Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, সোমবার, ২০ জানুয়ারি, ২০২০ , ৭ মাঘ ১৪২৬

গড় রেটিং: 2.5/5 (24 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০১-৩১-২০১২

দেশের শীর্ষ বৌদ্ধধর্মীয় সাধক বনভান্তে আর নেই

দেশের শীর্ষ বৌদ্ধধর্মীয় সাধক বনভান্তে আর নেই
দেশের বৌদ্ধসম্প্রদায়ের অন্যতম শীর্ষ ধর্মীয় গুরু শ্রীমৎ সাধনানন্দ মহাথের (বনভান্তে) মহাপ্রয়াণ হয়েছে। সোমবার বিকেল চারটার দিকে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।
রাজা দেবাশীষ রায় জানান, ৮ জানুয়ারি ৯৩তম জন্মদিন পালন করা বনভান্তে বার্ধক্যজনিত রোগ ছাড়াও উচ্চ রক্তচাপ, ঠান্ডাজনিত সমস্যা ও ফুসফুসের সমস্যায় ভুগছিলেন। গত বৃহস্পতিবার গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে পরের দিন শুক্রবার সকালে তাঁকে হেলিকপ্টারযোগে রাঙামাটি থেকে রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে নেওয়া হয়।
রাঙামাটি রাজবন বিহার পরিচালনা কমিটির জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি গৌতম দেওয়ান  জানান, ঢাকা মহানগরের পুণ্যার্থীদের জন্য মঙ্গলবার সকাল আটটায় রাজধানীর কলাবাগান মাঠে বনভান্তের মরদেহ রাখা হবে। এ সময় তাঁর পারলৌকিক সৎগতি কামনা করে ধর্মীয় অনুষ্ঠান পালন করা হবে। পরে সকাল ১০টায় মরদেহ সড়কপথে রাঙামাটি নেওয়া হবে। সেখানে বনভান্তের নিজস্ব ভবনে মরদেহ সংরক্ষণ করা হবে। ধর্মীয় অনুষ্ঠানের মাধ্যমে শ্রদ্ধা অর্পণের পরে বনভান্তের মরদেহ নেওয়া হবে বনবিহার মাঠে।
আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন এই ধর্মগুরু ১৯২০ সালের ২০ জানুয়ারি রাঙামাটি সদর উপজেলার মগবান ইউনিয়নের মোড়ঘোনা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পারিবারিক নাম ছিল রথীন্দ্র চাকমা। বাবার নাম হারুমোহন চাকমা আর মায়ের নাম বীরপুদি চাকমা।
চট্টগ্রামের নন্দনকানন বৌদ্ধবিহারে ১৯৪৯ সালে রথীন্দ্র চাকমা বৌদ্ধসাধকের প্রব্রজ্যা গ্রহণ করে ‘শ্রীমৎ সাধনানন্দ ভিক্ষু’ নাম ধারণ করেন। পরে তিনি রাঙামাটির ধনপাতার গভীর বনে দীর্ঘকাল লোকোত্তর সাধনায় নিয়োজিত ছিলেন। সাধনানন্দ ভিক্ষু বৌদ্ধধর্মের দর্শন ও বাণী অনর্গলভাবে স্থানীয় ভাষায় সহজে উপস্থাপন ও হিংসা-বিদ্বেষ, লোভ-মোহ, হানাহানির কুফল এবং ত্যাগ, ক্ষমা ও সম্প্রীতির মহিমা প্রচারের কারণে ‘বনভান্তে’ নামে খ্যাতি লাভ করেন।
বনভান্তে ১৯৭৬ সালে রাঙামাটি রাজবন বিহারে আসেন।

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে