Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, শুক্রবার, ১০ জুলাই, ২০২০ , ২৬ আষাঢ় ১৪২৭

গড় রেটিং: 2.9/5 (24 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)


আপডেট : ০৫-২২-২০১৪

সড়ক দুর্ঘটনায় দুই ছাত্র নিহত

সড়ক দুর্ঘটনায় দুই ছাত্র নিহত

সিলেট, ২২ মে- ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে একটি মাইক্রোবাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সেতুর রেলিং ভেঙে খাদে পড়ে। মাইক্রোবাসচাপায় সেতুর ওপর দাঁড়িয়ে থাকা দুই মাদ্রাসাছাত্র নিহত হয়েছে। গতকাল বুধবার সকালে সিলেটের বালাগঞ্জ উপজেলার ওসমানীনগরের নাজিরবাজার এলাকায় দুর্ঘটনাটি ঘটে।
নিহত শিক্ষার্থীরা হচ্ছে ওসমানীনগরের কেশবপুর গ্রামের বসির আহমদের ছেলে ফরহাদ হোসেন (১০) ও একই গ্রামের আজমির আলীর ছেলে রাকিব আল শাহরান (৯)। তারা নাজিরবাজার দারুল কোরআন মাদ্রাসার যথাক্রমে তৃতীয় ও দ্বিতীয় শ্রেণীর ছাত্র। দুর্ঘটনার খবর পেয়ে মাদ্রাসার ছাত্র ও এলাকাবাসী প্রায় তিন ঘণ্টা মহাসড়ক অবরোধ করে রাখে। এ সময় বিক্ষিপ্তভাবে হামলা চালিয়ে যানবাহন ভাঙচুর করা হয়।
পুলিশ জানায়, একটি মাইক্রোবাস (ঢাকা মেট্রো চ ১১-৫৫০৪) নরসিংদী থেকে সিলেট যাচ্ছিল৷ সকাল নয়টার দিকে নাজিরবাজার এলাকায় একটি ছোট সেতুর কাছে এসে চাকা ফুটো হয়ে গেলে গাড়িটির চালক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলেন। এ সময় সেতুর ওপর থাকা দুই মাদ্রাসাছাত্রকে চাপা দিয়ে মাইক্রোবাসটি সেতুর নিরাপত্তাবেষ্টনী ভেঙে খাদে পড়ে যায়। ঘটনাস্থলেই মারা যায় দুই শিক্ষার্থী। মাইক্রোবাসে থাকা পাঁচ শিশুসহ একই পরিবারের ১৪ জন যাত্রী আহত হয়। খবর পেয়ে তাজপুর ফায়ার সার্ভিসকর্মীরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে আহত ব্যক্তিদের উদ্ধার করে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠান।
এদিকে দুর্ঘটনার খবর পেয়ে মাদ্রাসার ছাত্র ও এলাকাবাসী বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন। দুই ছাত্রের লাশ মহাসড়কে রেখে অবরোধ সৃষ্টি করেন তাঁরা। এ সময় সাতটি যানবাহন ভাঙচুর করা হয়। খবর পেয়ে বালাগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবদাল মিয়া ও দক্ষিণ সুরমা উপজেলা চেয়ারম্যান আবু জাহিদ ঘটনাস্থলে গিয়ে বিক্ষুব্ধ ব্যক্তিদের শান্ত করেন। দুপুর ১২টায় অবরোধ তুলে নিলে মহাসড়কে যান চলাচল স্বাভাবিক হয়।
চালকের অসতর্কতার কারণেই দুর্ঘটনাটি ঘটেছে বলে জানিয়েছেন ওসমানীনগর থানার ওসি জুবের আহমদ। ওসি জানান, দুই ছাত্রের লাশ জনতার কাছ থেকে নিয়ে ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। আহতদের উদ্ধার করে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
দুর্ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী নিহত ফরহাদের মামা আপ্তাব আলী বলেন, মাদ্রাসায় যাওয়ার জন্য দুজনকে মহাসড়ক পার করে দেওয়ার পরপরই দুর্ঘটনাটি ঘটে। মহাসড়কে গতিরোধক থাকলে দুর্ঘটনায় প্রাণহানি এড়ানো যেত।
নাজিরবাজার দারুল কুরআন মাদ্রাসার মুহতামিম মাওলানা জাহিদ হাসান বলেন, ‘নিহত ব্যক্তিদের পরিবারকে ক্ষতিপূরণ, সেতু প্রশস্তকরণ ও মহাসড়কে গতিরোধক স্থাপনের দাবিতে গণস্বাক্ষর নেওয়া হয়েছে। এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বরাবর লিখিত আবেদন করব।’

সিলেট

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে