোচনা করবে বলে জানিয়েছেন এক ফিলিস্তিনি কর্মকর্তা। তখন ইসরায়েলি কারাগারে আটক ফিলিস্তিনি বন্দিদের মুক্তির বিষয় নিয়েও আলোচনা করবে দুই পক্ষ।

এর আগে রোববার ফিলিস্তিনি আলোচক কায়েস আবদুল করিম বলেছিলেন, হামাস এবং গাজার অন্যান্য উপদলগুলো অস্ত্র ত্যাগ করবে এ বিষয়ে নিশ্চয়তা চাইছে ইসরায়েল। তবে গাজার ওপর থেকে ইসরায়েল ও মিশরীয় অবরোধ তুলে না নেয়া হলে এ ধরণের শর্তে রাজি হবে না হামাস।

এদিকে গাজা থেকে আল জাজিরা প্রতিনিধি হোদা আবদেল হামিদ জানিয়েছেন, কায়রো আলোচনা শেষ পর্যন্ত সফল হবে কীনা তা জানতে এক দিনের এই অস্ত্রবিরতি চুক্তির মেয়াদ শেষ হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। মঙ্গলবার সকাল থেকে শুরু হওয়া ওই চুক্তি বুধবার শেষ হওয়ার কথা রয়েছে।

এ প্রসঙ্গে হোদা আবদেল হামিদ আরো বলেন,‘ গাজার বাসিন্দারা এখন আশা করছেন আর মাত্র কয়েক ঘণ্টা পর তারা যে অনিশ্চিত আবহাওয়ার মধ্যে কাটাচ্ছেন তার অবসান হবে। তবে সত্যি সত্যিই এই সঙ্কটের সমাধান হবে কীনা তার জন্য তাদের বুধবার রাত পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে।’

প্রসঙ্গত, গত ৮ জুলাই গাজায় শুরু হওয়া ইসরায়েলি হামলায় এ পর্যন্ত দুই হাজার ১৬ জন ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে কয়েক সহস্র। হতাহত ব্যক্তিদের অধিকাংশই বেসামরিক নাগরিক।

মধ্যপ্রাচ্য

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে