Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, রবিবার, ১৮ আগস্ট, ২০১৯ , ৩ ভাদ্র ১৪২৬

গড় রেটিং: 2.0/5 (1 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০১-২৬-২০১২

‘ঢাকা চলো’ ঠেকাতে ‘মুক্তিযোদ্ধা’ সমাবেশ

‘ঢাকা চলো’ ঠেকাতে ‘মুক্তিযোদ্ধা’ সমাবেশ
আগামী ১২ মার্চ বিএনপি নেতৃত্বাধীন চারদলীয় জোটের ঢাকা চলো কর্মসূচির দিনে একই স্থানে রাজধানীতে মুক্তিযোদ্ধাদের সমাবেশ করার প্রস্তুতি চলছে। বিএনপি’র পূর্ব ঘোষিত কর্মসূচিতে থাকবেন বিরোধীদলীয় নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া। অপরদিকে, যুদ্ধাপরাধের বিচারের দাবিতে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ যে সমাবেশ ডাকা প্রস্তুতি নিচ্ছে সেখানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উপস্থিত থাকতে পারেন বলে জানিয়েছেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী।
 
তত্ত্বাবধায়ক সরকার পুনর্বহাল দাবিতে পল্টনে মহাসমাবেশ করবে বিএনপি-জামায়াত জোট। পল্টনে অনুমতি না পেলে নয়াপল্টনে এই মহাসমাবেশ করার প্রস্তুতি রয়েছে। আর মুক্তিযোদ্ধা সংসদ আয়োজিত
মুক্তিযোদ্ধা সমাবেশের স্থান এখনও নির্ধারণ করা হয়নি তবে সেটা পল্টনেই হবে বলে জানিয়েছে একাধিক সূত্র।

মুক্তিযোদ্ধা সংসদের চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল অব. হেলাল মোরশেদ খান জানিয়েছেন, বিএনপি তাদের সমাবেশ করবে। মুক্তিযোদ্ধা সংসদ করবে মুক্তিযোদ্ধাদের মহাসমাবেশ। বিএনপির সমাবেশ ছোট হবে। মুক্তিযোদ্ধাদের মহাসমাবেশ হবে বড়।

মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ক্যাপ্টেন অব. এবি তাজুল ইসলাম বলেছেন, যুদ্ধাপরাধের বিচারের দাবিতে মার্চে ঢাকায় মুক্তিযোদ্ধাদের বড় ধরনের সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। এর প্রস্তুতি হিসেবে আগামী কয়েক দিনের মধ্যেই ঢাকার মুক্তিযোদ্ধাদের সমাবেশ ডাকা হবে। তবে দিনক্ষণ এখনও চূড়ান্ত হয়নি।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছেন, এর ফলে ওই দিন বড় ধরনের রাজনৈতিক সংঘাত ছড়িয়ে পড়তে পারে।

এ অবস্থায় সরকারের নীতি-নির্ধারক নেতাদের একটি অংশ চলতি সপ্তাহের শুরুর দিকে নিজেদের মধ্যে প্রাথমিক শলা-পরামর্শ করেছেন। সেখানে কয়েকজন সাংসদও উপস্থিত ছিলেন। ওই বৈঠকে ১২ মার্চ ঢাকার প্রধান চারটি প্রবেশ পথে কড়া নজরদারি নিশ্চিত করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

আওয়ামী লীগ নেতারা বলেছেন, গত ১৮ ডিসেম্বর বিএনপির ডাকে মুক্তিযোদ্ধা সংবর্ধনার নামে নাশকতা সৃষ্টিসহ ঢাকা দখলের ষড়যন্ত্র করেছিল একটি অপশক্তি। কিন্তু মুক্তিযুদ্ধ শুরুর মাসে মহাসমাবেশের নামে জামায়াতের আস্ফালন কিছুতেই সহ্য করা হবে না।
 
চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিচ্ছে বিরোধী দল
তত্ত্বাবধায়ক সরকার বহাল রাখার একদফা দাবিতে আগামী ১২ মার্চ 'ঢাকা চল' কর্মসূচিকে চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিয়েছে প্রধান বিরোধী দল বিএনপি। ওইদিন সরকার বা কোনো পক্ষ থেকে বাধা এলে মানবেই না তারা। পুরো ঢাকা নগরীতে জনতার ঢল নামাতে ইতোমধ্যেই ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে বিএনপিসহ চারদলীয় জোট ও সমমনা দলগুলো। চারদলীয় জোট নেতা বেগম খালেদা জিয়া নিজেই কর্মসূচি বাস্তবায়নে তদারকি করছেন। গুলশান কার্যালয়ে সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলছেন। এর আগে তিনি টেস্ট কেস হিসেবে ২৯ জানুয়ারির গণমিছিলকে সফল করতে চান।
 
কর্মসূচি উপলক্ষে জোট নেতারা ইতোমধ্যেই কয়েকদফা বৈঠক করেছেন। কর্মসূচিকে জনসমুদ্রে পরিণত করতে ঢাকা মহানগরসহ আশপাশের জেলা নেতাদের নিয়েও বৈঠক করেন বেগম জিয়া। এতে সরকারের পক্ষ থেকে কোনো বাধা আসলে পরিস্থিতি অনুযায়ী তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নেবে বলে জানিয়েছেন বিএনপির নীতি নির্ধারকরা।
 

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে