Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, বুধবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০১৯ , ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

গড় রেটিং: 2.6/5 (41 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৮-০৬-২০১৪

টাকার লোভে মেয়েকে ৬বার বিয়ে!

টাকার লোভে মেয়েকে ৬বার বিয়ে!

সাতক্ষীরা,৬ আগষ্ট-  অর্থলোভী বাবার কারণে ৬ষ্ঠবারের মত বিয়ে করেও স্বামীর ঘর করা হচ্ছে না ফরিদার। বিয়ের কিছুদিন যেতে না যেতেই নানা অজুহাত দেখিয়ে ছেলেপক্ষের কাছ থেকে মেয়েকে ছাড়িয়ে আনেন স্বার্থপর বাবা। এরপর মেয়েকে অন্য জায়গায় বিয়ে দেন। রাজি না হলে মেয়েকে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করেন নিষ্ঠুর এই বাবা। বাবার লোভের কারণে হুমকির মুখে মেয়ে ফরিদা খাতুনের জীবন।

জানা গেছে, সাতক্ষীরার দেবহাটা উপজেলার নওয়াপাড়া ইউনিয়নের কামকেটে গ্রামের মজিদ ঢালী তার বড় মেয়ে ফরিদাকে একে একে ছয় জায়গায় বিয়ে দেন। বিয়ের কিছুদিন যেতে না যেতেই বিভিন্ন অজুহাত দেখিয়ে ছেলেপক্ষের কাছ থেকে হাজার হাজার টাকা হাতিয়ে নেন অর্থলোভী এই বাবা।

মজিদ ঢালী তার মেয়েকে প্রথমে পারুলিয়া শান্তা গ্রামের আবুল গাজীর ছেলে নজরুল গাজীর সাথে বিয়ে দেন। বিয়ের কিছুদিন পর মেয়েকে ছাড়িয়ে আনেন। উল্টো মামলার ভয় দেখিয়ে ২৫ হাজার টাকাও নেন ছেলেপক্ষের কাছ থেকে।  

এরপর কালিগঞ্জ নলতার ঘোনা কাশেমপুর গ্রামের সালামের সাথে মেয়েকে বিয়ে দেন মজিদ ঢালী।  বিয়ের দুই মাস পর যৌতুকের মামলার ভয় দেখিয়ে ছেলেপক্ষের কাছে  ২০হাজার টাকা হাতিয়ে নেন তিনি।  

সালামের সাথে ফরিদার তালাকের পর তৃতীয়বারের মত মেয়েকে পাত্রস্থ করেন মজিদ ঢালী। বর কালিগঞ্জ সন্যাসীচক গ্রামের ইমান গাজীর ছেলে নফেল গাজী। এবারো ছেলেপক্ষের বিরুদ্ধে নারী নির্যাতনের অভিযোগ এনে মামলার হুমকি দেন। পরে ছেলেপক্ষের কাছ থেকে ৩০হাজার টাকা নিয়ে মেয়েকে ছাড়িয়ে আনেন মজিদ।

এভাবে সদরের ধুলিহর ইউনিয়নের ভালুকা চাঁদপুর গ্রামের করিম এবং আশাশুনির তোয়ারডাঙ্গা গ্রামের আনারুল মোল্যার ছেলে মালেক মোল্লার সাথে ফরিদাকে বিয়ে দিয়ে প্রায়  ৬০হাজার টাকা বাগিয়ে নেন মজিদ ঢালী।

বাবার এসব অনৈতিক কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে কথা বললেই ফরিদাকে বিভিন্ন নির্যাতন করার হয়। গত জুন মাসে দেবহাটা গ্রামের খালেক ঢালীর সাথে ষষ্ঠবারের মত মেয়েকে বিয়ে দেন। ঈদের দুই দিন আগে মেয়েকে ভুলিয়ে ভালিয়ে খালেকের বাড়ি থেকে নিজের বাড়িতে নিয়ে আসেন মজিদ। বাড়িতে আনার পর মজিদের সুর পাল্টে যায়। সপ্তম স্বামী খালেক ঢালীকে পরিত্যাগ করার জন্য মেয়েকে চাপ প্রয়োগ করেন।

এক পর্যায়ে মেয়েকে মারধর করলে ফরিদা চেতনানাশক ওষুধ সেবন করে আত্মহত্যার চেষ্টা করে। পরে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করলে তিনি সুস্থ হন।  

বার বার বিয়ে আর অর্থলোভী বাবার কারণে ফরিদার জীবন আজ অতিষ্ঠ। কেননা কোন স্বামীর সাথেই তার সংসার জীবন বেশি দিন টিকেনি। তবুও মেয়েকে সপ্তম বিয়ে দেওয়ার জন্য নানা ফন্দি ফিকির করছেন মজিদ ঢালী।

সাতক্ষীরা

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে