Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, সোমবার, ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ , ১ আশ্বিন ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.0/5 (95 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৭-০১-২০১৪

সাগরদাঁড়ির মাইকেল মধুসূদন দত্ত

সাগরদাঁড়ির মাইকেল মধুসূদন দত্ত

উনিশ শতকের নব জাগরণের শ্রেষ্ঠ প্রতিভা, বাংলা কবিতার প্রথম আধুনিক কবি মাইকেল মধুসূদন দত্ত ১৮৭৩ সালের আজকের দিনে (২৯ জুন) কলকাতার আলিপুর দাতব্য চিকিৎসালয়ে মারা যান। নব্য বাংলার সাহিত্য পূর্ণরূপে আত্মপ্রকাশ করে এই মহান কবির হাত ধরে। বিস্ময়কর প্রতিভার অধিকারী মধুসূদনের জীবনও ছিল বিস্ময়কর। ধর্মান্তরিত হয়ে খ্রিস্টান হয়েছিলেন তিনি। রচনা করেছিলেন ইংরেজী সাহিত্য। তার সাহিত্য ও ইতিহাস বোধ অতুলনীয়।

মাইকেল মধুসূদন দত্ত ১৮২৪ সালের ২৫ জানুয়ারি যশোর জেলার সাগরদাঁড়ি গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার পূর্ব পুরুষের আদি নিবাস  ছিল বালি, হাওড়া, পশ্চিমবঙ্গ। বসতি ছিল গোপালপুর, তালা, সাতক্ষীরা। মধুসূদনের পিতার নাম মহামতি রাজ নারায়ণ দত্ত আর মাতা জাহ্নবী দেবী। মাইকেল পড়াশুনা করেন প্রথমে কলকাতা হিন্দু কলেজে এবং পরে ১৮৪৮ সাল থেকে পিতার অর্থ সাহায্য বন্ধ হলে মাদ্রাজ চলে যান। সেখানে ইংরেজ নারী রেবেকা ম্যাক্টাভিসের সঙ্গে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন।

১৮৪৯ সালে মাইকেল মধুসূদন দত্ত ইংরেজী কাব্য 'The Captive Ladie'রচনা করেন। ১৮৫৪ সালে তিনি মাদ্রাজ বিশ্ববিদ্যালয়ে চাকুরী গ্রহণ করেন। ১৮৫৬ সালে তিনি রেবেকাকে ত্যাগ করে এক ফরাসি নারী হেনরিয়েটাকে বিয়ে করে কলকাতায় ফিরে আসেন। ১৮৫৮ সালে রচনা করেন নাটক 'শর্মিষ্ঠা'। ১৮৬০ সালে 'একেই কি বলে সভ্যতা' ও 'বুড়ো শালিকের ঘাড়ে রোঁ' নামক দুটি প্রহসন লেখেন। এ সময় তিনি সর্বপ্রথম অমিত্রাক্ষর ছন্দে লেখেন 'তিলোত্তমা সম্ভব' কাব্য। এরপর ১৮৬১ সালে রচনা করেন তার সর্বশ্রেষ্ঠ কীর্তি 'মেঘনাদবধ কাব্য'। এরপর লেখেন ব্রজাঙ্গনা কাব্য (১৮৬১), বীরাঙ্গনা কাব্য (১৮৬২)।

১৯৬২ সালে তিনি ব্যারিস্টারি পড়ার জন্য বিলেতের গ্রেজইন বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন। ১৮৬৩ সালে তিনি ফ্রান্সে গিয়ে ভার্সাই নগরে সপরিবারে থাকতে শুরু করেন। ১৮৬৬ সালের ১৭ ডিসেম্বর তার ব্যারিস্টারি শিক্ষা সমাপ্ত হয়। ভার্সাইতে থাকাকালীন ইতালীয় ভাষার সনেট বাংলায় প্রবর্তনের চেষ্টা করেন, যার ফল তারচতুর্দশপদী কবিতাবলী (১৮৬৬)। ১৮৬৭ সাল থেকে আইন ব্যবসা শুরু।

কবি তার জীবনের শেষ দিনগুলোতে জন্মভুমির প্রতি তার ভালবাসার চিহ্ন রেখে গেছেন। তার সমাধিস্থলে লেখা আছে:

'দাঁড়াও পথিকবর, জন্ম যদি তব বঙ্গে!তিষ্ঠ ক্ষণকাল!এ সমাধি স্থলে(জননীর কোলে শিশু লভয়েযেমতি বিরাম) মহীর পদে মহা নিদ্রাবৃতদত্ত কুলোদ্ভব কবি শ্রীমধুসূদন!'

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে