Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, বুধবার, ২২ জানুয়ারি, ২০২০ , ৮ মাঘ ১৪২৬

গড় রেটিং: 1.9/5 (70 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০২-১৪-২০১২

সাংবাদিক দম্পতি হত্যার তদন্ত নিয়ে নানা প্রশ্ন

সাংবাদিক দম্পতি হত্যার তদন্ত নিয়ে নানা প্রশ্ন
ঢাকা, ১৪ ফেব্রুয়ারি: সাংবাদিক দম্পতি হত্যার তদন্ত নিয়ে জনমতে নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুসারে পুলিশ বিষয়টির রহস্য উন্মোচন করলেও দ্রুততম সময়ে তা না জানানোতেই প্রক্রিয়া নিয়ে এই প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। সেইসঙ্গে এই চাঞ্চল্যকর জোড়াখুনের ঘটনায় কেউ আটক না হওয়াকে হতাশাজনক বলে উল্লেখ করছেন অনেকেই।

মানবাধিকার কর্মী ও সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা সুলতানা কামাল বলেন, “গণমাধ্যম কর্মী খুনের ঘটনায় রহস্য অতিদ্রুত উন্মোচিত না হলে পুরো সাংবাদিক সমাজই বিপদে পড়বে। অপরাধীরা পার পেয়ে গেলে এ ধরনের ঘটনা আরো ঘটাতে পারে।”

গণমাধ্যমকর্মী ফারজানা আহমেদ বলেন, “এই খুনের প্রকৃত সত্য যত তাড়াতাড়ি প্রকাশ পাবে ততই ভালো। এই ঘটনায় আমাকে পারিবারিকভাবে এই পেশা ছেড়ে দেয়ার চাপ দেয়া হচ্ছে। এখন সরকার এই খুনের মোটিভ জানিয়ে দিয়ে সবাই স্বস্তি পেতো। যেকারণেই হোক তা আমাদেরকে জানাতে হবে।”

তদন্ত সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন সূত্রে প্রাপ্ত তথ্যানুসারে, সাংবাদিক দম্পত্তি হত্যা ঘটনায় জড়িত রয়েছেন এক গণমাধ্যম কর্মী ও এক ডেভেলপার ব্যবসায়ী। বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত তথ্যমতে ইতোমধ্যেই খুনের রহস্য উন্মোচন করেছে পুলিশ। কিছু বিষয়ে সন্দেহে থাকায় তারা নিশ্চিত হওয়ার চেষ্টা করছে তদন্তকারীরা।

প্রকাশিত প্রতিবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বিভিন্ন গণমাধ্যম ব্যক্তির বিষয়ে রাজধানীতে বেশ কিছু গুজব ছড়িয়ে পড়ে। এ কারণেই তেজগাঁও বিভাগের উপকমিশনার মো. ইমাম হোসেন মঙ্গলবার কোনো গণমাধ্যমকর্মীকে গ্রেফতার করা হয়নি। তিনি বলেন, এখন পর্যন্ত কোনো গণমাধ্যম কর্মীকে সন্দেহের তালিকাতেও রাখা হয়নি।

ইমাম হোসেন জানান, তদন্ত প্রক্রিয়ায় নিহত দুই সাংবাদিকের ব্যক্তিগত জীবনের পাশাপাশি পেশাগত দায়িত্ব পালনে কারও প্রতিহিংসার শিকার হয়েছেন কিনা সেটাও গুরত্ব দেয়া হচ্ছে। এজন্য মাছরাঙ্গা ও এটিএন বাংলায় তল্লাশি চালানো হবে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

তল্লাশির কারণ হিসেবে ইমাম হোসেন বলেন, সাগর ও রুনির জ্বালানি বিষয়ক প্রতিবেদনের জন্য কোনো প্রতিহিংসা হয়েছে কিনা সেজন্য তাদের প্রতিবেদনগুলো খতিয়ে দেয়া হবে।

গত শুক্রবার রাতে নিজ বাসায় খুন হন বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল মাছরাঙ্গার বার্তাসম্পাদক সাগর সরওয়ার ও এটিএন বাংলার সিনিয়র রিপোর্টার মেহেরুন রুনি। এই দম্পতির একমাত্র ছেলে মেঘ এখন তার আত্মীয়দের হেফাজতে আছেন। ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের একটি দল মেঘের নিরাপত্তায় রয়েছে।

শনিবার সকালে পশ্চিম রাজাবাজারের বাসা থেকে সাগর-রুনির লাশ উদ্ধারের পর ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুন বলেছিলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় তিনি ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে খুনিদের গ্রেপ্তারের নির্দেশ দিয়েছেন।

ওই সময় পেরিয়ে যাওয়ার পর পুলিশের মহাপরিদর্শক হাসান মাহমুদ খন্দকার এক সংবাদ সম্মেলনে জানান, তারা তদন্ত শেষ করতে না পারলেও উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি হয়েছে।

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে