Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, রবিবার, ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৯ , ১ পৌষ ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.7/5 (30 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০২-১৭-২০১২

দুই নেত্রীকে এক সঙ্গে কাজ করার আহ্বান ব্লেকের

দুই নেত্রীকে এক সঙ্গে কাজ করার আহ্বান ব্লেকের
দলীয় সংকীর্ণতার ঊর্ধ্বে উঠে দেশের মানুষের স্বার্থে দু’নেত্রীকে সংসদ এবং সংসদের বাইরে একসঙ্গে কাজ করার আহ্বান জানিয়েছেন সফররত মার্কিন সহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী রবার্ট ও ব্লেক। তিন দিনের সফরের শেষ দিনে গতকাল জাতীয় প্রেস ক্লাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি আশা করেন, প্রধান দুই রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগ ও বিএনপি ঐকমত্যের ভিত্তিতে এমন একটি পন্থা বের করবে, যাতে দেশে সব দলের অংশ গ্রহণে অবাধ, সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ একটি নির্বাচনের আয়োজন করা যায়। মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরের দক্ষিণ ও মধ্য এশিয়ার বিষয়ক সহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রীর দায়িত্ব গ্রহণের পর বাংলাদেশে এটি ব্লেকের তৃতীয় সফর। গত বছর মার্চে ঢাকায় এসেছিলেন তিনি। সে সময়ও দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে মন্তব্য করেছিলেন। প্রায় এক বছর পর ঢাকায় এসে দু’নেত্রীর সঙ্গে বৈঠক করেছেন। সাংবাদিকদের তরফে তার কাছে প্রশ্ন ছিল- আলোচনার টেবিলে বসতে দু’নেত্রীর কোন আগ্রহ তিনি দেখেছেন কিনা? জবাবে ব্লেক বলেন, তাদের দু’জনের কথাই গুরুত্ব সহকারে শুনেছি। এ নিয়ে আর কোন কথা না বাড়িয়ে ব্লেক দেশের মানুষের স্বার্থে দু’দলের নেত্রীকে এক সঙ্গে কাজ করার আহ্বান জানান।  এক বছর আগে তিনি যখন ঢাকায় এসেছিলেন তখন গ্রামীণ ব্যাংকের এমডি পদ থেকে তার কর্ণধার নোবেলজয়ী ড. মুহম্মদ ইউনূসকে সরিয়ে দেয়ার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছিল। সে সময় ব্লেক এক সংবাদ সম্মেলনে বিষয়টির সম্মানজনক সমাধান করতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়ে  উদ্বেগ প্রকাশ করেছিলেন, তা না হলে ঢাকা-ওয়াশিংটন সম্পর্কে প্রভাব বাড়বে। এবারের সংবাদ সম্মেলনে প্রসঙ্গটি টেনে সাংবাদিকরা এ নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান জানতে চান। জবাবে ব্লেক তার উদ্বেগের বিষয়টি পুনর্ব্যক্ত করেন। এর সঙ্গে যোগ করেন গণমাধ্যম এবং নাগরিক সমাজের কাজের ক্ষেত্র সঙ্কুুচিত হওয়ার বিষয়টি। বলেন, গ্রামীণ ব্যাংকের কার্যক্রম স্বাভাবিক রাখা এবং গণমাধ্যম ও নাগরিক সমাজে কাজের ক্ষেত্র সঙ্কুচিত হওয়ার আশঙ্কায় যুক্তরাষ্ট্রের উদ্বেগ এখনও নিরসন হয়নি। যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে এ বিষয়টি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী দীপুমনিকে আবারও জানানো হয়েছে। বাংলাদেশ সরকারের তরফে যে ব্যাখ্যা দেয়া হয়েছে, তাতে তিনি সন্তুষ্ট কিনা- জানতে চাইলে ব্লেক বলেন, সরকার একটি ব্যাখা দিয়েছে, আমিও আমার বক্তব্য তুলে ধরেছি। সব বৈঠকেই গ্রামীণ ব্যাংকের কার্যকারিতা ও শেয়ার হোল্ডারদের স্বার্থ বজায় রাখতে ড. ইউনূসের একজন যোগ্য উত্তরসূরি খুঁজে বের করার বিষয়ে জোর দেয়া হয়েছে। ব্লেক বলেন, গ্রামীণ ব্যাংকে আজ শুধু বাংলাদেশের জন্য নয়, সারা বিশ্বের জন্য এক রোল মডেল। এটা দেশের গণ্ডি ছাড়িয়েছে অনেক আগেই। আমি এ প্রতিষ্ঠানকে অভিবাদন জানাই। এনজিওগুলোর নিয়ন্ত্রণে আইন প্রণয়ন প্রসঙ্গে ব্লেক বলেন, নাগরিক সমাজের পক্ষ থেকে বিষয়টি নিয়ে উদ্বেগ জানানো হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র আশা করে, সরকার এ ধরনের কোন বিধি প্রণয়নের আগে নাগরিকদের সঙ্গে আলোচনা করবে। ভারত সীমান্তে নিরীহ বাংলাদেশীদের হত্যা প্রসঙ্গে মার্কিন সহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমি শুনেছি সীমান্তে হত্যা-নির্যাতনের ঘটনায় ভারত সরকারের পক্ষ থেকে দুঃখ প্রকাশ করা হয়েছে। দিন দিন পরিস্থিতির উন্নয়ন ঘটছে। হতাহতের ঘটনাও কমে আসছে। দু’দেশের প্রধানমন্ত্রী পর্যায়ে সফর বিনিময়ের পর বিবদমান অনেক ইস্যুর সুরাহা এবং সম্পর্কের অগ্রগতি হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র এ উদ্যোগকে স্বাগত জানায়। একই সঙ্গে আশা করে, কেবল ভারতের সঙ্গেই নয়, নেপালসহ অন্য প্রতিবেশীর সঙ্গেও সম্পর্ক বৃদ্ধি করে বাংলাদেশ আঞ্চলিক সহযোগিতা আরও জোরদার করবে। রাশিয়া থেকে বাংলাদেশের বিপুল পরিমাণ প্রতিরক্ষা ক্রয়সংক্রান্ত এক প্রশ্নের জবাবে ব্লেক বলেন, প্রত্যেক দেশেরই আত্মরক্ষার অধিকার আছে। তিনি বলেন, এ ধরনের ক্রয়ে প্রতিযোগিতা করতে মার্কিন কোম্পানিগুলোও ইচ্ছুক। গত ক’দিন আগে ফাঁস হওয়া ‘সেনাবাহিনীতে অভ্যুত্থান চেষ্টা’ প্রসঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান জানতে চাইলে মার্কিন দূত বলেন, কোন ধরনের ক্যু যুক্তরাষ্ট্র সমর্থন করে না। এ ধরনের চেষ্টাকে আমরা নিন্দা জানাই। আমরা বর্তমান সরকারের সঙ্গে কাজ করতে চাই। যুক্তরাষ্ট্রের প্রস্তাবিত রূপরেখা বাণিজ্য চুক্তি (টিকফা) সইয়ের প্রস্তুতি প্রসঙ্গে জানতে চাইলে ব্লেক বলেন, চুক্তিটি সই করতে দু’দেশের তরফে অনেক কাজ এগিয়েছে। ঢাকা-ওয়াশিংটন বাণিজ্য খুব দ্রুত উল্লেখযোগ্য হারে বাড়ছে। এ চুক্তি সইয়ের এখনই মুখ্য সময়।
গত মঙ্গলবার ঢাকায় আসেন ব্লেক। প্রথম দিনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে মার্কিন সিনেটর এডওয়ার্ড এম কেনেডির ঢাকা সফরের ৪০ বছর পূর্তি অনুষ্ঠানে অংশ নেন। বিকালে দেশের গণমাধ্যমের সিনিয়র সম্পাদকদের সঙ্গে মতবিনিময় এবং সন্ধ্যায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে বৈঠক করেন। বুধবার সারা দিনে চট্টগ্রামে এশিয়ান ইউনিভার্সিটি ফর উইমেন-এর নানা কর্মসূচিতে ব্যস্ত ছিলেন। ঢাকায় ফিরে রাতে বৈঠক করেন বিরোধী দলের নেতা ও বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে। গতকাল সকালে ঢাকার অদূরে সোনারগাঁওয়ে গ্রামীণ ব্যাংকের একটি কেন্দ্র পরিদর্শন, ঢাকায় আমেরিকান ট্রেড শো উদ্বোধন এবং বিকালে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডা. দীপুমনির সঙ্গে বৈঠক করেন তিনি। সংবাদ সম্মেলনে ব্লেক তিন দিনের কর্মব্যস্ততা এবং বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থানের কথা তুলে ধরেন। এ সময় ঢাকাস্থ মার্কিন রাষ্ট্রদূত ড্যান মজিনা উপস্থিত ছিলেন।

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে